শাস্ত্রী, হরপ্রসাদ


শাস্ত্রী, হরপ্রসাদ (১৮৫৩-১৯৩১)  প্রাচ্যবিদ্যা বিশারদ, এবং সংস্কৃতের পন্ডিত। হরপ্রসাদ ভট্টাচার্য (শাস্ত্রী)-র জন্ম ২২ অগ্রহায়ণ ১২৬০/ ৬ ডিসেম্বর ১৮৫৩। এ পরিবারের আদি নিবাস ছিল খুলনা জেলার কুমিরা গ্রামে। তিনি অগ্রজের বন্ধু ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের আশ্রয়ে থেকে সংস্কৃত কলেজে সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তি হন। এখানে এবং অংশত প্রেসিডেন্সি কলেজে তাঁর ছাত্রজীবন অতিবাহিত হয়। ১৮৭১ সালে এন্ট্রান্স, ১৮৭৩ সালে ফার্স্ট আর্টস, ১৮৭৬ সালে বি.এ এবং ১৮৭৭ সালে সংস্কৃতে অনার্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। অতঃপর হরপ্রসাদ এম.এ ডিগ্রি ও ‘শাস্ত্রী’ উপাধি অর্জন করেন। তখন এম.এ পরীক্ষার ব্যবস্থা ছিল না, অনার্স গ্রাজুয়েটগণ এম.এ ডিগ্রি পেতেন। টোল-চতুষ্পাঠীর পরিবর্তে হরপ্রসাদ আধুনিক স্কুল-কলেজে শিক্ষা লাভ করেন। সংস্কৃত কলেজে সংস্কৃত বিষয়ের ছাত্র হলেও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন সিলেবাস অনুযায়ী তাঁকে বিস্তৃতভাবে ইংরেজি সাহিত্য, দর্শন, ইতিহাস, পলিটিক্যাল ইকনমি, অ্যাল্জেব্রা-ট্রিগোনোমেট্রি পড়তে হয়েছিল। ফলে সংস্ক…ৃতর সঙ্গে শিকড়ের যোগ বজায় রেখেও আধুনিক বিদ্যার বিভিন্ন শাখায় তিনি পারদর্শী হয়ে ওঠেন।

হরপ্রসাদ শাস্ত্রী

পারিবারিক ধারা অনুসরণ করে ১৮৭৮ সালে হরপ্রসাদ হেয়ার স্কুলে ট্রানস্লেশন শিক্ষক হিসেবে চাকরি জীবন শুরু করেন। একই বছর তিনি কিছুদিন লখনৌ ক্যানিং কলেজে অধ্যাপনা করেন। পরে তিনি ১৮৮৩ সালে কলকাতার সংস্কৃত কলেজে অধ্যাপক ও একই সাথে বঙ্গীয় সরকারের সহকারী অনুবাদক হিসেবে কাজ করেন। সংস্কৃত কলেজে অধ্যাপনার সঙ্গে সঙ্গে ১৮৮৬ থেকে ১৮৯৪ পর্যন্ত তিনি বেঙ্গল লাইব্রেরির লাইব্রেরিয়ান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৮৯৫ সালে প্রেসিডেন্সি কলেজে সংস্কৃত বিভাগের প্রধান অধ্যাপক এবং ১৯০০ সালে সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ হন। ১৯০৮ সালে তিনি অবসর গ্রহণ করেন। অবসর জীবনে তিনি কিছুদিন সরকারের ‘ব্যুরো অব ইনফরমেশন’-এর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯২১ সালের ১৮ জুন তিনি নব প্রতিষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ও সংস্কৃত বিভাগের প্রধান অধ্যাপক পদে যোগদান করেন এবং এখান থেকে অবসর নেন ১৯২৪ সালের ৩০ জুন। স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে মতবিরোধ ও বন্ধুত্ব বিচ্ছেদের কারণে আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার সুযোগ পাননি।

