হাতুড়ে ডাক্তার


হাতুড়ে ডাক্তার (Quack)  চিকিৎসাশাস্ত্রে জ্ঞান ও দক্ষতা আছে বলে দাবি করে এমন ব্যক্তি। অল্প প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও অদক্ষ এসব তথাকথিত ডাক্তার প্রায় সব ধরনের চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্র দেয়, সব রোগের চিকিৎসা করে, যদিও সেসব চিকিৎসা সম্বন্ধে তাদের তেমন কোন জ্ঞান নেই, থাকলেও খুবই সামান্য। এদের চিকিৎসা পেশার ভিত্তি প্রধানত দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা অথবা স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে পরিচিতি ও চিকিৎসা কেন্দ্রে চাকরি। যেকোন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সহকারী হিসেবে অথবা নিবন্ধনপ্রাপ্ত চিকিৎসকের কাজে সাহায্য করে বা ওষুধের দোকানে বা চিকিৎসকের ডিসপেনসারিতে ওষুধ তৈরি ও বিক্রির কাজ করার মাধ্যমে এদের অধিকাংশই চিকিৎসার অভিজ্ঞতা অর্জন করে। এ সময় কতকগুলি সাধারণ রোগের উপসর্গের সঙ্গে ক্রমে এদের পরিচিতি ঘটে। এসব রোগের চিকিৎসায় ব্যবহূত ওষুধ ও অন্যান্য দ্রব্যের নাম শিখে নেয় এবং ক্রমে থার্মোমিটার, স্টেথোস্কোপ, রক্তচাপ মাপার যন্ত্র ইত্যাদির ব্যবহার শেখে। সেসঙ্গে শরীরে ইনজেকশন ও আন্তঃশিরায় তরল পদার্থ প্রবেশ করানোর কৌশলও রপ্ত করে। এ ধরনের জ্ঞান সম্বল করে অধিকাংশ হাতুড়ে ডাক্তার তাদের পেশা শুরু করে। অনেকের এ ধরনের প্রাথমিক জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাও থাকে না, বিশেষ করে যারা প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে চিকিৎসা পেশায় নিযুক্ত থাকে।

বাংলাদেশসহ এশিয়া ও আফ্রিকার উন্নয়নশীল এবং অনুন্নত দেশসমূহের গ্রামীণ এলাকায় শত শত হাতুড়ে চিকিৎসক তাদের পেশায় নিয়োজিত রয়েছে। এদের মধ্যে অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসক থেকে হেকিম, কবিরাজ, ধাত্রী, আয়া, সাপুড়ে, ওঝা থেকে হাড়-বসানোর বিশেষজ্ঞ এবং রক্ত-মোক্ষণকারী পর্যন্ত রয়েছে। যদিও কখনও কখনও ভুল রোগনির্ণয় ও ভুল চিকিৎসার কারণে রোগকে জটিল পর্যায়ে নিয়ে জনস্বাস্থ্যের জন্য এরা মারাত্মক হুমকির সৃষ্টি করে, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে, বিশেষ করে গ্রাম এলাকায় প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিসেবা স্তরে এরাই জনশক্তির এক বড় উৎস।  [আবদুল গনি]