গুপ্ত, রামপ্রাণ

NasirkhanBot (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ০২:২০, ৫ মে ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ (Added Ennglish article link)
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

গুপ্ত, রামপ্রাণ (১৮৬৯-১৯২৭)  ঐতিহাসিক, লেখক, পূর্ববঙ্গ ব্রাহ্মসমাজের নেতা। ১৮৬৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল জেলার কেদারপুর গ্রামে তাঁর জন্ম। গ্রামের পাঠশালায় শিক্ষা গ্রহণের পর তিনি দিনাজপুর জেলা স্কুল, সাঁকরাইল স্কুল এবং কলকাতার রিপন কলেজিয়েট স্কুলে অধ্যয়ন করেন। কিন্তু প্রবেশিকা পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে তিনি পড়াশোনা ত্যাগ করেন।

দিনাজপুর কালেক্টরেট অফিসে শিক্ষানবিশি হিসেবে রামপ্রাণ কর্মজীবন শুরু করেন। তারপর সেখানকার কেরানি ও সহকারি হিসাবরক্ষক পদে চাকরি করেন। ১৯০৩ সালে তিনি টাঙ্গাইল মহকুমার ইন্ডিপেন্ডেন্ট বেঞ্চে অবৈতনিক ম্যাজিস্ট্রেট ও ১৯২১-২২ সালে ময়মনিসংহ জেলার উপ-কারাগারের বেসরকারি পরিদর্শক, লোকাল বোর্ডের সদস্য ও টাঙ্গাইল হিন্দুসভার অন্যতম সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

রামপ্রাণ ১৯১৮ সালের ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত বঙ্গীয় সাহিত্য সম্মেলনের ইতিহাস শাখায় সভাপতিত্ব করেন। তিনি বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য পত্রিকার নিয়মিত লেখক ও পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। চিন্তায় ও কর্মে তিনি হিন্দু-মুসলমান সম্প্রীতি কামনা করতেন, যার স্বাক্ষর রয়েছে তাঁর বিভিন্ন রচনায়। রামপ্রাণের উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলি হচ্ছে: হজরত মোহাম্মদ (১৯০৪), মোগলবংশ (১৯০৪), রিয়াজ-উস সালাতিন (১৯০৫),পাঠান রাজবৃত্ত (১৯১১), প্রাচীন ভারত (১৯১৪), ভারত ললনা (১৯১৬), ইসলাম কাহিনী (১৯১১), ঐতিহাসিক সন্দর্ভ (১৯১৭, ২য় সংস্করণ), ভারতবর্ষের ইতিহাস (১৯২২), প্রাচীন রাজমালা (১৯২৪), চেঙ্গিস খাঁ ও তাঁহার উত্তরাধিকারিগণ প্রভৃতি। সুকথা, সাহিত্য,  ভারতীপ্রবাসী, আরতি,  নবনূর প্রভৃতি পত্রিকায় তাঁর অনেক ঐতিহাসিক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ১৯২৭ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়।  [মোঃ হারুন-অর-রশীদ]