"অরিজিন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অব দি বেঙ্গলি ল্যাংগুয়েজ, দি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(Added Ennglish article link)
 
 
২ নং লাইন: ২ নং লাইন:
 
'''অরিজিন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অব দি বেঙ্গলি ল্যাংগুয়েজ, দি''' (ওডিবিএল)  বাংলা ভাষা সংক্রান্ত একটি বিখ্যাত গ্রন্থ। ভাষাতাত্ত্বিক [[চট্টোপাধ্যায়, সুনীতিকুমার|সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়]] The Origin and Development of the Bengali Language নামে ইংরেজিতে গ্রন্থটি রচনা করেন। সংক্ষেপে এটি ODBL নামেই সমধিক পরিচিত। বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ বিষয়ক যে মৌলিক গবেষণার জন্য লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন, তার ওপর ভিত্তি করেই গ্রন্থখানি প্রণীত এবং ১৯২৬ সালে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পর থেকেই এটি ভারতীয় ও ইউরোপীয় পন্ডিতবর্গের উচ্চ প্রশংসা ও অনুমোদন লাভ করে আসছে। এখনও ইন্দো-আর্য ভাষার বিজ্ঞানসম্মত পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রে এটি বিশিষ্ট গবেষণা কর্মরূপে বিবেচিত হয়।
 
'''অরিজিন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অব দি বেঙ্গলি ল্যাংগুয়েজ, দি''' (ওডিবিএল)  বাংলা ভাষা সংক্রান্ত একটি বিখ্যাত গ্রন্থ। ভাষাতাত্ত্বিক [[চট্টোপাধ্যায়, সুনীতিকুমার|সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়]] The Origin and Development of the Bengali Language নামে ইংরেজিতে গ্রন্থটি রচনা করেন। সংক্ষেপে এটি ODBL নামেই সমধিক পরিচিত। বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ বিষয়ক যে মৌলিক গবেষণার জন্য লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন, তার ওপর ভিত্তি করেই গ্রন্থখানি প্রণীত এবং ১৯২৬ সালে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পর থেকেই এটি ভারতীয় ও ইউরোপীয় পন্ডিতবর্গের উচ্চ প্রশংসা ও অনুমোদন লাভ করে আসছে। এখনও ইন্দো-আর্য ভাষার বিজ্ঞানসম্মত পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রে এটি বিশিষ্ট গবেষণা কর্মরূপে বিবেচিত হয়।
  
সুবৃহৎ এ গ্রন্থের প্রধানত দুটি অংশ: Part-I: Introduction, Phonology এবং Part-II: Morphology, Bengali Index। পরবর্তী সংস্করণে (১৯৭১) সংযোজিত হয় Part-III: Supplementary, Additions, Correction etc. বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও বিকাশের স্বরূপ পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে এ গ্রন্থে বর্ণনা ও ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বাংলা ভাষার প্রকৃতি তথা ধ্বনি (বর্ণ ও ছন্দ), রূপমূল (শব্দ) ও ব্যাকরণগত ধারাসমূহ উপস্থাপনে সুনীতিকুমার যে কৌশল অবলম্বন করেছেন তা একই সঙ্গে বর্ণনামূলক ও তুলনামূলক উভয়ই। বাংলা ভাষার উদ্ভব ও বিকাশের ক্ষেত্রে ভারতবর্ষীয় মূল ভাষাসহ ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার প্রধান যেসব ভাষার পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষ প্রভাব রয়েছে, সে সবেরও বিস্তৃত বর্ণনা আছে এ গ্রন্থে।  [[বাংলা ভাষা|বাংলা ভাষা]] ও সাহিত্য, বিশেষত বাংলা ভাষাতত্ত্বের ছাত্র-শিক্ষক-গবেষকদের নিকট গ্রন্থটি অবশ্যপাঠ্য হিসেবে বিবেচিত।
+
সুবৃহৎ এ গ্রন্থের প্রধানত দুটি অংশ: Part-I: Introduction, Phonology এবং Part-II: Morphology, Bengali Index। পরবর্তী সংস্করণে (১৯৭১) সংযোজিত হয় Part-III: Supplementary, Additions, Correction etc. বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও বিকাশের স্বরূপ পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে এ গ্রন্থে বর্ণনা ও ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বাংলা ভাষার প্রকৃতি তথা ধ্বনি (বর্ণ ও ছন্দ), রূপমূল (শব্দ) ও ব্যাকরণগত ধারাসমূহ উপস্থাপনে সুনীতিকুমার যে কৌশল অবলম্বন করেছেন তা একই সঙ্গে বর্ণনামূলক ও তুলনামূলক উভয়ই। বাংলা ভাষার উদ্ভব ও বিকাশের ক্ষেত্রে ভারতবর্ষীয় মূল ভাষাসহ ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার প্রধান যেসব ভাষার পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষ প্রভাব রয়েছে, সে সবেরও বিস্তৃত বর্ণনা আছে এ গ্রন্থে।  [[বাংলা ভাষা|বাংলা ভাষা]] ও সাহিত্য, বিশেষত বাংলা ভাষাতত্ত্বের ছাত্র-শিক্ষক-গবেষকদের নিকট গ্রন্থটি অবশ্যপাঠ্য হিসেবে বিবেচিত। [মহাম্মদ দানীউল হক]
  
