শীতলা


শীতলাদেবী

শীতলা  লৌকিক দেবী। বসন্তরোগের দেবী হিসেবে তিনি এক সময় গ্রাম বাংলায় ব্যাপকভাবে পূজিত  হতেন। তখন মানুষের ধারণা ছিল, শীতলার পূজা দিলে বসন্ত রোগ হবে না, বা কোথাও এ রোগ দেখা দিলে পূজার ফলে রোগাক্রমণ থেমে যাবে। কিন্তু বর্তমানে শিক্ষার প্রভাব এবং আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা প্রবর্তনের ফলে শীতলাপূজার সেই গুরুত্ব আর নেই।

মাঘ মাসের শ্রীপঞ্চমীর পরের দিন ‘শীতলা ষষ্ঠী’ নামে প্রসিদ্ধ। এদিন শীতলাদেবীর পূজা হয়ে থাকে। শীতল বা বাসি নৈবেদ্যাদি দিয়ে শীতলার পূজা হয়। স্কন্দপুরাণের পিচ্ছিলাতন্ত্রে শীতলা শ্বেতবর্ণা, গর্দভবাহিনী, দুই হাতে পূর্ণকুম্ভ ও সম্মার্জনীধারিণী হিসেবে বর্ণিত হয়েছেন। সম্মার্জনীর দ্বারা অমৃতময় জল ছিটিয়ে তিনি রোগ-তাপ দূর করে শান্তি স্থাপন করেন বলে ভক্তরা বিশ্বাস করে। [পরেশচন্দ্র মন্ডল]

আরও দেখুন গ্রামদেবতা