বেত

Mukbil (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ১৩:১০, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

বেত  Arecaceae (= palmae) গোত্রভুক্ত একজাতীয় লতানো বা সোজা বেয়ে ওঠা পাম। বেত গাছে শল্কযুক্ত ফল হতে দেখা যায়। এশিয়ার গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলের অধিকাংশ বনেই বেত জন্মে। বিষুবীয় আফ্রিকার আর্দ্র অঞ্চল থেকে ভারত, বাংলাদেশ, দক্ষিণ চীন, ফিজি পর্যন্ত এবং সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩০০ মিটার উচ্চতা পর্যন্ত এ বনগুলি ছড়িয়ে আছে। মালয়েশীয় ভাষায় বেতের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপগোত্রের নাম রতন (rattan) এবং বাংলাদেশেও অনেক এলাকায় তা রতন নামেই পরিচিত।

বেতের তৈরি সামগ্রী

বেত বাংলাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য বনজ সম্পদ। অনেকে বসতভিটার আশপাশেও বেত লাগায়। আসবাবপত্র তৈরি ও অন্যান্য কুটির শিল্পএ বেত ব্যাপকভাবে ব্যবহূত হয়। উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বাংলা থেকে বেত রপ্তানি হয়েছে। বেত ফল খাওয়া যায়। বিশ্বে ১৩টি গণের প্রায় ৬০০ প্রজাতির বেত রয়েছে। বাংলাদেশে আছে বেতের মাত্র ২টি গণ, Calamus এবং Daemonorops। শেষোক্ত গণের আছে একটি প্রজাতি D. jenkinsianus (গোলাব বেত বা গোল্লা বেত)। Calamus গণের ১০ প্রজাতির মধ্যে আছে: C. erectus (কদম বেত), C. flagellum, C. floribundus, C. guruba (জালি বেত), C. gracilis, C. latifolius (কোরাক বেত), C. longisetus (উদম বেত), C. tenuis (সাঁচি বেত), C. viminalis var. fasciculatus (বড় বেত), C. quinquenervius। সর্বমোট ১১ প্রজাতির মধ্যে C. flagellum, C. floribundus, C. gracilis, C. quinquenverius এখন আর সহজলভ্য নয়। এগুলি খুব কমে গেছে কিংবা তাদের উৎপাদন একেবারেই সীমিত হয়ে পড়েছে। বেত সাধারণত চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, পার্বত্য-চট্টগ্রাম ও সিলেটের পাহাড়ে জন্মায়। শালবনে বেত দুষ্প্রাপ্য, দৈবাৎ বনপ্রান্তে C. viminalis var. fasciculatus দেখা যায়। ম্যানগ্রোভ বনেও একই পরিস্থিতি, অপেক্ষাকৃত শুষ্ক অঞ্চলে C. tenuis জন্মে।

অঙ্গজ ও বীজ উভয় ধরনে বেতের বংশবিস্তার ঘটানো যায়। অঙ্গজ চাষে ঊর্ধ্বধাবক ব্যবহূত হয়। বীজ চাষে বীজতলায় চারা প্রস্ত্তত করে পরে অন্যত্র রোপণ করা হয়। বীজের শাঁস ফেলে দিয়ে বীজতলার বীজ বপন করলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই চারা গজায়। এসব চারা ০.৭৫-১ মিটার উঁচু হলে স্থানান্তর করতে হয়। ২-৩ বছরে বেত বড় ঝাড় হয়ে ওঠে, ৭-৮ বছরে তা কাটা যায়। চাষে বেশি যত্ন লাগে না। লাগানোর পর কিছুদিন প্রয়োজনবোধে সেচ ও সার দেওয়া যেতে পারে।

বেতশিল্প বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যময় কুটির শিল্প। গৃহস্থালিতে বেতের ব্যবহার বহুবিধ। গৃহ নির্মাণে যেমন বেতের প্রয়োজন, তেমনি শৌখিন সজ্জাতেও বেতের কদর রয়েছে। দেশের কোন কোন এলাকায় মহিলারা বেতের কাজে পুরুষদের চেয়ে বেশি দক্ষ। অনেক এলাকাতেই নারী-পুরুষ সবার জন্য বেতের আসবাবপত্র ও অন্যান্য সামগ্রী তৈরি রোজগারের একটি ভাল উপায়।

ভিন্ন ভিন্ন কাজে ভিন্ন ধরনের বেত ব্যবহূত হয়। বেতশিল্পে সাধারণত জালি ও গোল্লা বেত ব্যবহার করা হয়। প্রধানত বুনন ও বাঁধানোর কাজে বেত ব্যবহূত হয়। নকশার ধরন বুঝে সরু ও মোটা বেতের বিভিন্ন ধরনের অংশ তুলে নিতে হয়। জালি বেত দিয়ে চেয়ার, টেবিল, দোলনা, বাস্কেট, মহিলাদের ব্যাগ ও বিভিন্ন ধরনের ব্যবহারযোগ্য সামগ্রী তৈরি হয়। গোল্লা বেত ব্যবহার হয় নিত্য ব্যবহার্য আসবাবপত্র ও অন্যান্য সামগ্রী তৈরির কাঠামোতে। কাজের প্রকৃতির ওপর নির্ভর করে গোল্লা বেতকে লম্বালম্বিভাবে কয়েক টুকরায় কাটতে হয়।

সাধারণত ২/৩ বছর বয়সের ভাল আকৃতির বেত উন্নতমানের কাজে ব্যবহূত হয়। মাঝারি পাকা বেতের মধ্যে জলীয় পদার্থ কম ও কাজ করার সময় আঠালোভাব বেশি থাকে। বেশি পাকা বেত কাজ করার সময় ভেঙে যায়, কমবয়সী বেতের দ্রব্যাদি ফেটে ও কুঁচকে যায়, ঘুণে ধরে এবং তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়। বাংলাদেশে বেতকে প্রক্রিয়াজাত করা না হলে অল্পদিনেই তা বিবর্ণ হয়ে যায়। ঘুণে ধরা অথবা ছাতা পড়ার সম্ভাবনা থাকে। রঞ্জন সম্বন্ধে অজ্ঞতার কারণে উৎপাদিত বেতসামগ্রী নিম্নমানের হয়ে থাকে। পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ রঞ্জন প্রক্রিয়ার মানের ওপর নির্ভরশীল।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) একটি নকশা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে। এই কেন্দ্রের শিল্পীরা বেতের শিল্পকর্মে নতুন নকশা ও নমুনা উদ্ভাবন করার গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন। এই শিল্পে নিয়োজিত কারুশিল্পীদের সহায়তা করার জন্য নকশা কেন্দ্র বিনামূল্যে তাদের মধ্যে নতুন উদ্ভাবিত নকশা বা নমুনা বিতরণ করে থাকে।

বিসিকই প্রথম কারুশিল্পের ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও পুনরুজ্জীবন করার লক্ষ্যে কর্মসূচি গ্রহণ করে। এই কর্মসূচির আওতায় বিসিক দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী কারুপল্লী খুঁজে বের করেছে এবং কারুশিল্পের উন্নয়ন ও বিকাশের জন্য বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ, বিপণন ব্যবস্থা, উৎপাদন উন্নয়ন ও উদ্ভাবন, যথাযথ প্রযুক্তি এবং পণ্যের গুণগত মান উন্নয়নে সহায়তা প্রদান করছে। বিসিকের সূত্রমতে, ২৯টি নির্বাচিত কারুপণ্যের সর্বমোট ৪,২২৬টি কারুপল্লীর মধ্যে বাঁশ ও বেতের জিনিসের কারুপল্লীর সংখ্যা ১,১৫৪টি। এটি কারুপণ্যের সর্ববৃহৎ উপখাত। ২০০০ সালে এতে প্রায় ১,৩৫,০০০ জন লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে।

সারা বিশ্বে, বিশেষত এশিয়া ও ইউরোপে বেতের তৈরি সামগ্রীর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশ বেতের তৈরি বিভিন্ন ধরনের উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সামগ্রী রাশিয়া, জার্মানি, সিঙ্গাপুর এবং মধ্যপ্রাচ্যে রপ্তানি করে থাকে। জার্মানি, কানাডা, জাপান ও অন্যান্য দেশে অনুষ্ঠিত বেশ কতগুলি আন্তর্জাতিক কারুশিল্প মেলায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ বেতশিল্পে বিশেষ সুনাম অর্জন করেছে। ১৯৯৯-২০০০ সালে বাংলাদেশ বেত ও বাঁশজাত পণ্য রপ্তানি করে ২৫ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা অর্জন করেছে।

কাঠ ও বাঁশের পরই বেত বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বনজ সম্পদ। তবে এর উৎপাদন ক্রমাগত কমে আসছে। বাংলাদেশ ১৯৮৫-৮৬ সালে ৩৯,৩৮,০০০ ফুট এবং ১৯৯৩-৯৪ সালে ২৯,৩৮,০০০ ফুট বেত উৎপাদন করেছে। সম্প্রতি বনবিভাগ প্রাকৃতিক ও কৃত্রিম বনে বেত চাষ শুরু করেছে।  [এম.কে আলম]