সুইচোরা


সুইচোরা

সুইচোরা (Bee-eater)  Coraciiformes বর্গের Meropidae গোত্রের ছোট, হালকা-পাতলা দেহবিশিষ্ট এক দল পাখি। এদের ঠোঁট সরু, ছুঁচালো; নিচের দিকে বাঁকানো। লেজ আনুপাতিকভাবে লম্বা এবং কতক প্রজাতিতে কেন্দ্রীয় সরু পালক দীর্ঘাকার। সুইচোরাদের অধিকাংশই পূর্ব গোলার্ধের এবং অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা। এদের পালক উজ্জ্বল নীল ও সবুজ বর্ণের, এতে আকর্ষণীয়ভাবে লাল ও হলুদ রং মেশানো। মৌমাছি, বোলতা, পিঁপড়া ইত্যাদি হুলবিশিষ্ট পতঙ্গ শিকার করে খেতে এরা অভ্যস্ত।

এজন্য শিকারকে নির্বিষ করার চমৎকার এক কৌশলও তারা অর্জন করেছে। ধৃত পোকাকে ঠোঁট দিয়ে শক্তভাবে ধরে এরা বারবার গাছের ডালে আঘাত করে এবং পরে মৃতপ্রায় শিকারকে ঘষে বিষ ও হুল মুক্ত করে। এরা প্রায় সব সময়েই উড়ন্ত অবস্থায় শিকার ধরে। সাধারণত এককভাবে অথবা দু’তিনটি দল বেঁধে নদীর কিনারায়, পাড়ে অথবা মাটির ঢিবিতে বাসা বাঁধে। কখনও কখনও কলোনির মতো অনেক পাখি একই জায়গায় বাসা তৈরি করে। স্ত্রী-পুরুষ উভয়েই ডিমে তা দেয় এবং বাচ্চাকে খাওয়ায়। ডিম ফোটার ২৪ থেকে ৩০ দিন পর বাচ্চা বাসা ত্যাগ করে। পূর্ব গোলার্ধে সুইচোরাদের প্রজাতি সংখ্যা ২৭। বাংলাদেশে এদের ৪টি প্রজাতি আছে।

বাংলাদেশের সুইচোরার প্রজাতিগুলি হলো: Chestnut-headed Bee-eater (Merops leschenaulti)- বুলবুল পাখির চেয়ে ছোট। মাথা ও পিঠ উজ্জ্বল বাদামি রঙের, বুক ও গলা হলুদ। লেজের কেন্দ্রীয় সরু পালক মূল লেজের চেয়ে সামান্য লম্বা। স্ত্রী-পুরুষ দেখতে একই রকম। ছোট ছোট দলে পাহাড়ি বন এলাকায় খোলা গাছের শাখায় বসে থাকতে দেখা যায়।  এ প্রজাতি ভারত, শ্রীলঙ্কা এবং মায়ানমারেও বিস্তৃত; স্থানীয় নাম সুইচোরা/বাঁশপাতি (Green Bee-eater, Merops orientalis)- প্রায় চড়ূই পাখি আকারের সবুজ পাখি, মাথা ও ঘাড় এলাকা লালচে ধূসর। লেজের কেন্দ্রীয় পালক দুটি যথেষ্ট লম্বা, সরু, ভোঁতা আলপিনের মতো। স্পষ্ট কণ্ঠহারের অনুরূপ গলায় কালো দাগ আছে। স্ত্রী ও পুরুষ দেখতে একই রকম। দেশের প্রায় সর্বত্র খোলা জায়গায় জোড়ায় জোড়ায় অথবা দল বেঁধে টেলিগ্রাফ, টেলিফোনের তার, খুঁটি ইত্যাদির উপর বসে থাকতে দেখা যায়। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও মায়ানমারেও বিস্তৃত; Blue-tailed Bee-eater (Merops philippinus)- বুলবুল পাখির আকারের। চোখের পাশে কালো দাগ আছে, গলা ও বুক গাঢ় বাদামি; পেটের তলা ও লেজ নীল রঙের। স্ত্রী ও পুরুষ দেখতে একই রকম। খোলা জায়গায় এবং বিল, ঝিল ইত্যাদির আশেপাশে ঝাঁক বেঁধে বাস করে। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও মায়ানমারেও এদের দেখা যায়; স্থানীয় নাম বড় সুইচোরা/পাহাড়ি সুইচোরা (Blue-bearded Bee-eater, Nyctyornis athertoni)- দেশের অন্যান্য সুইচোরাদের চেয়ে আকারে বড়; প্রায় কবুতর আকৃতির, তবে দেহ অনেকটা হালকা প্রকৃতির। ঠোঁট কালো। কপাল সবুজ। গলার মাঝখানের এবং বুকের উপর দিকের পালক হালকা নীল রঙের। ডাকার সময় পালকগুলি স্পষ্ট দাড়ির মতো দেখায়। দেহের অঙ্কীয়ভাগ ব্যাপক সবুজ আভাবিশিষ্ট। লেজ বেশ লম্বা চওড়া, কেন্দ্রীয় বর্ধিত পালক নেই। বনভূমির ধারে-কাছে গাছগাছড়ার মধ্যে এরা বাস করে। নানা ধরনের কীটপতঙ্গ ছাড়াও মাঝে মধ্যে ফুলের নির্যাস খায়। দেশের মিশ্র চিরসবুজ বনাঞ্চলে বিস্তৃত। এ প্রজাতি শ্রীলঙ্কা এবং ভারতেও রয়েছে।  [মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম]