শাস্ত্রী, শরচ্চন্দ্র


শাস্ত্রী, শরচ্চন্দ্র (১৮৬২-১৯১৬)  সংস্কৃত পন্ডিত, কবি, দর্শনশাস্ত্রজ্ঞ। বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার বাঁধুলি-খালকুলা গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা পীতাম্বর বিদ্যাবাগীশ ছিলেন একজন সংস্কৃত পন্ডিত।

শরচ্চন্দ্র বিভিন্ন চতুষ্পাঠী ও বেনারস কলেজে কাব্য, ব্যাকরণ, অলঙ্কার, ন্যায়, জ্যোতিষ প্রভৃতি শাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। কলকাতার  সংস্কৃত কলেজ থেকে উপাধি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর তাঁকে ‘শাস্ত্রী’ উপাধি প্রদান করা হয়।

রাজশাহীর এক ইংরেজি বিদ্যালয়ে শিক্ষকতার মাধ্যমে শরচ্চন্দ্রের কর্মজীবন শুরু হয়। পরে তিনি কলকাতার সিটি কলেজিয়েট স্কুল, দার্জিলিং হাই স্কুল, ব্রাহ্ম বালিকা শিক্ষালয় এবং কলকাতা ট্রেনিং স্কুলে শিক্ষকতা করেন।

শরচ্চন্দ্র সংস্কৃত ও বাংলা ভাষায় কবিতা রচনায় পারদর্শী ছিলেন। তিনি অনেক মূল্যবান প্রবন্ধও রচনা করেন। সেগুলি তখনকার বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তাঁর রচিত ও সম্পাদিত কয়েকটি উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হলো: নীতিচম্পূ, শঙ্করাচার্যচরিত, রামানুজচরিত, দক্ষিণাপথ ভ্রমণ ইত্যাদি। রায়বাহাদুর শরচ্চন্দ্র দাশের সহকারিরূপে নাগার্জুনের মাধ্যমিকসূত্র ও করুণা পুন্ডরীককৃত কতিপয় গ্রন্থের তৎকৃত সম্পাদনা বিশেষ প্রশংসা অর্জন করে। সরকারি উদ্যোগে তিববতি-সংস্কৃত-ইংরেজি  অভিধান রচনায়ও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। কলকাতার তৎকালীন অ্যাটর্নি গণেশচন্দ্র চন্দ, ঠাকুরদাস বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ মনীষী তাঁর নিকট সংস্কৃত শিখেছেন। জ্যোতিষার্ণব বিশ্বম্ভর এবং মহামহোপাধ্যায়  সতীশচন্দ্র বিদ্যাভূষণ ছিলেন তাঁর দুই সহোদর।  [সত্যনারায়ণ চক্রবর্তী]