রাতকানা


রাতকানা (Night blindness)  রাতে স্বল্পআলোয় দেখার অক্ষমতা। চিকিৎসাশাস্ত্রে এ রোগের নাম ‘নিকটালোপিয়া’ (nyctalopia)। ভিটামিন ‘এ’-র অভাবে রাতকানা রোগ হয়। চোখের রেটিনার রডকোষ স্বল্প আলোতে দেখার জন্যে কার্যকর। ভিটামিন ’এ’-র অভাবে এগুলো অন্ধকারের সাথে চোখের খাপ খাইয়ে নেওয়ার ক্ষমতা লোপ পায় এবং পরিণামে রাতের কম আলোতে রোগী দৃষ্টিক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। এছাড়া ভিটামিন ‘এ’-র অভাবে চোখের নিঃসরণ গ্রন্থি ঠিকমতো কাজ না করায় চোখে অত্যধিক শুষ্কতা দেখা দেয়। যদি ঠিকমতো চিকিৎসা না করা হয় তাহলে সম্পূর্ণ অন্ধ হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা থাকে। উন্নয়নশীল দেশসমূহে শিশুদের প্রাক-অন্ধত্বের একটি বড় কারণ হচ্ছে সময়মতো রাতকানা রোগ চিকিৎসা না করা। বাংলাদেশে রাতকানা রোগ অনেক বেশি হয়। সরকার কর্তৃক পরিচালিত একটি সীমিত আকারের জরিপে পরিমিত হিসাবে দেখা গেছে যে, দেশে বছরে প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষ রাতকানা রোগে আক্রান্ত হয়। ভিটামিন ‘এ’-র অভাবে প্রতিদিন প্রায় ৮৮টি শিশু অন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ভিটামিন ‘এ’-সংশি­ষ্ট রাতকানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এক থেকে ছয় বছর বয়সী প্রায় দুই শতাংশ শিশু।

বাংলাদেশে গ্রামে দরিদ্রতার উচ্চহার গ্রাম্য শিশুদের ভিটামিন ‘এ’-র অভাব সৃষ্টির কারণ। পুষ্টিকর খাদ্য খাওয়ানোর মাধ্যমে এ অবস্থার আংশিক উন্নতি ঘটানো যেতে পারে। এজন্য বুকের দুধ পান করানো এবং ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ ও সহজে তৈরি করা যায় এমন সবুজ পাতাযুক্ত শাকসবজি ও ঋতুভিত্তিক ফল খাওয়ানোর সুফল সম্বন্ধে সচেতনতা সৃষ্টি করা যায়। দেশে গ্রামের বসতবাড়ি সংলগ্ন জায়গা এ ব্যাপারে পরিবারের জন্য অল্প খরচ ও অল্প চেষ্টায়  সবুজ শাকসবজি উৎপাদনে খুব ভাল অবদান রাখতে পারে। কারণ এখানকার আবহাওয়া সারাবছর কোন না কোন শাকসবজি ও ফল চাষের জন্য উপযোগী। সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (Expanded Programme of Immunisation/EPI) অংশ হিসেবে পাঁচ বছরের কমবয়সী শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোয় ভাল ফল পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু তবুও এই কর্মসূচির সাফল্য এখনও সন্তোষজনক নয়। তার কারণ দেশের বিভিন্ন অংশ অসমভাবে প্রায় ১৬ থেকে ৮৫ শতাংশ এই কর্মসূচির আওতায় এসেছে।  [জিয়া উদ্দিন আহমেদ]

আরও দেখুন অপুষ্টি; টিকাদান; সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি