শেরশাহ

NasirkhanBot (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ০৫:০৪, ৫ মে ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ (Added Ennglish article link)
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

শেরশাহ  ভারতবর্ষের সম্রাট (১৫৪০-১৫৪৫) ও শূর রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা। শেরশাহ ছিলেন বিহারের অন্তর্গত সাসারামের জায়গিরদার হাসান খান শূরের পুত্র। ১৪৭২ খ্রিস্টাব্দে তাঁর জন্ম। তাঁর প্রকৃত নাম ফরিদ। অল্প বয়সে গৃহ ত্যাগ করে তিনি বিহারের সুলতান বাহার খান লোহানীর অধীনে চাকরি গ্রহণ করেন। তাঁর সাহস ও বীরত্বের জন্য বাহার খান তাঁকে ‘শের খান’ খেতাবে ভূষিত করেন। বাহার খানের মৃত্যুর পর তাঁর নাবালক পুত্র জালাল খানের অভিভাবক হিসেবে শের খান কার্যত বিহারের সর্বময় কর্তৃত্ব লাভ করেন। বৈবাহিক সম্পর্কের মাধ্যমে সামরিক সুবিধাজনক স্থানে অবস্থিত চুনার দুর্গ তাঁর অধিকারে আসে। তাঁর ক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে জালাল খানের অপরাপর অমাত্যবর্গ শের খানের প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে ওঠেন। এঁদের দুরভিসন্ধিতে প্ররোচিত হয়ে জালাল খান শের খানের আধিপত্য থেকে নিজেকে মুক্ত করার জন্য বাংলার সুলতান গিয়াসউদ্দীন মাহমুদ শাহের সাহায্য প্রার্থনা করেন। কিন্তু শের খান ১৫৩৪ খ্রিস্টাব্দে সুরজগড়ের যুদ্ধে মাহমুদ শাহ ও জালাল খানের সম্মিলিত বাহিনীকে পরাজিত করেন। এই বিজয়ের ফলে বিহারের ওপর তাঁর নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৫৩৮ খ্রিস্টাব্দে শের খান বাংলা আক্রমণ করে সুলতান মাহমুদ শাহকে পরাজিত করেন। কিন্তু মুগল সম্রাট হুমায়ুন বাংলা অভিমুখে অগ্রসর হলে শের খান বাংলা ত্যাগ করেন। ১৫৩৯ খ্রিস্টাব্দে চৌসার যুদ্ধে (বক্সারের নিকটে) হুমায়ুনকে পরাভূত করে তিনি ‘শাহ’ উপাধি গ্রহণ করেন এবং বাংলা পুনর্দখল করে খিজির খানকে এর শাসনকর্তা নিযুক্ত করেন। পরবর্তী বছর পুনরায় হুমায়ুনকে পরাজিত ও ভারতবর্ষ থেকে বিতাড়িত করে তিনি দিল্লির সিংহাসন অধিকার করেন।

মাত্র পাঁচ বছরের স্বল্পকালীন শাসনে শেরশাহ সাম্রাজ্যে শান্তি শৃঙ্খলা বিধান করে প্রশাসনকে পুনর্বিন্যাস করেন। তিনি তাঁর সাম্রাজ্যকে ৪৭টি সরকারে এবং প্রতিটি সরকারকে কয়েকটি পরগণায় বিভক্ত করেন। এই প্রশাসনিক ব্যবস্থায় বাংলায় ১৯টি  সরকার ছিল। প্রতিটি সরকারে ‘শিকদার-ই-শিকদারান’ (মুখ্য শিকদার) ও ‘মুন্সিফ-ই-মুন্সিফান’ (মুখ্য মুন্সিফ) খেতাবধারী দুজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা নিয়োগ করা হতো। এঁরা শিকদার, আমিন, মুন্সিফ, কারকুন, পাটোয়ারী, চৌধুরী ও মুকাদ্দাম প্রমুখ পরগণা কর্মকর্তাদের কার্যাবলী তদারক করতেন। যথাযথভাবে ভূমি জরিপ করে উৎপাদিত ফসলের এক-চতুর্থাংশ রাজস্ব ধার্য করা হতো এবং এই রাজস্ব নগদ অর্থে অথবা ফসলের অংশ দ্বারা পরিশোধ করতে হতো। তিনিই সর্বপ্রথম ‘পাট্টা’ (ভূমি স্বত্বের দলিল) ও ‘কবুলিয়াত’ (চুক্তি দলিল) প্রথা চালু করে জমির উপর প্রজার (রায়তের) মালিকানা সুনিশ্চিত করেন এবং কৃষিকার্যে উৎসাহ দানের জন্য কৃষকদের ঋণ দানের ব্যবস্থা করেন।