অল্প বয়সে হরপ্রসাদ বিদ্যাসাগরের স্নেহ পেয়েছিলেন। ছাত্র বয়সে তাঁর বন্ধু, গুরু ও দেবতাতুল্য হয়ে ওঠেন অধ্যাপক রাজকৃষ্ণ মুখোপাধ্যায় (১৮৪৫-৮৬), যাঁর লেখা প্রথম শিক্ষা বাঙ্গালার ইতিহাস (১৮৭৪) গ্রন্থটি ইংরেজদের লেখা ভারতীয় ইতিহাসের যথার্থ বিকল্প হয়ে উঠেছিল বলে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় মন্তব্য করেন। হরপ্রসাদের সারাজীবনের গবেষণায় রাজকৃষ্ণের ইতিহাসতত্ত্ব সম্পর্কিত গূঢ় চিন্তাভাবনা প্রভাব বিস্তার করেছে। রাজকৃষ্ণই হরপ্রসাদকে বঙ্কিমচন্দ্রের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন এবং তাঁর ছাত্র বয়সের গবেষণা নিবন্ধ ‘ভারত মহিলা’ ১২৮২ বঙ্গাব্দের বঙ্গদর্শন পত্রিকার মাঘ-ফাল্গুন-চৈত্র তিন সংখ্যায় ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়। বঙ্গদর্শন-এর ‘মজলিস’-এর কনিষ্ঠ সদস্য হরপ্রসাদ এরপরে এই পত্রিকার অন্যতম প্রধান লেখক হয়ে ওঠেন। উপন্যাস ও বিচিত্র বিষয়ে প্রবন্ধ মিলিয়ে তাঁর প্রায় ৩০টি রচনা বঙ্গদর্শন-এ প্রকাশিত হয় এবং বাংলা সাহিত্যে স্থায়ী প্রতিষ্ঠা পায়।

প্রাচ্যবিদ্যাচর্চার অন্যতম প্রতিভা রাজেন্দ্রলাল মিত্রের সহায়তায় ১৮৮৫ সালে হরপ্রসাদ এশিয়াটিক সোসাইটির সদস্য হন। রাজেন্দ্রলালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কাজ দি স্যান্সক্রিট বুডিস্ট লিটারেচার অব নেপাল (১৮৮২) গ্রন্থে সংকলিত বৌদ্ধপুরাণের অধিকাংশ অনুবাদ তিনি সম্পন্ন করেন। এশিয়াটিক সোসাইটিতে প্রাচীন ভারতীয় জ্ঞানের আকরস্বরূপ বিভিন্ন ভাষা ও বিষয়ের পুঁথি সংগ্রহ ও পুঁথির বিবরণাত্মক সূচি (Descriptive Catalogue) প্রকাশের প্রকল্প তত্ত্বাবধান করতেন রাজেন্দ্রলাল। তাঁর মৃত্যুতে ১৮৯১ সালের জুলাই থেকে হরপ্রসাদ সেই শূন্য পদে ‘Director of the Operations in Search of Sanskrit Manuscripts’-নিযুক্ত হন।

প্রাচীন সংস্কৃত ভাষা ও সাহিত্যের পরিচয় উদ্ধারে হরপ্রসাদের অবদান দৃষ্টান্তমূলক। তিনি প্রায় দশ হাজার পুঁথির বিবরণাত্মক সূচি প্রণয়ন করেন, যা এগারো খন্ডে প্রকাশিত হয়। রাজস্থান অঞ্চল থেকে তিনি ভাট ও চারণদের পুঁথি সংগ্রহ করেন। সংস্কৃত পুঁথি সন্ধানের সূত্রেই তাঁর আগ্রহে প্রাচীন বাংলা পুঁথি সংগ্রহের কাজ শুরু হয় এবং এ বিষয়ে তাঁকে সাহায্য করেন দীনেশচন্দ্র সেন এবং  মুনশি আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ। এশিয়াটিক সোসাইটির গবেষণা প্রকল্পের মধ্যে হরপ্রসাদই প্রথম ‘বাংলা পুঁথি সন্ধান ও বিবরণ প্রকাশ’ কার্যক্রম অন্তর্ভুক্ত করেন।

