সন্ধ্যা ভাষা


সন্ধ্যা ভাষা  বাংলা ভাষার উদ্ভব যুগের এক প্রকার প্রহেলিকাবৎ দ্ব্যর্থক শব্দযুক্ত ভাষা। মহামহোপাধ্যায়  হরপ্রসাদ শাস্ত্রী নেপালের রাজদরবার থেকে ১৯০৭ সালে  বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের আদি নিদর্শন হিসেবে স্বীকৃত একটি প্রাচীন  পুথি আবিষ্কার করেন এবং ১৯১৬ সালে হাজার বছরের পুরাণ বাঙ্গালা ভাষায় বৌদ্ধ গান ও দোহা নামে সম্পাদনা করে তা প্রকাশ করেন। ওই গ্রন্থে ধর্ম সম্বন্ধীয় কিছু গান ও দোহা আছে। প্রথমগুলির নাম ‘চর্য্যাশ্চর্য্যবিনিশ্চয়’ (ধর্মসাধনার ব্যাপারে আচরণীয় ও অনাচরণীয়ের নির্দেশ)। পদ্যাকারে গ্রথিত হওয়ায় এগুলিকে  চর্যাপদ  বা চর্যাগীতি বলা হয়। হরপ্রসাদ শাস্ত্রী এগুলির ভাষাকে বলেছেন ‘সন্ধ্যা ভাষা’। সুকুমার সেনের মতে ‘সন্ধ্যা’ শব্দটিতে প্রকটভাবে রয়েছে ‘ধ্যৈ’ (বা ‘ধা’) ধাতুর অর্থ। যে ভাষায় অভীষ্ট অর্থ বুঝতে হয় অনুধাবনের মাধ্যমে বা মর্মজ্ঞ হয়ে [সম্+ধ্যৈ] অথবা যে ভাষায় ভাবার্থ বিশেষভাবে গুপ্ত [সম্+ধা] তা-ই সন্ধ্যা ভাষা।

চর্যার পদগুলিতে বৌদ্ধ বজ্রযানী  সহজিয়া সাধক-সম্প্রদায়ের গুহ্য সাধন-পদ্ধতির কথা আছে। এতে গুরু-শিষ্যগম্য সঙ্কেত-রূপকের ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে। বাংলা ভাষার আদি নিদর্শন বিধায় এ ভাষায় তার সৃষ্টিকালীন রূপটি নিহিত। ভাষাটি তখন  প্রাকৃতঅপভ্রংশ ও  অবহট্ঠএর স্তর পেরিয়ে বাংলার নিজস্ব সত্তায় প্রকাশিত হচ্ছিল। সৃষ্টিকালীন ওই স্তরে পূর্বরূপের কিছুটা বৈশিষ্ট্য এবং সহগামী অন্য ভাষা, যেমন উড়িয়া, মৈথিলী, অসমিয়া ইত্যাদির লক্ষণ তার মধ্যে থেকে গিয়েছিল। তাই প্রথম দিকে এই ভাষার কিছুটা বাংলা আবার কিছুটা বাংলা নয় এমন মনে হয়েছে।

চর্যায় তত্ত্ব-উপদেশ ও সাধনার ইঙ্গিত আবৃত করে রাখা হয়েছে কতিপয় পারিভাষিক শব্দ ও প্রতীকে, বাহ্য অর্থের অবগুণ্ঠনে। কিছু সন্ধ্যা ভাষা তথা সন্ধ্যা-অর্থের নমুনা: আলি-কালি (প্রশ্বাস-নিঃশ্বাস), চন্দ্র (প্রজ্ঞা), ডোম্বী (শুক্রনাড়িকা), নৌকা (মহাসুখকায়) ইত্যাদি। কাব্যিক ব্যবহার:

নানা তরুবর মৌলিলরে গঅণত লাগেলী ডালী

একেলী সবরী এবণ হিন্ডই কর্ণকুন্ডল বজ্রধারী \ ধ্রু\তিঅ ধাউখাট পড়িলা সবরো মহাসুহে সেজি ছাইলী

সবরো ভুজঙ্গ ণইরামণি দারী পেহ্ম রাতি পোহাইলী \ ধ্রু\

সাধু গদ্যে এর রূপান্তর: নানা তরুবর মুকুলিত হইল রে, গগনে লাগিল তাহার ডাল, কর্ণ-কুন্ডল-ধারিণী শবরী একা এই বনে ঢুঁড়িতেছে। ত্রৈধাতুক খাট পাতিল শবর, মহাসুখে শয্যা বিছাইল; ভুজঙ্গ (প্রেমিক) শবর, প্রেয়সী নৈরামণি, প্রেমে রাত্রি পোহাইল।  [মহাম্মদ দানীউল হক]