সৈয়দ সুলতান


সৈয়দ সুলতান (আনু. ১৫৫০-১৬৪৮)  মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যের কবি। তাঁর বাসস্থান ছিল চট্টগ্রামের চক্রশালা চাকলার অধীন পটিয়া গ্রাম। চট্টগ্রামের লস্করপুর তথা পরাগলপুরে কবি সাময়িকভাবে বসবাস করেন। তাঁর পীরের নাম সৈয়দ হাসান; পরে তিনি নিজেও পীরের মর্যাদা লাভ করেন। মক্তুল হুসেন কাব্যের রচয়িতা মুহম্মদ খান ছিলেন তাঁর শিষ্য।

কাহিনীকাব্য ও শাস্ত্রকাব্য রচয়িতা হিসেবে সৈয়দ সুলতানের খ্যাতি ছিল। তিনি একাধিক গ্রন্থ রচনা করেন। তাঁর  নবীবংশ, জ্ঞানপ্রদীপ, জ্ঞানচৌতিশা ও জয়কুম রাজার লড়াই  উল্লেখযোগ্য। তিনি কিছু পদও রচনা করেন। জ্ঞানচৌতিশা মূলত জ্ঞানপ্রদীপেরই সংক্ষিপ্ত রূপ। উভয়ই যোগ ও সুফিতত্ত্বের কাব্য। জয়কুম রাজার লড়াই যুদ্ধবিষয়ক কাহিনীকাব্য।

কবির সর্ববৃহৎ ও শ্রেষ্ঠ রচনা নবীবংশ কাব্য। ফারসি কাসাসুল আম্বিয়া অনুসরণে এটি রচিত। এতে সৃষ্টির সূচনা থেকে  হযরত মুহাম্মাদ (স.) পর্যন্ত সকল নবী-রসুলের কর্ম ও ধর্মজীবনের বিস্তৃত বর্ণনা আছে। এছাড়া বিভিন্ন পৌরাণিক দেবদেবীকেও নবীদের ধারাভুক্ত করা হয়েছে। তবে ইসলামের গৌরব ও মাহাত্ম্য প্রতিষ্ঠা ও প্রচারই এতে প্রাধান্য পেয়েছে। বিষয়-বৈচিত্র্য ও বিশালতার বিচারে নবীবংশ মহাকাব্যের সমতুল্য।

নবীবংশের দ্বিতীয় খন্ড রসুলচরিত একখানা পৃথক গ্রন্থ হিসেবে স্বীকৃত। কাব্যের শুরুতে আছে সৃষ্টিতত্ত্বের কথা। পরে আবদুল­াহর জন্ম, পরিণয়, আমিনার গর্ভধারণ, আবু জেহেল কর্তৃক তাঁর গর্ভপাতের চেষ্টা, হযরত মুহাম্মদের (স.) জন্ম এবং পরের জীবনের ঘটনাবলি বর্ণিত হয়েছে। কাব্যটিতে ইতিহাসের সঙ্গে কল্পনার মিশ্রণ আছে; বিশেষত, বাংলার সমাজ ও সংস্কৃতির প্রভাব পড়েছে। জৈনুদ্দীনের  রসুলবিজয় (১৫শ শতক) এ ধারার প্রথম কাব্য; পরেই রসুলচরিতের স্থান। মধ্যযুগে রচিত হযরত মুহাম্মদের (স.) পূর্ণাঙ্গ জীবনী হিসেবে রসুলচরিতই শ্রেষ্ঠ কাব্য। শব-ই মেরাজ ও ওফাত-ই রসুল স্বতন্ত্র কাব্য হিসেবে প্রচারিত হলেও তা রসুলচরিতেরই অংশ।

বাংলা ভাষার ওপর সৈয়দ সুলতানের বিশেষ দখল ছিল। তিনি সুফিতত্ত্ব ও ইসলামি ঐতিহ্যের অনেক দুরূহ বিষয় সহজবোধ্যভাবে প্রকাশ করতে সক্ষম হন। রসুলচরিতসহ (১৯৭৮) তাঁর রচনাবলি  আহমদ শরীফ কর্তৃক সম্পাদিত হয়ে  বাংলা একাডেমী থেকে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত  হয়।  [খন্দকার মুজাম্মিল হক]