[মহাম্মদ দানীউল হক]
+
[[en:Origin and Development of the Bengali Language, The]]
 
 
[[en:Origin and Development of the Bengali খধহমঁage, The]]
 

১০:৩৫, ৯ জুলাই ২০১৪ তারিখে সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণ

অরিজিন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অব দি বেঙ্গলি ল্যাংগুয়েজ, দি (ওডিবিএল)  বাংলা ভাষা সংক্রান্ত একটি বিখ্যাত গ্রন্থ। ভাষাতাত্ত্বিক সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় The Origin and Development of the Bengali Language নামে ইংরেজিতে গ্রন্থটি রচনা করেন। সংক্ষেপে এটি ODBL নামেই সমধিক পরিচিত। বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ বিষয়ক যে মৌলিক গবেষণার জন্য লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন, তার ওপর ভিত্তি করেই গ্রন্থখানি প্রণীত এবং ১৯২৬ সালে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পর থেকেই এটি ভারতীয় ও ইউরোপীয় পন্ডিতবর্গের উচ্চ প্রশংসা ও অনুমোদন লাভ করে আসছে। এখনও ইন্দো-আর্য ভাষার বিজ্ঞানসম্মত পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রে এটি বিশিষ্ট গবেষণা কর্মরূপে বিবেচিত হয়।

সুবৃহৎ এ গ্রন্থের প্রধানত দুটি অংশ: Part-I: Introduction, Phonology এবং Part-II: Morphology, Bengali Index। পরবর্তী সংস্করণে (১৯৭১) সংযোজিত হয় Part-III: Supplementary, Additions, Correction etc. বাংলা ভাষার উৎপত্তি ও বিকাশের স্বরূপ পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে এ গ্রন্থে বর্ণনা ও ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বাংলা ভাষার প্রকৃতি তথা ধ্বনি (বর্ণ ও ছন্দ), রূপমূল (শব্দ) ও ব্যাকরণগত ধারাসমূহ উপস্থাপনে সুনীতিকুমার যে কৌশল অবলম্বন করেছেন তা একই সঙ্গে বর্ণনামূলক ও তুলনামূলক উভয়ই। বাংলা ভাষার উদ্ভব ও বিকাশের ক্ষেত্রে ভারতবর্ষীয় মূল ভাষাসহ ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার প্রধান যেসব ভাষার পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষ প্রভাব রয়েছে, সে সবেরও বিস্তৃত বর্ণনা আছে এ গ্রন্থে।  বাংলা ভাষা ও সাহিত্য, বিশেষত বাংলা ভাষাতত্ত্বের ছাত্র-শিক্ষক-গবেষকদের নিকট গ্রন্থটি অবশ্যপাঠ্য হিসেবে বিবেচিত। [মহাম্মদ দানীউল হক]