১৯১৯ ও ১৯২০ সালে দুই বছর হরপ্রসাদ এশিয়াটিক সোসাইটির সভাপতির পদ এবং পরে আজীবন সহসভাপতির পদ অলঙ্কৃত করেন। সোসাইটিতে Descriptive Catalogue সংকলন-সম্পাদনা ছাড়া ভারতের সাহিত্য-সংস্কৃতি ও ইতিহাসের বহু তথ্য তিনি উদ্ধার ও প্রকাশ করেন যার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য  বৃহদ্ধর্মপুরাণ, সন্ধ্যাকর নন্দীর রামচরিতম্ ও আর্যদেবের চতুঃশতিকা।

১৮৮৫ সালে হরপ্রসাদের সহযোগিতায় রমেশচন্দ্র দত্ত ঋগ্বেদসংহিতা-র অনুবাদ প্রকাশ করেন। রমেশ দত্তের প্রভাবে হরপ্রসাদ অর্থনীতি বিষয়ক ইতিহাসেও আগ্রহী হন এবং পাঁচটি প্রবন্ধ রচনা করেন, যার মধ্যে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের বিরুদ্ধে লেখা ‘নূতন খাজানা আইন সম্বন্ধে কলিকাতা রিভিউর মত’ শীর্ষক প্রবন্ধটি সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ। প্রবন্ধটি ১২৮৭ বঙ্গাব্দের বঙ্গদর্শন কার্তিক সংখ্যায় প্রকাশিত হয়।

এশিয়াটিক সোসাইটির জন্য পুঁথি সন্ধানের কাজ করতে গিয়ে হরপ্রসাদ বাংলা ভাষা-সাহিত্য ও সংস্কৃতির উদ্ভব ও বিকাশের পর্ব-পর্বান্তর কালানুক্রম অনুযায়ী স্পষ্ট করে তোলার লক্ষ্যে তথ্য সংগ্রহ, বিশ্লেষণ ও দেশের বিদ্বৎসমাজের কাছে তা উপস্থাপনের জন্য গভীরভাবে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। অনুসন্ধিৎসু হরপ্রসাদ প্রাচীন বাংলার পুঁথির খোঁজে চারবার নেপাল যান ১৮৯৭, ১৮৯৮, ১৯০৭ এবং ১৯২২ সালে। ১৯০৭ সালে তাঁর হাতে আসে বাংলার প্রাচীনতম কবিতা-সংগ্রহ চর্যাগীতির পুঁথি। দীর্ঘ ৭/৮ বৎসর পুঁথির রচনাগুলি গবেষণা করে তিনি আবিষ্কার করেন যে, গানগুলির ভাষা প্রাচীন বাংলা। ১৯১৬ সালে হাজার বছরের পুরাণ বাঙ্গালা ভাষায় বৌদ্ধগান ও দোহা গ্রন্থে দুটি দোহা কোষ ও ডাকর্ণব পুঁথির সঙ্গে চর্য্যাচর্য্যবিনিশ্চয় পুঁথি হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর সম্পাদনায় বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ থেকে প্রকাশিত হয়। চর্য্যাচর্য্যবিনিশ্চয় বা চর্যাগানের সংকলনটি আবিষ্কার ও সম্পাদনা বাংলাভাষা ও সাহিত্যের গবেষণায় তাঁর শ্রেষ্ঠ কীর্তি।

