আসা

Mukbil (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ১১:৫৭, ১৯ জুন ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)
সাতপীরের আসা (বামে) গাজীর আসা (ডানে)

আসা আক্ষরিক অর্থে দন্ড বা লাঠি। বিশেষ অর্থে এটি লোকধর্ম ও লোকসমাজে ব্যবহূত হতে দেখা যায়। পাঁচপায়া এবং তার ওপর দুটি পরস্পর সংলগ্ন দন্ডকে বলা হয় গাজীর আসা।

একে পাঁচপীরের প্রতীকও বলা হয়ে থাকে। গাজীর গান গাওয়ার সময় মাটিতে প্রোথিত আসাকে গাজীর প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। মানতকারী এ আসার পাদমূলে একটি থালায় চাল-ডাল ও টাকা-পয়সা রেখে সালাম করে। পৌষ-সংক্রান্তিতে শির্নী উপলক্ষে রাখাল ও চাষীর ছেলেরা মাসব্যাপী সোনারায় পীর কিংবা মানিকপীরের প্রতীক হিসেবে আসা বা লাঠি হাতে বাড়ি বাড়ি যায় এবং গান গেয়ে ও ছড়া কেটে চাল-ডাল মাগন করে। পীর-ফকির ও সাধু-সন্ন্যাসীর ব্যবহূত লাঠিকেও আসা নামে অভিহিত করা হয়। কুরআন শরিফে আছে, হযরত মূসা (আ.) নীলনদ পার হওয়ার জন্য তাঁর হাতের আসা দিয়ে পথ রচনা করেছিলেন। সে আসাটি অলৌকিক গুণসম্পন্ন ছিল বলে মনে করা হয়। [মোমেন চৌধুরী]