রাজপাড়া থানা


রাজপাড়া থানা (রাজশাহী মেট্রোপলিটন)  আয়তন: ২১.৯৫ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৪°২২´ থেকে ২৪°২৪´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮°৩২´ থেকে ৮৮°৩৫´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিমে পবা উপজেলা, পূর্বে বোয়ালিয়া থানা। এ থানার উল্লেখযোগ্য অংশ পদ্মা নদীর দখলে।

জনসংখ্যা ১০৭৭১২; পুরুষ ৫৭৪৪২, মহিলা ৫০২৭০। মুসলিম ১০০২১৪, হিন্দু ৫৩৯৫, বৌদ্ধ ১৮৫১, খ্রিস্টান ৪৭ এবং অন্যান্য ২০৫।

জলাশয় পদ্মা নদী।

প্রশাসন রাজশাহী জেলার পবা উপজেলা ও বোয়ালিয়া থানার অংশবিশেষ নিয়ে ১৯৯২ সালের ১ জুলাই রাজপাড়া থানা গঠিত হয়।

থানা
ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন মহল্লা জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
৭+২ (আংশিক) ৪৬ ১২১০৭৬ - ৪৮০৭ ৬৯.৩০ -
ওয়ার্ড
ওয়ার্ড নম্বর আয়তন (বর্গ কিমি) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
ওয়ার্ড নং ১ ২.৮৯ ৭৩৯৬ ৬৯৯৫ ৬১.৬৬
ওয়ার্ড নং ২ ৪.৫০ ৭৮২৯ ৭৩৬০ ৫৬.৭২
ওয়ার্ড নং ৩ ২.৩৮ ৬২৬১ ৫৭৪৮ ৫৯.৭৫
ওয়ার্ড নং ৪ ৫১৮৪ ৪৫৮১ ৭৬.৯৮
ওয়ার্ড নং ৫ ১.৯৬ ৭০৬৯ ৬৯৮২ ৭৭.২৯
ওয়ার্ড নং ৬ ২.৭৫ ৭৩২৬ ৬৬০৬ ৬৮.৮২
ওয়ার্ড নং ৭ ৩.১২ ৮১৬২ ৪৫৩৮ ৬৯.২৬
ওয়ার্ড নং ১০ (আংশিক) ০.৫০ ২৫৩৩ ২৪৩১ ৭৮.৯৭
ওয়ার্ড নং ১৪ (আংশিক) ১.৮৫ ৫৬৮২ ৫০২৯ ৭৪.২৮

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

RajparaThana.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ লক্ষ্মীপুর শাহী জামে মসজিদ (ষোড়শ শতক)।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ রাজশাহী পুলিশ লাইনে বাঙালি পুলিশবাহিনীর সঙ্গে পাকবাহিনীর তিন ঘণ্টাব্যপী যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে বহু পুলিশ শহীদ হন।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান  মসজিদ ৯১, মন্দির ২, গির্জা ২।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৬৯.৭০%; পুরুষ ৭২.৮১%, মহিলা ৬৬.১৬%। মেডিকেল কলেজ ১, কলেজ ৫, লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ১, টিচার্স ট্রেনিং কলেজ ১, গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ ১, প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট ১, প্যারামেডিকেল ইনস্টিটিউট ১, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২৮, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫৫, কিন্ডার গার্টেন ১৫, মাদ্রাসা ৮। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান:  রাজশাহী মেডিকেল কলেজ।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান লাইব্রেরি ২, ক্লাব ১৫, টেনিস কমপ্লেক্স ১, চিড়িয়াখানা ১, পার্ক ১, সিনেমা হল ১, মিলনায়তন ৩।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৫.৬২%, অকৃষি শ্রমিক ৩.৪৬%, ব্যবসা ২৪.৬৫%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৮.০৩%, চাকরি ৩৮.৭৬%, নির্মাণ ৪.২৩%, ধর্মীয় সেবা ০.১৪%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ১.৫২% এবং অন্যান্য ১৩.৫৯%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৪০.১৯%, ভূমিহীন ৫৯.৮১%।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, গম, ভুট্টা, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি খেসারি, যব।

প্রধান ফল-ফলাদি আম, লিচু, কাঁঠাল, জাম, পেঁপে, কলা।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার হাঁস-মুরগি ৩৫, মৎস্য ২।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৩০ কিমি, আধা-পাকারাস্তা ১৫ কিমি, কাঁচারাস্তা ৬০ কিমি; নৌপথ ৩ নটিক্যাল মাইল; রেলপথ ৪.৭ কিমি। রেলস্টেশন ১।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন গরু ও ঘোড়ার গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা আইসক্রিম ফ্যাক্টরি, চালকল, ওয়েল্ডিং কারখানা।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ১৩।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য  ধান, চাল, আম, লিচু, শাকসবজি।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ওয়ার্ড বিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৭৪% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৮৬.৮১%, পুকুর ০.০৫%, ট্যাপ ১১.৮৮% এবং অন্যান্য ১.২৬%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ৭৭.৩৪% পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ১৯.২০% পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ৩.৪৬% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র হাসপাতাল ২, পারিবারিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র ১, ডায়াবেটিক হাসপাতাল ১, ক্লিনিক ১২।

এনজিও ব্র্যাক, আশা, কারিতাস।  [মো. মাহবুবর রহমান]

তথ্যসূত্র  আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।