মোল্লাহাট উপজেলা


মোল্লাহাট উপজেলা (বাগেরহাট জেলা)  আয়তন: ১৮৭.৮৮ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২২°৪৮´ থেকে ২২°৫৯´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯°৪০´ থেকে ৮৯°৫৭´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে কালিয়া উপজেলা, দক্ষিণে ফকিরহাট ও চিতলমারী উপজেলা, পূর্বে চিতলমারী, টুঙ্গিপাড়া ও গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা, পশ্চিমে তেরখাদা ও রূপসা উপজেলা।

জনসংখ্যা ১২৬২১৮; পুরুষ ৬৪৭৩১, মহিলা ৬১৪৮৭। মুসলিম ৯৮৯৭০, হিন্দু ২৭১৫১, বৌদ্ধ ৬৭ এবং অন্যান্য ৩০।

জলাশয় মধুমতি, চিত্রা, নালুয়া ও আঠারোবাঁকী নদী এবং কেন্দুয়ার বিল, কোদালিয়ার বিল ও কাটাগাঙ উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন মোল্লাহাট থানা গঠিত হয় ১৮৬৭ সালে এবং থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয় ২ জুলাই ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
- ৫৯ ১০২ ১১৭১২ ১১৪৫০৬ ৬৭২ ৫৩.৩ ৪৮.৪
উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৮.৭৯ ১১৭১২ ১৩৩২ ৫৩.৩
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
আটজুরি ০৯ ৬৬৯১ ১০৪৬৫ ১০৬৪৭ ৫০.৬২
উদয়পুর ৯৫ ৫৬৬৭ ১১১৭৮ ১০৭৬৬ ৫৩.৭৩
কুলিয়া ৮৫ ৪৩০৯ ৮৮৩৪ ৮২৬৭ ৪৪.৮০
কোদালিয়া ৭৬ ৭৬১৯ ৯৩৯০ ৯০২৩ ৪৭.৪৫
গাওলা ৪৭ ১০১৩৮ ৭৪৫১ ৬৮৩৪ ৬১.১০
গাঙনী ৩৮ ৩৮৩৩ ৯১৯৬ ৮৩৮৫ ৪১.৫২
চুনখোলা ২৮ ৫৪১৬ ৮২১৭ ৭৫৬৫ ৪১.৭৭

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

MollahatUpazila.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ এক গম্বুজ মসজিদ (কুলিয়া ইউনিয়ন)।

ঐতিহাসিক ঘটনাবলি  ১৯৪৩-৪৪ সালে কালোবাজারি ও অন্যান্য কারণে জাল তৈরির সুতা বাজারে পাওয়া যাচ্ছিল না এবং এই কৃত্রিম সংকটের ফলে মৎস্যজীবীরা কর্মহীন হয়ে পড়ায় কৃষক সমিতির নেতৃত্বে আন্দোলন শুরু করে। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় মোল্লাহাটের চাকুলিয়ায় মুক্তিবাহিনীদের সঙ্গে পাকবাহিনীর সম্মুখ লড়াইয়ে পাকবাহিনীর একজন ক্যাপ্টেনসহ প্রায় দুই শতাধিক পাকসেনা নিহত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ ১ (চাকুলিয়া)।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান  মসজিদ ২৬৭, মন্দির ৭২, গির্জা ২। উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: উত্তর কুলিয়া এক গম্বুজ মসজিদ, উদয়পুর জামে মসজিদ, মোল্লাহাট কোর্ট মসজিদ, উদয়পুর আড়ুয়া কান্দি বায়তুল আমান জামে মসজিদ, দত্তপাড়া কালী মন্দির, দক্ষিণ আমবাড়ি কালী মন্দির, মাটিয়ার গাজী মন্দির।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৪৮.৯%; পুরুষ ৫১.৫%, মহিলা ৪৬.১%। কলেজ ৪, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২১, প্রাথমিক বিদ্যলিয় ১০২, মাদ্রাসা ১০। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: খলিলুর রহমান ডিগ্রি কলেজ (১৯৬৮), সাচিয়াদহ চুনখোলা এম বি মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯১৬), আংরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (১৯১৮), মাদারতলী সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় (১৯২৮), উদয়পুর জামিয়া হালিমিয়া দারুল উলুম মাদ্রাসা (১৯২০)।

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী সাপ্তাহিক: মোল্লাহাট বার্তা (অবলুপ্ত)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ক্লাব ৭, খেলার মাঠ ২০।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৯.১৭%, অকৃষি শ্রমিক ২.৫৮%, শিল্প ০.৮৩%, ব্যবসা ১০.৩৮%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৩.২৪%, চাকরি ৬.৭৭%, নির্মাণ ০.৫৯%, ধর্মীয় সেবা ০.৪০%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.৫৯% এবং অন্যান্য ৫.৪৫%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৬৪.৫৮%, ভূমিহীন ৩৫.৪২%। শহরে ৪৫.৬২% এবং গ্রামে ৬৬.৫১% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, পাট, আখ, গম, তিল, পান, ডাল, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলূপ্তপ্রায় ফসলাদি  তামাক।

প্রধান ফল-ফলাদি আম, কাঁঠাল, কলা, পেঁপে, নারিকেল, সুপারি।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার চিংড়ি ঘের ১০০০০, হাঁস-মুরগি ১৫৯।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৪৯.৪৮ কিমি, আধা-পাকারাস্তা ১২ কিমি, কাঁচারাস্তা ১৮৯.৫৯ কিমি; নৌপথ ১১.৩৪ নটিক্যাল মাইল।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গরুর গাড়ি, ঘোড়ার গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা আইস ফ্যাক্টরি, বিড়ি কারখানা, স’ মিল, রাইস মিল।

কুটিরশিল্প স্বর্ণশিল্প, লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, সূচিশিল্প, বাঁশের কাজ, কাঠের কাজ, বেতের কাজ, নকশি কাঁথা, নকশি পাখা, খেজুর পাতার পাটি।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৩৩, মেলা ৪। গড়কা হাট, নগরকান্দি হাট, নাশুয়াখালি হাট, কোদালিয়া হাট ও চাঁদের হাট এবং পদ্মডাঙ্গার কালী পূজার মেলা উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য  পান, আখ, খেজুর গুড়, নারিকেল, সুপারি, কলা, পেঁপে, মাছ।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৩০.৮৬% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯৪.৭৮%, পুকুর ২.৫০%, ট্যাপ ১.২৪% এবং অন্যান্য ১.৪৮%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ২২.৭৮% (গ্রামে ২৩.৭৪% এবং শহরে ১৩.৩০%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৬৭.৪৭% (গ্রামে ৬৫.৯২% এবং শহরে ৮২.৬৬%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। তবে ৯.৭৫% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১, ইউনিয়ন পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ৬, ক্লিনিক ১।

এনজিও ব্র্যাক, আশা, কেয়ার।  [তাপস কুমার বিশ্বাস]

তথ্যসূত্র  আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; মোল্লাহাট উপজেলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।