লক্ষ্মণমাণিক্য


লক্ষ্মণমাণিক্য  ষোল শতকের শেষভাগে বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার দক্ষিণ অংশে অবস্থিত ভুলুয়ার শাসনকর্তা। রাজ্যটি মেঘনার স্রোতে সম্পূর্ণ ভেসে গেছে, বর্তমানে এর কোন অস্তিত্ব নাই।

ভুলুয়ার ইতিহাস তার পার্শ্ববর্তী দুটি শক্তিশালী প্রতিবেশী, উত্তর-পূর্বের ত্রিপুরা এবং পশ্চিমের চন্দ্রদ্বীপের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত। ভুলুয়ার শাসনকর্তা ছিলেন ত্রিপুরার শক্তিশালী সামন্ত। ভুলুয়ার শাসনকর্তাদের মধ্যে লক্ষ্মণমাণিক্য ছিলেন সবচেয়ে প্রসিদ্ধ। চন্দ্রদ্বীপের কন্দর্পনারায়ণ রায়ের পুত্র ও উত্তরাধিকারী রামচন্দ্রের সাথে তাঁর দ্বন্দ্ব ছিল। রামচন্দ্র একটি ঝটিকা আক্রমণের পরিকল্পনা করেন। তিনি তাঁর যুদ্ধ জাহাজ নিয়ে অগ্রসর হন এবং লক্ষ্মণমাণিক্যকে কৌশলে আটক করেন। রামচন্দ্র যখন তাঁর রাজবন্দিকে দেখতে আসেন তখন লক্ষ্মণমাণিক্য তাঁকে কোন প্রকার সম্মান প্রদর্শন না করলে রামচন্দ্র এই ধৃষ্টতায় ক্ষুব্ধ হন এবং তাঁকে মৃত্যুদন্ড দেন।

লক্ষ্মণমাণিক্যের শাসনকালে ভুলুয়ার প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়। এসময়ে ভুলুয়া ছিল বাংলার শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চার অন্যতম কেন্দ্র।

সংস্কৃত ভাষায় লক্ষ্মণমাণিক্যের দুটি নাটক আছে। এগুলির মধ্যে একটি হলো বিখ্যাতবিজয়, এটি মহাভারত-এ বর্ণিত কর্ণ ও অর্জুনের মধ্যে যুদ্ধের কাহিনী অবলম্বনে রচিত। অন্যটি কুবলয়াশ্বতচরিত, এটি মহাভারত-এ বর্ণিত মদালসা ও কুবলায়শ্ব সম্পর্কিত বর্ণনার ভিত্তিতে লিখিত।  [শাহনাজ হুসনে জাহান]