শেরশাহ মুদ্রা ব্যবস্থার সংস্কার সাধন এবং হয়রানিমূলক কর রহিত করে ব্যবসা বাণিজ্যের উন্নতি বিধান করেন। সাম্রাজ্যের প্রত্যন্ত এলাকার সঙ্গে রাজধানী আগ্রার চমৎকার সংযোগ-সড়ক নির্মাণ করে এবং এই সড়কের ধারে নির্দিষ্ট দূরত্বে সরাইখানা, মসজিদ ও মন্দির প্রতিষ্ঠা করে তিনি যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি সাধন করেন। তাঁর নির্মিত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ছিল সড়ক-ই-আযম (মহাসড়ক)। তিন হাজার মাইল দীর্ঘ এই মহাসড়ক সোনারগাঁও থেকে আগ্রা, দিল্লি ও লাহোর হয়ে মুলতান পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল এবং এর দুপাশে ছিল ছায়াদানকারী বৃক্ষশ্রেণি। উপনিবেশিক আমলে এই সড়ক গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড নামে পরিচিতি লাভ করে। রাজধানী থেকে সাম্রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এবং বাইরে থেকে রাজধানীতে সহজে ও দ্রুত সরকারি নির্দেশ ও সংবাদ আদান প্রদানের জন্য যাত্রাপথে পর্যায়ক্রমে সংবাদ-বাহকের ঘোড়া বদল করার এক অভিনব পদ্ধতি তিনি চালু করেন। পথের পাশের সরাইখানাগুলি সংবাদবাহী ঘোড়া বদলের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহূত হতো।

সুলতান পুলিশ ব্যবস্থার পুনর্বিন্যাস করেন। গ্রাম-প্রধানদের তিনি দায়িত্ব দেন স্ব স্ব এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বিধানের এবং মুহতাসিবদের সহায়তায় তিনি মদ্যপান ও ব্যভিচারের মতো অপরাধ দমন করেন। তিনি একটি শক্তিশালী স্থায়ী সেনাবাহিনী ও দক্ষ গুপ্তচর দল পোষণ করতেন। ন্যায় বিচারের প্রতি ছিল তাঁর প্রবল অনুরাগ। সুলতান ছিলেন দেওয়ানি ও ফৌজদারি উভয় মামলায় সর্বোচ্চ বিচারক। তাঁর পরবর্তী অধস্তন বিচারক ছিলেন কাজী-উল-কুজ্জাত। পরগণাগুলিতে কাজী ফৌজদারি মামলার  বিচার করতেন, আর দেওয়ানি মামলার বিচারক ছিলেন আমিন। হিন্দুদের দেওয়ানি মামলার বিচার করতেন পঞ্চায়েতগণ।

সুলতানের জনহিতকর কার্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত ছিল দাতব্য প্রতিষ্ঠানে মুক্ত হস্তে অর্থদান, দরিদ্রদের জন্য লঙ্গরখানা স্থাপন, মাদ্রাসা, মসজিদ, গুরুত্বপূর্ণ ইমারত, বাগবাগিচা, হাসপাতাল ও সরাইখানা নির্মাণ। সাসারামে নিজের অনুপম সমাধিসৌধ, নির্মাতা হিসেবে তাঁর উন্নত রুচির পরিচায়ক। শেরশাহ ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান। তিনি গোঁড়া বা ধর্মান্ধ ছিলেন না। হিন্দুদের প্রতি তিনি ছিলেন খুবই সহনশীল। তাঁর মধ্যে একজন সমরনেতা, একজন বিচক্ষণ নৃপতি এবং একজন যোগ্য ও দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়কের গুণাবলীর সমন্বয় ঘটেছিল।  [মুহম্মদ আনসার আলী]