বাবুরহাট

NasirkhanBot (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ০৪:২৭, ৫ মে ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ (Added Ennglish article link)
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

বাবুরহাট  বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ কাপড়ের বাজার। ঢাকা থেকে ৩৫ কিমি দূরে ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে নরসিংদী জেলার সদর থানায় শেখেরচরে অবস্থিত। এই বাজারের পুরো নাম শেখেরচর বাবুরহাট। ঢাকা থেকে শেখেরচর যাওয়ার পথে এর আগেই আর একটি হাট আছে। তার নাম মাধবদির হাট বা মাধবদি বাবুরহাট। সেটি নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানায় অবস্থিত। কথিত আছে, এই অঞ্চলের জমিদার আশু বাবু প্রথমে তিরিশের দশকে মাধবদিতে হাট বা বাজার প্রতিষ্ঠা করেন, কিন্তু কোন কারণে তার ভাই কালী বাবুর সঙ্গে তার ঝগড়া হলে কালী বাবু, প্রমথ বাবু ও গোপাল বাবু শেখেরচরে বাবুরহাট প্রতিষ্ঠা করেন। অল্প সময়ের মধ্যেই নতুন বাবুরহাট বড় বাজার হিসেবে দাঁড়িয়ে যায় এবং সেই থেকে এটিই বাবুরহাট নামে প্রসিদ্ধ হয়।

এ অঞ্চলটি বহুকাল থেকেই তাঁত বস্ত্রের জন্য প্রসিদ্ধ। তাঁতিরা সারা সপ্তাহে যে কাপড় তৈরি করত সেগুলি হাটবারে এখানে নিয়ে আসত ও পাইকারদের নিকট বিক্রয় করত। এমনি করে ধীরে ধীরে হাট জমে উঠতে থাকে। এক সময় কেবল নদীপথেই পাইকাররা এখানে কাপড় কিনতে আসত। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময় মোমিন কোম্পানি রাস্তা তৈরি করে বাস সার্ভিস চালু করে। অবশ্য নিকটেই রয়েছে নরসিংদী রেল স্টেশন। নদীপথে, রেলপথে ও সড়কপথে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাইকাররা এসে হাট থেকে কাপড় কিনে নিয়ে যায়। এক সময় এই অঞ্চলেই মসলিন কাপড় তৈরি হতো, তৈরি হতো মসলিনের উপযুক্ত সুতা। কিন্তু ইংরেজদের আগমনের পর এদেশে সুতা তৈরি প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। তাঁতিরা কলে তৈরি সুতার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। ইংরেজ আমলে বিলেত ও বোম্বে থেকে সুতা আমদানি হয়ে প্রথমে নারায়ণগঞ্জে আসত, তারপর সেখান থেকে আসত বাবুরহাট। ইংরেজ আমলের শেষ দিকে নারায়ণগঞ্জ, ঢাকেশ্বরী, লক্ষ্মীনারায়ণ ও চিত্তরঞ্জন কটন মিলস স্থাপিত হয় এবং সেখানকার কাপড় তৈরির পর উদ্বৃত্ত সুতা তাঁতিদের নিকট এই হাটের মাধ্যমে বিক্রি হতো। পাকিস্তান আমলে কালীগঞ্জ কটন মিল কেবল সুতা তৈরি করে তাঁতিদের সরবরাহ করত।

বর্তমানে বাবুরহাটে প্রায় এক হাজার ঘরে কাপড় কেনা-বেচা হয়ে থাকে। এক সময় কেবল রবিবারে হাট বসত। এখন সপ্তাহে তিনদিন অর্থাৎ শনি, রবি ও সোমবার হাট বসে। অন্যদিনও বাজার খোলা থাকে। প্রতি হাটে প্রায় ১০০ কোটি টাকার মালামাল কেনা-বেচা হয়ে থাকে।  [ফজলে রাবিব]