বাংলাদেশ লেদার টেকনোলজি কলেজ

NasirkhanBot (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ০৪:২৫, ৫ মে ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ (Added Ennglish article link)
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

বাংলাদেশ লেদার টেকনোলজি কলেজ  ঢাকার হাজারীবাগে ১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসে প্রতিষ্ঠিত ইস্ট বেঙ্গল ট্যানিং ইনস্টিটিউট ফর দি হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট অব লেদার অ্যান্ড লেদার প্রোডাক্টস সেক্টর হিসেবে শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত একটি কারিগরি প্রতিষ্ঠান। ১৯৪৯ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম শুরু হলেও ১৯৫২ সাল থেকে এর একাডেমিক কার্যক্রম চালু হয়। পরবর্তীতে এ প্রতিষ্ঠানটির নাম হয় ইস্ট পাকিস্তান ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি। অধিকতর শিক্ষা-সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এ প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কারিগরি শিক্ষা পরিদপ্তরের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণে ন্যস্ত করা হয়।

১৯৭১ সালের পরে এ প্রতিষ্ঠানটির নাম রাখা হয় বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি এবং সেসঙ্গে ডিপ্লোমা, সার্টিফিকেট এবং আর্টিজান লেভেল কোর্স চালু করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ লেদার টেকনোলজি কলেজ নামকরণ করা হয়। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এ কলেজে লেদার টেকনোলজি, ফুটঅয়্যার টেকনোলজি এবং লেদার প্রোডাক্ট টেকনোলজির ওপর ৪ বছরের বিএসসি ডিগ্রি কোর্স চালু রয়েছে। প্রতি বছর এ তিনটি বিভাগে মোট প্রায় ১২০ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়ে থাকে। ডিগ্রি কোর্স ছাড়াও এখানে সার্টিফিকেট কোর্স এবং ডিজাইনিং, মাননিয়ন্ত্রণ, যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ ইত্যাদি বিষয়ের ওপর সতল্পমেয়াদি কোর্স চালু রয়েছে।  [বায়েজীদ আকতার]