সন্ন্যাসীর ধাপ


সন্ন্যাসীর ধাপ  বগুড়া জেলার সদর উপজেলার দুটি ঢিবি স্থানীয়ভাবে সন্ন্যাসীর ধাপ নামে পরিচিত। এর একটি মহাস্থানগড়এর প্রায় ২ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে নামুজা ইউনিয়নের বড় ট্যাংরা গ্রামে এবং অপরটি মহাস্থানগড়ের জাদুঘর থেকে প্রায় ৫.৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে গোকুল ইউনিয়নের সরলপুর গ্রামে অবস্থিত। সম্ভবত কোন হিন্দু সন্ন্যাসীর নামানুসারে ঢিবির নামকরণ হয়েছে সন্ন্যাসীর ধাপ।

বড় ট্যাংরা গ্রামের সন্ন্যাসীর ধাপ একটি সমতল শীর্ষের আয়তাকার ঢিবি (আনু.২১৫ মি×১৪৮ মি×৭.৫ মি)। বর্তমানে এটি বাঁশঝাড় ও আমবাগানে আবৃত। ঢিবিটি পূর্ব থেকে পশ্চিমে ক্রমশ ঢালু হয়েছে এবং এক স্থানে এসে তা হঠাৎ করেই খাঁড়াভাবে নিচের দিকে নেমেছে। এই ঢিবির অপেক্ষাকৃত নিচু প্রান্তের সব দিকই স্থানীয় চাষিরা চাষের সুবিধার জন্য সমান করে নিয়েছে। এই ঢিবির চার কোণে বৃষ্টির পানির প্রবাহ যে খাত বা নালার সৃষ্টি করেছে সেখানে ধ্বংসপ্রাপ্ত প্রাচীন ইটের দেওয়াল পরিদৃষ্ট হয়। ঢিবিটির সর্বত্র ভাঙা ইট ছড়িয়ে আছে। সরলপুরের সন্ন্যাসীর ধাপটি তুলনামূলকভাবে ছোট ঢিবি (আনু.৩৩ মি×২৭ মি×৬.৫ মি)। এর চারদিক ক্রমান্বয়ে নিচের দিকে ঢালু হয়ে এসেছে। ঢিবিটির উপরিভাগ সমতল করে স্থানীয় অধিবাসীরা এটিকে ঈদগাহ হিসেবে ব্যবহার করছে।  [মোহাম্মদ আইয়ুব খান]