রামকৃষ্ণ মিশন, কলকাতা


রামকৃষ্ণ মিশন, কলকাতা ধর্মীয় ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। ১৮৯৭ সালের ১ মে স্বামী বিবেকানন্দ শ্রীরামকৃষ্ণের ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের উপস্থিতিতে রামকৃষ্ণ মিশন নামে নতুন সংঘ উদ্বোধন করেন। গঙ্গার অপর তীরে বেলুড় মঠে এর প্রধান কার্যালয় এবং সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এর রয়েছে ১৭১টি কেন্দ্র। এ কেন্দ্রগুলির মাধ্যমে এ মিশন কাজ করে যাচ্ছে। প্রধান কেন্দ্রসহ কলকাতায় এর ১৭টি কেন্দ্র আছে।

কলকাতা রামকৃষ্ণ মিশন

রামকৃষ্ণ মিশন একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং এ প্রতিষ্ঠান সমাজসেবা ও জনহিতকর কাজকে ধর্মীয় সাধনারূপে অনুশীলন করে থাকে। এর কর্মকান্ড সম্পূর্ণ ধর্মীয়, আধ্যাত্মিক, সেবামূলক এবং অরাজনৈতিক। রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের আদর্শ হলো ত্যাগ ও সেবার মাধ্যমে নিজের মুক্তি এবং জগতের কল্যাণ সাধন করা। এর সেবামূলক কাজের বিশেষ ক্ষেত্রগুলির মধ্যে রয়েছে চিকিৎসা, যুব সমাজের জন্য শিক্ষা এবং শিক্ষাব্যবস্থায় তাদের অংশগ্রহণ, নারী উন্নয়ন, পল­ী এবং আদিবাসীদের উন্নয়ন, ত্রাণ ও পুনর্বাসন, আধ্যাত্মিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে গণসংযোগ ও গণশিক্ষা। মিশন সেবাকে জীবনধারণের উপায়রূপে গ্রহণ করে। এ সেবার বৈশিষ্ট্য হলো নিস্বার্থতা, প্রেম, স্বাধীনচিন্তা, সৌভ্রাতৃত্ব, দলগত কর্মপদ্ধতি, সততা ও স্বচ্ছতা, অরাজনৈতিক সমাজসেবা। রামকৃষ্ণ মঠ সম্পূর্ণ সর্বত্যাগী সন্ন্যাসীদের সংঘ। বেলুড় মঠে স্বামী বিবেকানন্দ পরিকল্পিত বিভিন্ন ধর্মীয় সংস্কৃতির সমন্বয়ে গঠিত শ্রীরামকৃষ্ণ মন্দির ও তার একটি সংগ্রহশালা দেশ বিদেশের সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

বিবেকানন্দ বিশ্ববিদ্যালয় বেলুড় মঠের পাশেই এবং প্রতিবন্ধীদের সক্ষমতা সম্প্রসারণ ও তৎসংক্রান্ত শিক্ষণ, সুসংহত গ্রাম উন্নয়ন এবং তার সাথে আদিবাসী উন্নয়ন, ভারতীয় সাংস্কৃতিক ও আধ্যাত্মিক উত্তরাধিকার এবং মূল্যবোধ শিক্ষা এবং বিপর্যয় সংক্রান্ত ব্যবস্থাপনা, ত্রাণ ও পুনর্বাসন ইত্যাদি বিষয়ে মিশনের বিভিন্ন শাখা কেন্দ্রে অনুষদ নিয়ে কাজ করছে।

কলকাতার বিশেষ বিশেষ কেন্দ্রগুলি হচ্ছে ১. রামকৃষ্ণ মিশন ইনস্টিটিউট অব কালচার লাইব্রেরি (২,০০,০০০ পুস্তক), আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক গবেষণা কেন্দ্র, ভাষা শিক্ষাদান কেন্দ্র ১৭টি ভাষা শিক্ষাপ্রদান (ছাত্রছাত্রী ৭০,০০০), ২. রামকৃষ্ণ মিশন সেবা প্রতিষ্ঠান (প্রাক্তন শিশুমঙ্গল প্রতিষ্ঠান), ৫৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল, নার্সিং ট্রেনিং কলেজ, স্নাতকোত্তর চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় ও গবেষণা কেন্দ্র, জনস্বাস্থ্য-সেবা প্রকল্প ইত্যাদি; ৩. রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রম, নরেন্দ্রপুর আবাসিক স্নাতক মহাবিদ্যালয়, লাইব্রেরি (৭৭,৪৪৬ পুস্তক), ব­াইন্ড বয়েজ একাডেমী ও ব্রেইলী প্রেস; বাংলা মাসিক পত্রিকা (সমাজ শিক্ষা), সমাজকল্যাণ ও সমন্বিত পল­ী উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান (লোক শিক্ষা পরিষদ) ইত্যাদি; ৪. উদ্বোধন কেন্দ্র, প্রকাশনা কেন্দ্র, বাংলা পুস্তক ও একটি বাংলা মাসিক (উদ্বোধন পত্রিকা ১১১তম বর্ষ); ৫. অদ্বৈত আশ্রম প্রকাশনা কেন্দ্র ইংরেজি পুস্তক ও একটি ইংরেজি মাসিক পত্রিকা (প্রবুদ্ধ ভারত পত্রিকা ১৮৯৬ থেকে); ৬. বরিশা কেন্দ্রে বৃদ্ধদের বাসযোগ্য আশ্রম; ৭. রহড়ায় ডিগ্রি কলেজ ও অনাথ আশ্রম; ৮. স্বামী বিবেকানন্দের পৈতৃক বাড়ি এবং সংস্কৃতি কেন্দ্র লাইব্রেরি, গবেষণা কেন্দ্র, নন ফরমাল শিক্ষা কেন্দ্র ইত্যাদি।

স্বামী বিবেকানন্দের পরিকল্পনা ও ইচ্ছায় নারীদের জন্য স্বাধীন কেন্দ্র সারদা মঠ (১৯৫৩) এবং পরে রামকৃষ্ণ সারদা মিশন (১৯৬০) প্রতিষ্ঠিত হয় দক্ষিণেশ্বরে। এ সংস্থাও শিক্ষা, চিকিৎসা ও বিবিধ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে। [স্বামী অক্ষরানন্দ]