ভট্টনারায়ণ

NasirkhanBot (আলোচনা | অবদান) কর্তৃক ০৪:৩৫, ৫ মে ২০১৪ তারিখে সংশোধিত সংস্করণ (Added Ennglish article link)
(পরিবর্তন) ← পূর্বের সংস্করণ | সর্বশেষ সংস্করণ (পরিবর্তন) | পরবর্তী সংস্করণ → (পরিবর্তন)

ভট্টনারায়ণ (৮ম শতক)  সংস্কৃত পন্ডিত, নাট্যকার। গৌড় বঙ্গের রাঢ়ী ব্রাহ্মণ কুলের  কুলজি গ্রন্থসমূহে প্রাপ্ত বিবরণ অনুসারে বঙ্গরাজ আদিশূর (আনু. ৭০০-৮৫০ এর মধ্যে) বৈদিক  যজ্ঞ সম্পাদন করার জন্য কান্যকুব্জ থেকে যে পাঁচজন বিশিষ্ট ব্রাহ্মণকে বঙ্গে এনেছিলেন, ভট্টনারায়ণ তাঁদের অন্যতম। তাঁর রচিত বেণীসংহার নামক ষড়ঙ্ক নাটকটি  সংস্কৃত সাহিত্যে অতীব প্রসিদ্ধ।

মহাভারতের সভাপর্বস্থ প্রসিদ্ধ কাহিনী বেণীসংহারের উপজীব্য; সেই সঙ্গে ভীষ্ম, দ্রোণ, কর্ণ ও শল্য কাহিনীও সংক্ষেপে নাট্যায়িত হয়েছে। সভাপর্বে দুঃশাসন কর্তৃক দ্রৌপদীর কেশাকর্ষণ ঘটনায় ভীমের ক্রোধ, দুঃশাসনের রক্তে রঞ্জিত হস্তদ্বারা দ্রৌপদীর বেণীবন্ধনের প্রতিজ্ঞা এবং কালক্রমে সেই প্রতিজ্ঞাপূরণ নাটকের বিষয়বস্ত্ত। সংস্কৃত নাট্যগ্রন্থসমূহের মধ্যে এর রচনাপদ্ধতি বিশিষ্ট প্রকারের। দুর্যোধন, ভীম প্রভৃতির চরিত্রচিত্রণে ভট্টনারায়ণ নিপুণতার পরিচয় দিয়েছেন। নাটকটিতে বীররস, করুণরস ও ভয়ের দৃশ্যগুলি অত্যন্ত মর্মস্পর্শী।

বীররসাশ্রিত সংস্কৃত নাটকগুলির মধ্যে বেণীসংহার সর্বশ্রেষ্ঠ রচনা। আলঙ্কারিকগণ একে আদর্শ নাটকরূপে গ্রহণ করেছেন। বাংলা ও ইংরেজি অনুবাদ এবং সংস্কৃত টীকাসহ এর ১০টিরও বেশি সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছে। নাটকটি বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএ অনার্স ও এমএ শ্রেণীর পাঠ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত।  [ধীরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়]