শবে বরাআত


শবে বরাআত  মুসলমানদের একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান। হিজরি সনের শাবান মাসের পঞ্চদশ রাতে এ অনুষ্ঠান পালিত হয়। ‘শবে বরাআত’ একটি  ফারসি যৌগিক শব্দ; ‘শব’ অর্থ রাত্রি এবং ‘বরাআত’ অর্থ মুক্তি, যার সম্মিলিত অর্থ দাঁড়ায় মুক্তি পাওয়ার রাত্রি। একে আরবিতে ‘লায়লাতুল বরাআত’ বলা হয়, যার অর্থ মুক্তির রাত্রি। উপমহাদেশে শবে বরাআত প্রধানত সৌভাগ্য রজনী হিসেবে পালিত হয়।

শবে বরাআত উদ্যাপনের বিশেষ তাৎপর্য আছে। মুসলমানদের ধারণা, এ রাতে পরের বছরের ভাগ্য লিপিবদ্ধ হয়; সারা রাত জেগে ইবাদত-বন্দেগি ও আল্লাহ্র নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করলে মানুষের গুনা মাফ হওয়ার আশা করা যায়।

শবে বরাআতের সময় আগরবাতি, মোমবাতি বা বৈদ্যুতিক বাতি দিয়ে সর্বত্র আলোকসজ্জা করা হয়; এ ধরনের কাজ শবে বরাআতের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। শবে বরাআতের দিন হালুয়া-রুটি ইত্যাদি খাবার তৈরি করে প্রতিবেশী ও গরিবদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। মুসল্লিগণ মসজিদে গিয়ে সালাত ও জিকরে রত হন। দিনে সিয়াম ও রাতে নফল  নামায আদায় করা হয়। হাদিসে উল্লেখ আছে যে, নবী করিম (সা.) শাবান মাসের পনের তারিখ রাতে মদিনার জান্নাতুল বকী গোরস্থানে কবর জিয়ারত করেছিলেন এবং উম্মুল মুমিনীল আইশা (রা)-কে এ রাতে ইবাদত করতে বলেছিলেন। শাবানের পনের তারিখে নফল রোজা রাখার বিধান আছে।

আল-কুরআনে শবে বরাআতের উল্লেখ নেই। তবে সূরায়ে দুখানে লায়লা মুবারাকার উল্লেখ আছে। কোনো কোনো তাফসিরকার লায়লা মুবারাকা দ্বারা শবে বরাআতকে বোঝানো হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন।  [মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব]