ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার


ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার  দেশের প্রাচীনতম এবং সর্ববহৎ কারাগার। মুগল সুবাদার ইব্রাহিম খান ঢাকায় বর্তমান চকবাজারে একটি দুর্গ নির্মাণ করেন। পরবর্তী সময়ে দুর্গটি ঢাকার নায়েব নাজিমের আবাসস্থল ছিল।  ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আমলে ১৭৮৮ সালে দুর্গের অভ্যন্তরে একটি ক্রিমিনাল ওয়ার্ড নির্মাণ করা হয় এবং শেষ পর্যন্ত দুর্গটিকে কারাগারে রূপান্তর করা হয়। আঠার শতকের শেষদিকে ঢাকা কারাগারে দশটি ওয়ার্ড ছিল এবং সে সময়ে গড়ে ৫০০ থেকে ৫৫০ জন বন্দি সেখানে অবস্থান করত। প্রথমদিকে একজন বন্দির খাদ্য সরবরাহ বাবদ দৈনিক বরাদ্দ ছিল দু’ পয়সা। ১৭৯০ সালে তা বাড়িয়ে এক আনা করা হয়। পরবর্তী সময়ে কারাগারটির ব্যাপক সম্প্রসারণ করা হয়। এটিই বর্তমানে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার। বেঙ্গল জেল কোডে যে কয়টি কারাগারের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তার মধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার অন্যতম। প্রাচীনতম নিদর্শন হিসেবে এবং বন্দি সংখ্যার আধিক্য বিবেচনায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কারাগার।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ভূমির পরিমাণ ৩৬.৭৬ একর। এর মধ্যে পেরিমিটার ওয়ালের ভেতরে অর্থাৎ কারা অভ্যন্তরে জমির পরিমাণ ১৭.৫৫ একর, পেরিমিটার ওয়ালের বাইরে ১৯.২১ একর। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ওয়ার্ড ৪৮টি, সেল ভবন ১২ টি, সেলের কক্ষ ২৩৩ টি, রান্নাঘর ৫টি, ওয়ার্ক সেড ৬টি, মেরামত প্রশিক্ষণ শেড ৪টি, কারা বেকারি ১টি, ডে-কেয়ার সেন্টার ১টি ও মাল্টিপারপাস শেড আছে ১টি। তাছাড়া বন্দিদের সাক্ষাতের জন্য একটি দ্বিতল ভবন ও প্রধান ফটক সংলগ্ন অফিস ভবন রয়েছে।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে একজন সিনিয়র জেল সুপার, একজন ডেপুটি জেল সুপার, একজন জেলার, আট জন ডেপুটি জেলার, তিন জন সহকারি সার্জন, দুজন ফার্মাসিস্ট, একজন উচ্চমান সহকারি, দশ জন কারা সহকারি, তিন জন জ্যেষ্ঠ প্রধান কারারক্ষী, ত্রিশ জন প্রধান কারারক্ষী, একজন মেট্রন, ৭০৩ জন কারারক্ষীসহ সর্বমোট ৭৮৩ জন কর্মকর্তাকর্মচারী কর্মরত আছেন।

কারাগারে আগত বন্দিরা মূলত হাজতি ও কয়েদি দুই ভাগে বিভক্ত। বন্দিদের ব্যবস্থাপনার সুবিধার্থে সিভিল বন্দি, বিচারাধীন বন্দি, মহিলা বন্দি, ২১ বছরের কম বয়স্ক পুরুষ বন্দি, বয়ঃসন্ধিতে উপনীত হয়নি এমন পুরুষ বন্দি এবং সাজাপ্রাপ্ত পুরুষ বন্দি হিসেবে ছয় ভাগে বিভক্ত করে কারাগারে আটক রাখা হয়। তবে বিভাজনকৃত কোন বন্দি কোন ওয়ার্ডে অবস্থান করবে তা কর্তৃপক্ষ নির্ধারণ করেন।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারটি মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত ৮ জন পুরুষ, ডিটেনশন প্রাপ্ত ৫ জন পুরুষ, বিচারাধীন ৫৭৪ জন পুরুষ ও ৮০ জন মহিলা, ১৮৬৮ জন পুরুষ ও ৫৪ জন মহিলা সাজা প্রাপ্ত এবং ১০০ জন অন্যান্য পুরুষ শ্রেণির অর্থাৎ সর্বমোট ২৬৮২ জন বন্দি ধারণক্ষমতা সম্পন্ন একটি কারাগার। কিন্তু বর্তমানে এ কারাগারে প্রতিদিন গড়ে ধারণ ক্ষমতার প্রায় চার গুণ বন্দি আটক থাকে।

বন্দিদের বিধি মোতাবেক সকালের নাস্তায় রুটি ও গুড়, দুপুর ও রাতে ভাত ও সবজি/মাছ/মাংস/ডাল দেয়া হয়। তবে সাধারণ শ্রেণির বন্দির চেয়ে ১ম ও ২য় শ্রেণির বন্দিরা অপেক্ষাকৃত ভাল খাবার পেয়ে থাকে। অসুস্থ ব্যক্তিদের রোগের প্রকৃতি অনুযায়ী খাদ্য সরবরাহ করা হয়। বর্তমানে একজন কয়েদি প্রতিদিন আটা ১১৬.৬৪ গ্রাম, চাউল ২৯১.৬০ গ্রাম, মসুরের ডাল ১৪৫.৮০ গ্রাম, আখের গুড় ১৪.৫৮ গ্রাম, সবজি ২৯১.৬০ গ্রাম, লবণ (ডায়েট) ৩৫.৫২ গ্রাম (সাধারণ-২৯.১৬ গ্রাম), পিয়াজ (ডায়েট) ৫.১২ গ্রাম (সাধারণ ৪.১০ গ্রাম), মরিচ (ডায়েট) ২.২৭ গ্রাম (সাধারণ-১.৮২ গ্রাম), হলুদ (ডায়েট) ১.১৩ গ্রাম (সাধারণ-০.৯১ গ্রাম), ধনিয়া (ডায়েট) ০.০৫৬ গ্রাম (সাধারণ ০.০৪৫ গ্রাম), ভোজ্য তেল (ডায়েট) ২২.৭৭ গ্রাম (সাধারণ-১৮.২২ গ্রাম), মাছ (ডায়েট) ৭২.৯০ গ্রাম (সাধারণ খাসির মাংস) পেয়ে থাকে। হাজতি আসামীর ক্ষেত্রে অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য একই পরিমাণ নির্ধারিত থাকলেও তাদের ক্ষেত্রে প্রতিদিন আটা ৮৭.৪৮ গ্রাম, চাউল ২৪৭.৮৬ গ্রাম ও খাসির মাংসের পরিবর্তে গরুর মাংস সরবরাহ করা হয়। প্রতি শুক্রবারে বন্দিদের কাপড়চোপড় পরিষ্কার করা ও আনুষঙ্গিক প্রয়োজন মিটানোর জন্য কয়েদিদের প্রত্যেককে ৩৪৯.৯২ গ্রাম জ্বালানি কাঠ, ১৪.৫৮ গ্রাম কাপড় কাচা সোডা, ১০.৯২ গ্রাম সরিষার তেল, ২৯.১৬ গ্রাম নারিকেল তেল (মহিলাদের জন্য), প্রতিমাসে ১টি সাবান (মহিলাদের জন্য) সরবরাহ করা হয়। তাছাড়া হাজতিদের ক্ষেত্রে জ্বালানি কাঠ, মহিলাদের জন্য নারিকেল তেল ও সাবানের পরিমাণ কয়েদিদের অনুরূপ হলেও তাদের (হাজতিদের) কাপড় কাচা সোডা ১০.৯২ গ্রাম এবং সরিষার তেল ৩.৬৪ গ্রাম সরবরাহ করা হয়ে থাকে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের চিকিৎসার জন্য ডাক্তার, ফার্মাসিস্ট ও নার্স নিয়োজিত আছেন। কারা অভ্যন্তরে বন্দিদের চিকিৎসা ও ঔষধ সরবরাহ করা হয়। কারা অভ্যন্তরে ১টি হাসপাতাল আছে। বন্দিরা কর্তৃপক্ষের নিকট জমাকৃত ব্যক্তিগত অর্থের বিনিময়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ক্যান্টিন হতে ফলমূল, টয়লেট্রিজ, শুকনা খাবার, চা, সিঙ্গারা, সামুচা, পুরি ইত্যাদি খরিদ করতে পারে।

