শবর পা


শবর পা (৮ম শতক)  সহজিয়া বৌদ্ধ সিদ্ধাচার্য ও চর্যাপদকর্তা।  চর্যাপদ সঙ্কলনে শবর পা’র দুটি পদ (২৮, ৫০) আছে। উভয় পদে অরণ্যবাসী শবর-শবরী দম্পতির সাজসজ্জা, প্রেম-মিলন, মদ্যপান, পানোন্মত্ত নৃত্য, মৃত্যুজনিত বিরহ ইত্যাদির চিত্র আছে। এ থেকে অনুমিত হয়, কবি পাহাড়ি শবর অর্থাৎ শিকারোপজীবী ছিলেন। পরবর্তীকালে গুরুর নিকট দীক্ষা নিয়ে ও সাধনায় সিদ্ধি লাভ করে তিনি ধর্মগুরুর মর্যাদা লাভ করেন।

একমতে শবর পা’র দীক্ষাগুরু ছিলেন নাগার্জুন; অন্যমতে সরহ পা তাঁর গুরু ও লুইপা ছিলেন তাঁর শিষ্য। শবর পা’কে বাঙালি এবং বিক্রমশীলার অধিবাসী বলে মনে করা হয়। তাঁর নামে একাধিক  সংস্কৃত গ্রন্থ আছে। তেঙ্গুর তালিকায় উল্লিখিত তিনটি গ্রন্থ হলো: বজ্রযোগিনী সাধনা, মহামুদ্রাবজ্রগীতি ও চিত্তগুহ্য গম্ভীরার্থগীতি। এছাড়া সাধনমালায় উল্লিখিত দুটি গ্রন্থ হলো: সিতকুরুকুল্লা সাধক ও বজ্রযোগিনী আরাধনাবিধি। গ্রন্থগুলি  বজ্রযান বিষয়ক। শবর পা’র নামে আরও অনেক গ্রন্থ প্রচলিত আছে। এ থেকে কেউ কেউ অনুমান করেন যে, শবর পা নামে একাধিক ব্যক্তি ছিলেন। [ওয়াকিল আহমদ]