পূর্ব পাকিস্তান সাহিত্য সংসদ


পূর্ব পাকিস্তান সাহিত্য সংসদ  বাঙালি মুসলমানদের একটি সাহিত্য-সংস্কৃতিমূলক সংগঠন। ১৯৪০ সালে অল-ইন্ডিয়া মুসলিম লীগের লাহোর অধিবেশনে পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠনের প্রস্তাব গৃহীত হলে ভারতের রাজনীতি নতুন দিকে মোড় নেয় এবং মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চল নিয়ে পাকিস্তান আন্দোলন দানা বেঁধে ওঠে। এর প্রভাব সাংস্কৃতিক জীবনেও পড়ে। এই পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৪২ সালে কলকাতায়  পূর্ব পাকিস্তান রেনেসাঁ সোসাইটি এবং ঢাকায় পূর্ব পাকিস্তান সাহিত্য সংসদ গঠিত হয়। উভয় সংগঠনের পরিচালনায় মুসলিম মধ্যবিত্ত বিদ্বজ্জন নেতৃত্ব দেন।

প্রতিষ্ঠা-বছরে সাহিত্য সংসদের সভাপতি ছিলেন সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন এবং সম্পাদক সৈয়দ আলী আহসান। মুসলিম জাতীয়তাবাদের আদর্শ প্রচার ছিল এর প্রধান উদ্দেশ্য। মুসলমানদের সাহিত্যে ইসলামের আদর্শ ও ঐতিহ্যের প্রতিফলন থাকবে এরূপ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে সাহিত্য সংসদ  পুথি সাহিত্য ও গ্রামীণ সাহিত্যের উপাদান নিয়ে  বাংলা সাহিত্য রচনা, আরবি-ফারসি-উর্দু শব্দের অধিক ব্যবহার ইত্যাদি বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করে।

সাহিত্য সংসদের মুখপত্র ছিল পাক্ষিক পাকিস্তান। এর সম্পাদক ছিলেন মুসলিম লীগের ছাত্রকর্মী  নাজীর আহমদ। রাজনৈতিক স্বাতন্ত্র্যের সঙ্গে সাংস্কৃতিক বিচ্ছিন্নতার কথাও পত্রিকার মাধ্যমে প্রকাশ করা হতো। ১৯৪৪ সালে সংসদের পক্ষ থেকে কবি কায়কোবাদকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। তিনি বিভিন্ন রচনায় মুসলমানদের ঐতিহ্য ও জাতীয় গৌরবকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরেন। পাকিস্তান গঠনের প্রস্ত্ততিপর্বে ভবিষ্যৎ রাষ্ট্র, তার সমাজ ও সংস্কৃতিবিষয়ক চিন্তা-ভাবনা সংসদের কর্মকান্ডে প্রতিফলিত হয়েছে। বিভাগপূর্ব কাল (১৯৪৭) পর্যন্ত সাহিত্য সংসদ সক্রিয় ছিল; বিভাগোত্তর কালে  বাংলা ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে পাকিস্তান রাষ্ট্র সম্পর্কে পূর্ববাংলার মানুষের মোহভঙ্গ হলে সাহিত্য সংসদের কর্মকান্ড হ্রাস পায় এবং অচিরেই তা বিলুপ্ত হয়ে যায়।  [ওয়াকিল আহমদ]