প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা কার্যক্রম  বন্দিদের পুনর্বাসন ও দক্ষ জনশক্তি হিসেবে সমাজে ফিরিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেষণা মূলক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালু আছে। এ প্রশিক্ষণের আওতায় মহিলা বন্দিদের জন্য সূচিশৈলী, টেইলারিং, কাঁথা সেলাই, কাগজের প্যাকেট, বাজারের ব্যাগ, খাম তৈরি এবং পুরুষ বন্দিদের জন্য ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতি মেরামত, কাগজের প্যাকেট তৈরি, ব্যানার-সাইনবোর্ড লিখন, মৎস্য চাষ ইত্যাদি বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে। এ কার্যক্রমের মাধ্যমে অর্জিত লভ্যাংশ সংশ্লিষ্ট বন্দির ব্যক্তিগত নামে জমা থাকে এবং এ অর্থের মাধ্যমে বন্দিরা কারা অভ্যন্তরে ক্যান্টিন সুবিধার পাশাপাশি ভবিষ্যতের জন্য নিজ একাউন্টে অর্থ জমা রাখতে পারে।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে সকল বয়সী নিরক্ষর বন্দিদের অক্ষরজ্ঞান ও ধর্মীয় শিক্ষা প্রদানের কার্যক্রম চালু আছে। একজন কারা শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে বন্দিদের অক্ষরজ্ঞান এবং কারা মসজিদের ইমামের মাধ্যমে বন্দিদের ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হয়।

ডে-কেয়ার সেন্টার ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ৩০ জুন ২০০৪ সালে ডে-কেয়ার সেন্টারের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ কেন্দ্রটিতে আসন সংখ্যা ১০০। এখানে শিশুদের সুষম খাদ্য পরিবেশন করা হয়। এ বাবদ যাবতীয় খরচ কারাগারের বাজেট হতে নির্বাহ করা হয়। প্লে, নার্সারি ও প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা শ্রেণিতে বিভক্ত করে শিশুদের ধর্মীয় ও প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া হয়। এ কেন্দ্রটিতে শিশুদের খেলাধুলার জন্য ক্যারম, বল, লুডু, ব্যাডমিন্টন, দোলনা, পুতুল সহ বিভিন্ন প্রকার খেলনা সামগ্রী রয়েছে। তাছাড়া শিশুদের চিত্ত বিনোদনের জন্য রঙ্গিন  টেলিভিশন, ভিসিডি, কার্টুন, নাচ-গান, ছড়া বলা ও চিত্রাঙ্কনের ব্যবস্থা রয়েছে। একজন সমাজসেবা কর্মকর্তা ও একজন সহকারি সার্জন এখানে প্রেষণে নিয়োজিত রয়েছেন। তাছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দুজন মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর থেকে দুজন শিক্ষক, কারা অধিদপ্তর থেকে চারজন মহিলা কারারক্ষী, পাঁচজন আয়া ও চারজন সুইপার ডে-কেয়ার সেন্টারে নিয়োজিত আছেন।

গ্রন্থাগার ব্যবস্থা  ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে একটি গ্রন্থাগার আছে। উক্ত গ্রন্থাগারে ধর্মীয়, সাহিত্যসহ বিভিন্ন ধরণের বই আছে। বন্দিগণ এ গ্রন্থাগার হতে বই নিয়ে জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি সময় অতিবাহিত করতে পারে।

দরবার পদ্ধতি  ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে  দরবার পদ্ধতি চালু আছে। দরবারের মাধ্যমে কারা প্রশাসনে সর্বস্তরের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হয়। এ কার্যক্রমের সময় কর্তৃপক্ষের নিকট কারাগারে চাকুরিরত কর্মকর্তাকর্মচারী নিজেদের সুবিধা-অসুবিধা বা অভাব-অভিযোগ তুলে ধরেন। কারা বিভাগের দুর্নীতি দমনেও দরবার পদ্ধতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কেন্দ্রীয় কারাগার হিসেবে সংশ্লিষ্ট ডিআইজি দরবার চলাকালে অভিযোগের শুনানী গ্রহণ করেন।

