হরীতকী


হরীতকী গাছ ও ফল

হরীতকী মধ্যম থেকে বড় আকারের Combretaceae গোত্রের এক ধরনের পাতাঝরা গাছ, Terminalia chebula। গাছটি সাধারণত চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, পার্বত্য চট্টগ্রাম, ঢাকা ও টাঙ্গাইলের বনাঞ্চলে জন্মে। পথের পাশেও অনেক সময় এ গাছ লাগানো হয়; দৈর্ঘ্যে সাধারণত ১৫-২০ মিটার এবং ব্যাস ৫০-৮০ সেমি।

হরীতকী গাছের উপরের দিকটা ছাতার মতো এবং ডালপালা ছড়ানো। এর ছাল ধূসর বর্ণের কিংবা প্রায় কালো বলা যায়। ছাল পুরু ও খাড়াভাবে অসংখ্য ফাটলযুক্ত। পাতা ডিম্বাকার অথবা উপবৃত্তাকার। ফল শাঁসালো, একবীজী, শক্ত আবরণযুক্ত, পাকার পরেও শক্ত ও অাঁশযুক্ত, ২.৫-৫ সেমি দীর্ঘ, লম্বাটে এবং দুদিক ক্রমাগত সরু। ফল পাকলে হলুদাভ সবুজ বর্ণ ধারণ করে এবং চিবালে তিক্ত স্বাদযুক্ত মনে হয়। বীজের ভেতরের শাঁস খাওয়া হয়। হরীতকী কাঠ খুবই শক্ত ও টেকসই। হরীতকী ভেষজ গুণসম্পন্ন বৃক্ষ, আয়ুর্বেদিক ওষুধ ত্রিফলা তৈরিতে ব্যবহূত হয়। কলেরাআমাশয় রোগে হরীতকী একটি গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ হিসেবে কাজ করে। শুকনো হরীতকী উদ্ভিজ্জ ট্যানিং উপাদানসমূহের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ উপকরণগুলির অন্যতম।

এর কাঠ গৃহনির্মাণ, কৃষিকাজ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিস, যেমন ঘোড়ার গাড়ি, অক্ষদন্ড, জোয়াল, আসবাবপত্র ও তাক নির্মাণে ব্যবহূত হয়। যন্ত্রপাতির উন্নতমানের হাতল তৈরির কাজেও এ কাঠ খুবই উপযোগী।  [মো. মাহফুজুর রহমান]

আরও দেখুন ঔষধি লতাগুল্ম; ভেষজ উদ্ভিদ