নবগ্রাম মসজিদ


নবগ্রাম মসজিদ  সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ থানায় অবস্থিত প্রাক্-মুগল যুগের একটি সুদৃশ্য মসজিদ। চাটমোহর রেলস্টেশন থেকে প্রায় ২০.৮ কিলোমিটার উত্তর-পূর্ব দিকে মসজিদটির অবস্থান। ১৯৩৭ সালের অল্প কিছুকাল আগে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া এর ননীগোপাল মজুমদার নবগ্রাম গ্রামের একটি মসজিদে কালো পাথরে আরবি তুগরা লিপিতে উৎকীর্ণ একটি শিলালিপি বিচ্ছিন্ন অবস্থায় দেখতে পান। তিনি এর ছাপচিত্র গ্রহণ করে ভারত সরকারের শিলালিপি বিশেষজ্ঞ শামসুদ্দীন আহমদের কাছে পাঠিয়ে দেন। শামসুদ্দীন আহমদ সেটির পাঠোদ্ধার ও সম্পাদনা করে ১৯৩৭-৩৮ সালে এপিগ্রাফিয়া ইন্দো-মোসলেমিকাতে প্রকাশ করেন। লিপিটিতে উল্লিখিত নির্মাতার নাম পরবর্তী সময়ে আবদুল করিম সঠিকভাবে পাঠোদ্ধার করেছেন। যেহেতু শিলালিপিটি তার মূল অবস্থান থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় একটি মসজিদের অভ্যন্তরে পাওয়া গেছে এবং নিকটবর্তী কয়েক মাইলের মধ্যে অন্য কোনো প্রাচীন মসজিদের অস্তিত্ব নেই সেহেতু এটিকে সুলতানি আমলে নির্মিত উক্ত মসজিদের লিপি বলে ধরে নেওয়া হয়। লিপি অনুসারে সুলতান আলাউদ্দীন হোসেন শাহের পুত্র সুলতান নাসিরুদ্দীন আবুল মুজাফফর নুসরত শাহের রাজত্বকালে ৯৩২ হিজরির ৪ রজব/১৫২৬ খ্রিস্টাব্দের ২১ এপ্রিল মসজিদটি নির্মিত হয়। লক্ষণীয়, লিপিটিতে মসজিদের নির্মাতাকে ‘মীর বহর মনোয়ার আনার (বা মুনুরাণা) পুত্র আজিয়াল মিয়া জংদার’ (যোদ্ধা) হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ইট-নির্মিত এক গমবুজের এ বর্গাকার মসজিদের প্রতি বাহুর অভ্যন্তরীণ পরিমাপ ৭.২ মিটার। এর চারকোণে রয়েছে অষ্টকোণাকার চারটি পার্শ্ববুরুজ। ছাuঁচ ঢালা আলঙ্করিক নকশার ব্যান্ড (Band) দিয়ে বুরুজগুলিকে তিন অংশে বিভক্ত করা হয়েছে। মসজিদের উত্তর, দক্ষিণ ও পূর্ব দিকে রয়েছে একটি করে খিলানকৃত প্রবেশপথ। পরিকল্পনার দিক থেকে পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলার পান্ডুয়াতে অবস্থিত একলাখী সমাধিসৌধটির সঙ্গে ইমারতটির বেশ সাদৃশ্য রয়েছে। এছাড়া গৌড়ের নগরদুর্গের গুমতি গেট এবং লট্টন মসজিদ এর সঙ্গে পরিকল্পনা ও অলঙ্করণের বিবেচনায় এর তুলনা করা যেতে পারে। মসজিদটির পূর্বদিকের ফাসাদ গভীর কুলুঙ্গি আর অগভীর চতুষ্কোণাকার প্যানেল-এর রুচিসম্মত বিন্যাসে অলঙ্ককৃত। এ প্যানেল আর কুলুঙ্গিকে আরব্য নকশা (Arabesque) ও পোড়ামাটির অলঙ্করণ দ্বারা বৈশিষ্ট্যমন্ডিত করা হয়েছে। এ নকশাসমূহের মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হলো ঝুলন্ত শিকল-ঘণ্টার মোটিফ। সুলতানি স্থাপত্যরীতির বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী মসজিদের সছিদ্র প্রাচীর ও কার্নিস সামান্য বক্রাকার, এবং এরই ওপরে বসানো আছে অর্ধগোলাকার গম্বুজ। [নাজিমউদ্দিন আহমেদ]

গ্রন্থপঞ্জি  Shamsuddin Ahmed, Inscriptions of Bengal, Vol. IV, Rajshahi, 1960; AH Dani, Muslim Architecture in Bengal, Dhaka , 1961; Syed Mahmudul Hassan, Muslim Monuments of Bangladesh, Dhaka , 1971.