ফাঁসির মঞ্চ  মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামীদের দন্ড কার্যকর করার জন্য ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ১টি ফাঁসির মঞ্চ আছে। বিধি মোতাবেক একজন ১ম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট, ডাক্তার, জেলসুপারসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়ে থাকে। মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার দিন-ক্ষণ নির্ধারণের পর দন্ডকার্যকর করার পূর্বে ডাক্তার দ্বারা দন্ডিত ব্যাক্তির শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করা হয়। তারপর জল্লাদ তাকে ফাঁসির মঞ্চে নিয়ে যায়।

বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার কারা স্মৃতি জাদুঘর  ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দীর্ঘদিন কারাবন্দি ছিলেন। তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের দেওয়ানি সেলকে বঙ্গবন্ধু কারা স্মৃতি জাদুঘরে রূপান্তর করা হয়। সেলটির বাইরে পর্যাপ্ত জায়গা থাকলেও সেলের ভেতরে তেমন জায়গা নেই। জাদুঘরটিতে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহার্য জিনিসপত্র সংরক্ষণ করা হয়েছে। এসব জিনিসের গায়ে লেবেল দিয়ে ব্যবহার করার সময় উল্লেখ রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জেল জীবনের ইতিহাস জানতে এখানে গড়ে তোলা হয়েছে একটি গ্রন্থাগার। সেলের সামনে খোলা জায়গাটিতে বসানো হয়েছে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি। বঙ্গবন্ধু কারা স্মৃতি জাদুঘরে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহার্য জিনিসপত্রের মধ্যে আছে নামাজের চৌকি, জায়নামাজ, অজু করার ঘটি, ময়না পাখির খাঁচা, বিছানাপত্র, খাবারের টিনের থালা, হাঁড়ি-পাতিল, কাপ-পিরিচ, পড়াশোনার ছোট্ট কাঠের টেবিল, কাঠের চেয়ার, কিছু পুরনো কাপড়চোপড় এবং চুলা। জাদুঘর প্রাঙ্গনে ৬টি স্তম্ভে বঙ্গবন্ধু কর্তৃক উত্থাপিত ছয় দফাকে তুলে ধরা হয়েছে। জাদুঘর প্রাঙ্গনে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে লাগানো একটি কামিনী ফুল গাছ ও একটি সফেদা গাছ। বঙ্গবন্ধুর স্নানাগার ও রান্নাঘরটিও সংরক্ষণ করে এ জাদুঘরের অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতার কারা স্মৃতি জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। জাতীয় চার নেতা  সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমদ,  ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ মনসুর আলী ও  আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কামারুজ্জামান ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের যে সেলে নির্মমভাবে হত্যার শিকার হন, সে সেলে এ স্মৃতি জাদুঘর স্থাপন করা হয়। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ সালের ৯ মে বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার স্মৃতি জাদুঘরের উদ্বোধন করেন।

পুরনো ঢাকার ব্যস্ততা, ভিড়, কারাগারের নিরাপত্তা ও অধিক সংখ্যক বন্দির অবস্থান বিবেচনায় ইতোমধ্যে গাজীপুর জেলার কাশিমপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট-১ ও পার্ট-২ তৈরি করা হয়েছে। কারাবিধি মতে একজন বন্দি ঘুমানোর জন্য ওয়ার্ডে ৩৬ বর্গফুট জায়গা পাবে। কিন্তু ২৬৮২ জন বন্দি ধারণক্ষমতা সম্পন্ন এ কারাগারে প্রতিদিন গড়ে প্রায় দশ হাজার বন্দি আটক থাকায় তাদের দাঁড়িয়ে, বসে বা পালাক্রমে ঘুমিয়ে রাত কাটাতে হয়। চাপ কমাতে ঢাকার অদূরে কেরানীগঞ্জে কারাগারটি স্থানান্তরের কাজ শুরু হয়েছে।  [এ.এস.এম জহুরুল ইসলাম]

আরও দেখুন কারাগার