লবস্টার


রক লবস্টার

লবস্টার  Decapoda বর্গের অধীনে Raptantia উপবর্গের অন্তর্গত সামুদ্রিক বড় ধরনের Crustacea। বাগদা চিংড়ির সাথে এদের কিছুটা মিল রয়েছে।

খাওয়ার উপযোগী  ক্রাস্টেসিয়ানদের মধ্যে লবস্টার একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান অধিকার করে আছে। এদের দেহের সম্মুখভাগ অর্থাৎ শিরোবক্ষ অঞ্চল কণ্টকযুক্ত কাইটিনে তৈরি বড় শিরোবর্ম দ্বারা আবৃত। শিরোবক্ষের সম্মুখভাগে চাবুকের ন্যায় একজোড়া শুঙ্গ (Antennae) বিদ্যমান। চোখ বৃন্তযুক্ত। পাঁচ জোড়া চলন উপাঙ্গ রয়েছে। মাংসল উদর এবং লেজ একটি পশ্চাৎপাখনায় শেষ হয়েছে। প্রধানত নিশাচর, মৃত কিংবা শুকনো মাছ এরা খায়। ময়লা আবর্জনাও এরা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে। লবস্টারের যে অংশটি খাওয়া হয় সে অংশটিকে লবস্টার প্রক্রিয়াকরণ কারখানা ও ভোক্তাদের কাছে ‘লবস্টার লেজ’ নামে পরিচিত। বিলাসী খাদ্য হিসেবে সমস্ত পৃথিবীতে এটি স্বীকৃত।

বাংলাদেশের সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলে লবস্টার পাওয়া যায় এবং চাষের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। এলিফ্যান্ট পয়েন্ট এবং সেন্ট মার্টিন দ্বীপের পশ্চিম দিকের মধ্যবর্তী জায়গায়  চিংড়ি ধরার ট্রলার দিয়ে লবস্টার ধরা হয়।

সাধারণত ৩০ থেকে ৫০ মিটার গভীরতায় এবং ৩৩-৩৬ পিপিটি লবণাক্ততায় লবস্টার পাওয়া যায়। ট্রলারের সাহায্যে প্রাপ্ত এ পর্যন্ত শনাক্ত করা লবস্টারের পাঁচটি প্রজাতি হলো Panulirus polyphagus, P. versicolor, P. homarus homarus, P. ornatus এবং Thenus orientalis

মৎস্য অধিদপ্তরের মান নিয়ন্ত্রণ পরিদর্শন বিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশ ১৯৯১-৯২ সালে হিমায়িত লবস্টার রপ্তানি করে প্রায় ১৭.২ কোটি টাকার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে।  [নূরউদ্দিন মাহমুদ]