রাজ্জাক, আবদুর৩

Mukbil (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ১২:২১, ৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)
আবদুর রাজ্জাক

রাজ্জাক, আবদুর৩ (১৯৪২-২০১১)  রাজনীতিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। ১৯৪২ সালের ১ আগস্ট শরিয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার দক্ষিণ ডামুড্যা গ্রামে তাঁর জন্ম। পিতার নাম ইমামউদ্দিন এবং মাতা বেগম আকফাতুন্নেসা। আবদুর রাজ্জাক ১৯৫৮ সালে ডামুড্যা মুসলিম হাইস্কুল থেকে এস.এস.সি এবং ১৯৬০ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচ.এস.সি পাস করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৪ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে বি.এ (অনার্স) এবং পরে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়  থেকে ১৯৬৭ সালে এল.এল.বি ডিগ্রি লাভ করেন।

আবদুর রাজ্জাক ছাত্রাবস্থায়ই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তিনি ছিলেন স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদের (যা নিউক্লিয়াস নামে বহুল পরিচিত) তিন সদস্যের অন্যতম। এই পরিষদ ছিল ছাত্রলীগের একটি প্রাগ্রসর প্রগতিবাদী অংশ যা ষাটের দশকের প্রথমদিকে একটি স্বাধীন জাতি গঠনের ধারণার উন্মেষ ঘটায়। তিনি ১৯৬০ থেকে ১৯৬২ সাল পর্যন্ত ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। আবদুর রাজ্জাক ১৯৬৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হল ছাত্র ইউনিয়নের সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি বিভিন্ন সময়ে কয়েকবার গ্রেফতার হয়ে কারাবরণ করেন। আবদুর রাজ্জাক ১৯৬৬ থেকে ১৯৬৭ এবং ১৯৬৭ থেকে ১৯৬৮ সালে দুই মেয়াদে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি ১৯৬৬ সালের ছয়দফা আন্দোলন, এগার দফা আন্দোলন এবং ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যূত্থানে অংশগ্রহণ করেন।

আবদুর রাজ্জাক ১৯৭০ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে মুজিব বাহিনীর অন্যতম কমান্ডার ছিলেন আবদুর রাজ্জাক। তিনি দেরাদুনে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে আবদুর রাজ্জাক ছিলেন একজন জনপ্রিয় সংসদ সদস্য। তিনি দলীয় এবং সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত ছিলেন। তিনি ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫ কার্যকালে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। আবদুর রাজ্জাক শরিয়তপুর-৩ আসন থেকে ১৯৭৩ সালে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক গঠিত বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের (বাকশাল) সম্পাদক নিযুক্ত হন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর আবদুর রাজ্জাককে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ১৯৭৮ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৮৩ সালে তিনি আওয়ামী লীগ ত্যাগ করে পুনরায় বাকশাল গঠন করেন। আবদুর রাজ্জাক আশি ও নববইয়ের দশকের প্রথমদিকে হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। এরশাদের সামরিক শাসনামলে ১৯৮৭ সালে তিনি কারারুদ্ধ হন। ১৯৯২ সালে বাকশাল ও আওয়ামী লীগ একীভূত হলে আবদুর রাজ্জাক আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালের ২৯ জুলাই উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যপদ লাভের পূর্ব পর্যন্ত তিনি প্রেসিডিয়াম সদস্য পদে বহাল ছিলেন। তিনি ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি শরিয়তপুর-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন।

১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গঠিত ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সদস্য ছিলেন আবদুর রাজ্জাক। লন্ডনের কিংস কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০১১ সালের ২৩ ডিসেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়।  [তাহমিদা খানম]