এশিয়াটিক সোসাইটির সংগঠন ও পরিচালনায় ইংরেজ রাজপুরুষদের দৃঢ় নিয়ন্ত্রণ ছিল। বাঙালি মনস্বী ও সাহিত্যসেবীদের আকাঙ্ক্ষা ছিল বাংলার নিজস্ব একাডেমি গড়ে তোলা। এই আকাঙ্ক্ষা বাস্তবে রূপ পায় ১৩০০ বঙ্গাব্দে ‘বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ’ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে। শতাধিক বৎসরের প্রাচীন এই প্রতিষ্ঠানের দৃঢ় ভিত্তি রচনায় ও গৌরবোজ্জ্বল করার একটি পর্বে হরপ্রসাদ প্রায় সর্বময় কর্তৃত্বে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তিনি সাহিত্য পরিষদের সহ-সভাপতি এবং বিভিন্ন পর্যায়ে ১২ বৎসর সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর অভিভাবকত্বে বাংলা ভাষা-সাহিত্য নিয়ে বহুমুখী গবেষণা, পরিষদ-পত্রিকার মান উন্নয়ন, আধুনিক পদ্ধতি অনুযায়ী দুর্লভ প্রাচীন গ্রন্থের সম্পাদনা ও প্রকাশ, ব্যাপকভাবে বাংলা পুঁথি সংগ্রহের আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাঙালির এই নিজস্ব সংস্কৃতিকেন্দ্র পূর্ণ বিকাশ লাভ করে।

হরপ্রসাদ বাঙালির আত্মপরিচয় উদ্ধারে ব্রতী হয়ে নিজের আবিষ্কৃত তথ্যের ভিত্তিতে স্থির সিদ্ধান্ত করেন, বাংলার জনবৃত্তে আর্যের মাত্রা বহুলাংশে কম, দেশীয় মাত্রা অনেক বেশি। আর্যপ্রভাব, ব্রাহ্মণ্যপ্রভাব কখনোই বাংলায় সর্বাত্মক হয় নি। বরং বাঙালি সমাজকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছিল বৌদ্ধধর্ম। মুসলমান আধিপত্যের আগে ব্রাহ্মণ্য-র চেয়ে মহাযান বৌদ্ধধর্মের বিবর্তিত রূপ বজ্রযান-সহজযান বাংলার লোকসমাজে প্রবল ছিল। এসব লৌকিক ধর্ম-দর্শনের আশ্রয়ে গড়ে উঠেছিল এক সমৃদ্ধ বাংলা সাহিত্য যার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত চর্যাগীতি।

হরপ্রসাদের লেখক জীবনের বিস্তার প্রায় ৫৫ বছর। তাঁর সাহিত্য-জীবন বঙ্কিমযুগ থেকে রবীন্দ্রযুগ অবধি প্রসারিত। একটা সময়ের পরে বঙ্কিমচন্দ্রের সাহিত্যাদর্শ থেকে হরপ্রসাদ সরে আসেন। বঙ্কিমচন্দ্র সাহিত্যকে ধর্মপ্রচারের মাধ্যম করে তোলায় হরপ্রসাদ সরাসরি আপত্তি জানান। সংস্কৃত সাহিত্য, বিশেষভাবে কালিদাসের কাব্য-নাটকের মূল্যায়নে তাঁর এই আধুনিক সাহিত্যরুচির যথার্থ পরিচয় মেলে।

জীবনে হরপ্রসাদ বহু বিদ্যাপ্রতিষ্ঠানের সম্মাননা পেয়েছেন, যার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য- ১৮৮৮ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আজীবন ফেলো মনোনয়ন; ১৮৯৮ সালে সরকারের দেওয়া সম্মান ‘মহামহোপাধ্যায়’ উপাধি (মহারানী ভিক্টোরিয়ার ৬০তম রাজ্যাঙ্কে প্রবর্তিত); ১৯১১ সালে ‘সি.আই.ই’ উপাধি; ১৯২১ সালে ইংল্যান্ডের রয়্যাল এশিয়াটিক সোসাইটির অনারারি মেম্বার মনোনয়ন; ১৯২৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনারারি ডি.লিট এবং ১৯২৮ সালে পঞ্চম ওরিয়েন্টাল কনফারেন্সের (লাহোর) মূল সভাপতি। ১৯৩১ সালের ১৭ নভেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়।  [সত্যজিৎ চৌধুরী]