সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীন


সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীন একটি মূল্যবান ইতিহাস গ্রন্থ। সৈয়দ গোলাম হোসেন তবাতবাঈ-এটি ফারসি ভাষায় রচনা করেন। এটি বাংলায় (এবং ভারতেও) মুসলমান শাসনের পতনের সময় রচনা করা হয়েছিল। গোলাম হোসেন তবাতবাঈ ১১৪০ হিজরি / ১৭২৭-১৭২৮ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির এক সম্ভ্রান্ত মুসলমান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। সমকালীন প্রভাবশালী অভিজাতশ্রেণির সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ ছিল এবং ১৭৮১ খ্রিস্টাব্দে অর্থাৎ পলাশীর যুদ্ধের (১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দে) প্রায় পঁচিশ বছর পরে তিনি তাঁর গ্রন্থ রচনা শেষ করেন। ১৭৩২ খ্রিস্টাব্দে তাঁর পরিবার মুর্শিদাবাদে চলে আসে এবং সেখান থেকে  আলীবর্দী খান-এর সঙ্গে ১৭৩৩ খ্রিস্টাব্দে আজিমাবাদে (পাটনা) চলে যায়। আলীবর্দীর সঙ্গে সম্পর্কিত হওয়ায় তাঁর ক্ষমতায় আরোহণের সঙ্গে সঙ্গে লেখকের পরিবারও প্রাধান্য লাভ করে। তাঁর পিতা হেদায়েত আলী খান ছিলেন আলীবর্দীর জামাতা ও পাটনার নায়েব-নাজিম জৈনুদ্দীন আহমদ খানের বখশী (সরকারি খাজাঞ্চিখানার প্রধান কর্তাব্যক্তি)। লেখকের চাচা এবং মামারাও আলীবর্দীর প্রশাসনে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন ছিলেন। লেখক নিজে এবং তাঁর ভাইরাও সরকারি চাকরিতে নিয়োজিত ছিলেন। গোলাম হোসেন ছিলেন সুশিক্ষিত এবং বহু বিষয়ে সুপন্ডিত।

সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীন তিন খন্ডে রচিত। প্রথম খন্ডে হিন্দুস্থানের ভূগোল, জলবায়ু, প্রাণী, দুর্গ, দরবেশ ও আলিমদের বিবরণ রয়েছে এবং মহাকাব্যের যুগ থেকে  আওরঙ্গজেব-এর রাজত্বকাল পর্যন্ত ইতিহাস পর্যালোচনা করা হয়েছে। দ্বিতীয় খন্ডে আওরঙ্গজেবের মৃত্যু থেকে বাংলার ইতিহাস এবং মুর্শিদাবাদের নিজামত, নওয়াবদের সঙ্গে ইংরেজদের সম্পর্ক,  পলাশীর যুদ্ধ, বাংলা ও বিহারে ইংরেজদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা ও ব্রিটিশ প্রশাসনিক ব্যবস্থা আলোচনা করা হয়েছে। তৃতীয় খন্ডে হায়দ্রাবাদের নিজামের ইতিহাস, মহীশূরের হায়দার আলী, অযোধ্যার নওয়াব ওয়াজির, সম্রাট মুহম্মদ শাহ, আহমদ শাহ আবদালীর আক্রমণসমূহ ও মারাঠাদের সঙ্গে তাঁর যুদ্ধগুলি আলোচিত হয়েছে। ১৭৮১ খ্রিস্টাব্দে পর্যন্ত ইংরেজদের কর্মকান্ডের আলোচনা করে এ খন্ড শেষ হয়েছে।

ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হওয়ার পর এম. রেমন্ড নামে একজন ফরাসি ব্যক্তি হাজী মোস্তফা নাম গ্রহণ করেন। তিনি দ্বিতীয় খন্ডটি ইংরেজিতে অনুবাদ করেছিলেন।  বক্সারের যুদ্ধ-এ রাষ্ট্রসংঘের পরাজয়ের পর সুজাউদ্দৌলার ইংরেজদের সঙ্গে সন্ধি এবং তাদের ক্ষতিপূরণ দানে স্বীকৃতি দিয়ে এ অনুবাদ শেষ হয়েছে। সিয়ারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় খন্ডে ১৭০৭ থেকে ১৭৮১ পর্যন্ত সময়ের ইতিহাস রয়েছে। সে আমলের জন্য দেশজ কোন ঐতিহাসিকের লেখা কোন সমন্বিত ইতিহাসগ্রন্থ নেই। নওয়াবদের আমলে বাংলা ও বিহারের ইতিহাস পুনর্গঠনের জন্যও এ দুটি খন্ড অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। লেখক শুধু সমসাময়িক ব্যক্তিই ছিলেন না, তিনি প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে বহু ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন। উপরন্তু তিনি বহুবারই বিশেষ বার্তাবহের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি  মীরজাফর আলী খান ও শাহজাদা আলী গওহরের কাছে রাজা রামনারায়ণের,  মীর কাসিম-এর কাছে মেজর কার্ণাকের এবং কলকাতায় ইংরেজদের কাছে মীর কাসিমের বার্তা পৌঁছে দিয়েছিলেন। সুতরাং গোলাম হোসেন রাজনৈতিক কেন্দ্রগুলিতে বসবাস করেছিলেন এবং রাজনৈতিক বিবাদে জড়িত ব্যক্তিদের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা লাভ করার সুযোগ তাঁর ছিল এবং ইতিহাস রচনায় তিনি তা কাজে লাগিয়েছেন। সমসাময়িক অন্যান্য বইপত্র রয়েছে, তবে সেগুলিতে বিশেষ আমল বা নওয়াবদের নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীন হচ্ছে সবচেয়ে ব্যাপক। এতে সত্তর বছরেরও বেশি সময়ের আলোচনা রয়েছে, যখন মুসলমান শাসনের অবসান ঘটে এবং তদ্স্থলে ইংরেজশাসন প্রতিষ্ঠিত হয়।

অন্য একটি দৃষ্টিকোণ থেকেও সিয়ার গুরুত্বপূর্ণ। এতে গভর্নর জেনারেল হিসেবে ওয়ারেন হেস্টিংস-এর শাসনকাল পর্যন্ত বাংলায় ইংরেজদের কার্যকলাপ সম্পর্কে প্রচুর তথ্য রয়েছে। গ্রন্থকার ইংরেজদের আইন-কানুন, রাজস্ব ও বিচার বিভাগীয় প্রশাসন সম্পর্কে আলোচনা করেছেন, যা ফারসিতে লেখা সমসাময়িক অন্য কোন গ্রন্থে পাওয়া যায় না।

অবশ্য বেশ কয়েকটি কারণে সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীনের গুরুত্ব হ্রাস পেয়েছে। প্রথমত, গ্রন্থকার শিয়া মতবাদে বিশ্বাসী হওয়ায় সম্ভ্রান্ত শিয়া রাজনৈতিক ব্যক্তিদের অন্যায্য প্রশংসা করেছেন। দ্বিতীয়ত, সব সময় ক্ষমতাসীনদের মনোরঞ্জনে লিপ্ত থাকায় তিনি মাঝে মাঝে তাঁর উপকারী ব্যক্তিদের প্রতি অবিশ্বস্ত হয়েছেন, এমনকি বার্তাবহ হিসেবেও তিনি বিশ্বস্ততার সঙ্গে তাঁর দায়িত্ব পালন করেন নি। তৃতীয়ত, তিনি নওয়াব  সিরাজউদ্দৌলার প্রতি শত্রুভাবাপন্ন ছিলেন এবং প্রায়ই তাঁর নিন্দা করে লিখেছেন, যদিও নওয়াব তাঁর প্রতি ছিলেন সহূদয় এবং গ্রন্থকারের পিতা ছিলেন সিরাজের পিতা জৈনুদ্দীনের কর্মচারী। চতুর্থত, গোলাম হোসেনের মনোভাব ছিল সব সময়ই ইংরেজদের পক্ষে। এর কারণ বোধ হয় এই যে, ইংরেজদের শাসন যখন দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত তখন গ্রন্থকার তাঁর গ্রন্থটি রচনা করেছিলেন। এসব সত্ত্বেও সিয়ার-উল-মুতাখ্খেরীন গুরুত্বপূর্ণ একটি গ্রন্থ। কারণ, এটি ভারতে, বিশেষত বাংলা ও বিহারে অতি গুরুত্ববহ রাজনৈতিক পরিবর্তনের সময়ের ঐতিহাসিক সাহিত্যের অভাব পূরণ করে।  [আবদুল করিম]

গ্রন্থপঞ্জি  Ghulam Husain, Siyar-ul-Mutakhkherin, Calcutta, 1833, Raymond Mustapha (tr) Calcutta, 1902; KK Datta, Alivardi and His Times, Calcutta, 1963; MA Rahim, ‘Historian Ghulam Husain Tabatabai’, in the Journal of the Asiatic Society of Pakistan, VIII,  1963.