সংবাদ, দৈনিক


সংবাদ, দৈনিক একটি প্রগতিশীল বাংলা দৈনিক পত্রিকা। এটি প্রথম প্রকাশিত হয় ২ জ্যৈষ্ঠ ১৩৫৮ (১৭ মে ১৯৫১)। সম্পাদক ছিলেন খায়রুল কবির। নাসিরউদ্দিন আহমদ কর্তৃক ইস্ট পাকিস্তান প্রেস, ২৬৩ বংশাল রোড, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত হয়। পৃষ্ঠা সংখ্যা ছিল ৬। মূল্য ২ আনা।

১৯৫৪ সালে মুসলিম লীগের পতনের পর সংবাদের মালিকানা বদল হয়। পত্রিকাটির ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেন আহমেদুল কবির এবং সম্পাদকের দায়িত্বে নিয়োজিত হন জহুর হোসেন চৌধুরী। এ সময় সংবাদে যোগ দেন রণেশ দাশ গুপ্ত, সত্যেন সেন, সন্তোষ গুপ্ত, তোয়াব খান, কামাল লোহানী, মোহাম্মদ ফরহাদ, আলী আকসাদ, বজলুর রহমান প্রমুখ। জন্মলগ্ন থেকে সংবাদ বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও বাঙালি সংস্কৃতি বিকাশে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছে।

প্রাথমিক পর্যায়ে সংবাদ ব্যাপক জনগোষ্ঠীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে নি সত্য, কিন্তু বাম রাজনীতির কর্মীরা সংবাদকে নিজেদের পত্রিকা হিসেবেই ভাবতেন। সংবাদ পত্রিকাটির অন্যতম আকর্ষণীয় পাতা ছিল ‘খেলাঘর’। এ পাতার প্রথম সম্পাদক (ভাইয়া) ছিলেন কবি ও শিশু সাহিত্যিক হাবীবুর রহমান। পরবর্তী সময়ে সম্পাদক হন বজলুর রহমান। পত্রিকাটির অপর একটি উল্লেখযোগ্য পাতা ‘মহিলা পাতা’। সংবাদই দৈনিক পত্রিকাগুলির মধ্যে প্রথম মহিলাদের জন্য পৃথক পাতা বের করে। মহিলা পাতা সম্পাদনা করতেন লায়লা সামাদ। ষাটের দশকে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী, আইয়ুব বিরোধী ছাত্র আন্দোলন ও স্বাধিকার আন্দোলনের প্রতি সংবাদ দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করে।

পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী বরাবরই সংবাদ পত্রিকার প্রতি বিরূপ ছিল। দেশের সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের সঙ্গে সংবাদ একাত্ম ছিল এবং এর দপ্তরে বারবার পুলিশের আক্রমণ হয়েছে। আদর্শের জন্য সংবাদকে চরম মূল্য দিতে হয়েছে ১৯৭১ সালের মার্চে। সংবাদের প্রেস, মেশিনপত্র, অফিস সবই পুড়িয়ে দেওয়া হয়। এ অগ্নিকান্ডে নিহত হন সাংবাদিক শহীদ সাবের।

মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস সংবাদ প্রকাশিত হয় নি। ১৯৭২ সালের ৯ জানুয়ারি পুনরায় এর প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন আহমেদুল কবির। পরবর্তী সময়ে ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হন বজলুর রহমান। আহমেদুল কবির ও বজলুর রহমানের মৃত্যুর পর পত্রিকাটির মালিকানা বদল হয়। [মনু ইসলাম]