সেন, রায়বাহাদুর জলধর


সেন, রায়বাহাদুর জলধর (১৮৬০-১৯৩৯)  সাহিত্যিক, সাংবাদিক, পর্যটক। ১৮৬০ সালের ১৩ মার্চ  কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালি গ্রামে তাঁর জন্ম। বঙ্গবিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সাপ্তাহিক গ্রামবার্তা প্রকাশিকার সম্পাদক  কাঙাল হরিনাথ ছিলেন তাঁর শিক্ষাগুরু।

রায়বাহাদুর জলধর সেন

১৮৭৮ সালে কুমারখালি স্কুল থেকে এন্ট্রান্স পাস করে জলধর কলকাতার জেনারেল এসেমবি­জ ইনস্টিটিউশনে ভর্তি হন, কিন্তু এফএ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি। পেশাগত জীবনে তিনি প্রথমে ফরিদপুরের রাজবাড়িস্থিত গোয়ালন্দ স্কুলে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন (১৮৮১)। পরে তিনি দেরাদুন ও মহিষাদল রাজস্কুলে (১৮৯১) শিক্ষকতা করেন। ১৮৯৯ সালে  কলকাতা গিয়ে তিনি বঙ্গবাসী পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং ১৯০৭-০৯ পর্যন্ত হিতবাদী পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। ১৯০৯-১১ পর্যন্ত তিনি সন্তোষের রাজার দেওয়ান হিসেবে কাজ করেন। সেখান থেকে পুনরায় কলকাতায় ফিরে জলধর সুলভ সমাচার (১৯১১) ও  ভারতবর্ষ (১৩২০-১৩৪৬) পত্রিকা সম্পাদনা করেন। তিনি দুপর্বে (১৯১২-১৩, ১৯৩৬-৩৮) বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদের সহসভাপতি ছিলেন।

জলধরের প্রকৃত প্রতিষ্ঠা একজন লেখক হিসেবে। তিনি পাঠ্যপুস্তক, জীবনী,  শিশুসাহিত্য, অনুবাদ, ভ্রমণকাহিনী,  উপন্যাস ও  ছোটগল্প মিলিয়ে প্রায় ৪২টি গ্রন্থ রচনা করেন। সেগুলির মধ্যে জীবনীগ্রন্থ কাঙাল হরিনাথ (দুই খন্ড, ১৯১৩, ১৯১৪); ছোটগল্প নৈবেদ্য (১৯০০), কাঙ্গালের ঠাকুর (১৯২০), বড় মানুষ (১৯২৯); উপন্যাস দুঃখিনী (১৯০৯), অভাগী (৩ খন্ড, ১৯১৫-৩২), উৎস (১৯৩২) এবং ভ্রমণবৃত্তান্ত প্রবাসচিত্র (১৮৯৯) ও হিমালয় (১৯০০) প্রধান। এ ছাড়াও তিনি হরিনাথ গ্রন্থাবলী ও প্রমথনাথের কাব্য গ্রন্থাবলি সম্পাদনা করেন।

গার্হস্থ্য জীবনের সুখ-দুঃখ ও প্রেম-বিরহের এক অনুপম চিত্র জলধর সেনের কথাসাহিত্যের বিশেষ বৈশিষ্ট্য। ১৯৩৪ সালে নিখিলবঙ্গ জলধর সম্বর্ধনায় দেশবাসীর পক্ষ থেকে  শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁকে মানপত্র প্রদান করেন। জলধর সেন তৎকালীন সাহিত্যিক-সমাজে বিশেষভাবে জনপ্রিয় ছিলেন। ১৯২২ সালে ব্রিটিশ সরকার তাঁকে ‘রায়বাহাদুর’ উপাধিতে ভূষিত করে। ১৯৩৯ সালের ১৫ মার্চ কলকাতায় তাঁর মৃত্যু হয়।  [শিপ্রা দস্তিদার]