রাজ্জাক, আবদুর১


আবদুর রাজ্জাক

রাজ্জাক, আবদুর১ (১৯১৪-১৯৯৯)  শিক্ষাবিদ, জাতীয় অধ্যাপক। ১৯১৪ সালে ঢাকা জেলার নওয়াবগঞ্জ উপজেলার পারাগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পুলিশ কর্মকর্তা আবদুল আলীর পুত্র আবদুর রাজ্জাক রংপুর ও হুগলিসহ বিভিন্ন স্থানে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। তিনি ঢাকার সরকারি মুসলিম হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিক ও ঢাকা কলেজ থেকে আইএ পাস করেন। ১৯৩১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনৈতিক-অর্থনীতি বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৩৬ সালে তিনি প্রথম শ্রেণিতে এমএ পাস করেন। ওই বছরই তিনি রাজনৈতিক-অর্থনীতি বিভাগে লেকচারার পদে যোগদান করেন। পরবর্তী সময়ে এ বিভাগ থেকে অর্থনীতি ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান দুটি পৃথক বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হলে তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে যোগ দেন এবং ১৯৭৫ সালে সিনিয়র লেকচারার হিসেবে অবসর নেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনাকালে তিনি সময় সময় আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগেও অধ্যাপনা করেন।

১৯৫০ সালের প্রথম দিকে আবদুর রাজ্জাক লন্ডন স্কুল অব ইকনমিক্স-এ পড়াশোনা করেন, কিন্তু কোনো ডিগ্রি না নিয়েই দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। বন্ধু-বান্ধব ও সহপাঠীদের মতে তিনি সবসময় পড়াশোনায় একনিষ্ঠ ছিলেন এবং অগাধ জ্ঞান লাভ করেন; কিন্তু ডিগ্রির প্রতি তাঁর তেমন মোহ ছিল না, জাগতিক উন্নতির জন্যও তাঁর কোন আকাঙ্খা ছিল না। তবে আবদুর রাজ্জাক অনুসন্ধিৎসু ব্যক্তিদের জ্ঞানের চাহিদা মেটাতে কার্পণ্য করতেন না। লেখার অভ্যাস তাঁর মোটেই ছিল না। কয়েকটি প্রবন্ধ ও বক্তৃতা ব্যতীত তাঁর কোনো প্রকাশিত লেখা নেই। আবদুর রাজ্জাকের জ্ঞানের পরিধি বিস্তৃত ছিল বিশেষত প্রত্নতত্ত্ব, ইতিহাস ও রাজনীতিতে। এসব বিষয়ের গবেষকগণ তাঁর সান্নিধ্যে আসতেন আলোচনার জন্য।

তাঁর শিষ্যরা তাঁকে ‘শিক্ষকের শিক্ষক’ নামে অভিহিত করতেন। তাঁর অনুগামীদের মধ্যে শুধু বুদ্ধিজীবী নয়, সহ অনেক রাজনৈতিক নেতাও ছিলেন। ১৯৬০-এর দশকে রাজনৈতিক বিরোধিতার কারণে আইয়ুব সরকার তাঁকে একবার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকুরিচ্যুত করতে উদ্যোগী হয়েছিল। অভিযোগ ছিল শিক্ষকতায় অমনোযোগিতা। আদালতে সরকার এ অভিযোগ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় তাঁকে চাকুরিচ্যুত করা সম্ভব হয়নি। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় ‘দেশদ্রোহিতার’ জন্য তাঁকে তাঁর অনুপস্থিতিতে ১৪ বছর সশ্রম কারাদন্ড দেওয়া হয়।

১৯৭৩ সালের প্রথমদিকে ভারতের দিলি­ বিশ্ববিদ্যালয় আবদুর রাজ্জাককে পিএইচডি (honoris causa) ডিগ্রি প্রদান করে। শিক্ষাব্রতী জ্ঞানীদের মধ্যে তাঁর অনন্য মর্যাদার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৫ সালে তাঁকে জাতীয় অধ্যাপক পদে অধিষ্ঠিত করে। ১৯৯৯ সালের ২৮ নভেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়। [মোহাম্মদ মাহমুদুজ্জামান]