মাজরাপোকা


মাজরাপোকা (Stem borer)  ফসলের ক্ষতিকর পতঙ্গ। পোষক উদ্ভিদের কান্ড ছিদ্র করে ও অভ্যন্তরীণ কোষকলা খেয়ে এরা বড় হয়। মাজরা পোকার অধিকাংশই Lepidoptera বর্গের Pyralidae ও Noctuidae গোত্রের প্রজাতি। এদের লার্ভা কান্ডে ছিদ্র করে ভিতরে ঢুকে মজ্জা খেয়ে গাছের ক্ষতি করে।

মাজরাপোকা

ক্ষতিকর কীটপতঙ্গের মধ্যে সম্ভবত মাজরা পোকা সর্বাধিক অনিষ্টকর এবং অধিকাংশ ফসল, বিশেষত দানাশস্য একাধিক প্রজাতির মাজরা পোকা দ্বারা আক্রান্ত হয়। নির্দিষ্ট ফসল আক্রমণকারী বিভিন্ন প্রজাতির আপেক্ষিক গুরুত্ব দেশভেদে পৃথক হয়ে থাকে এবং তা ফসলের জাত ও পোকার প্রাচুর্যের উপর নির্ভর করে। পূর্ণবয়স্ক মথ পাতা বা পাতার খাপের উপর গুচ্ছ গুচ্ছ ডিম পাড়ে। অধিকাংশ মাজরা পোকার জীবনচক্রের ধরন অল্পবিস্তর অভিন্ন। নবজাত লার্ভা পাতার খাপে ঢোকে, অতঃপর কান্ডে ছিদ্র করে ভিতরে পৌঁছে সেখানেই লার্ভা পর্যায় কাটায়। কান্ডে ঢোকার ধরন প্রজাতিভেদে ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই লার্ভা পিউপায় পরিণত হওয়ার আগে নির্গমনের জন্য ছিদ্র করে রাখে, যাতে পিউপা পর্যায় শেষে নতুন মথ বাইরে আসতে পারে।

বাংলাদেশে ধান, ভুট্টা, গম ও আখের মাজরা পোকার শনাক্তকৃত প্রজাতি এক ডজনেরও বেশি। একই প্রজাতি কখনও কখনও একাধিক ফসল আক্রমণ করে। বাংলাদেশ ও পাশ্ববর্তী দেশগুলিতে Pyralidae গোত্রভুক্ত কিছু মাজরা পোকার শনাক্তি সম্পর্কে বিভ্রান্তি রয়েছে। বিভিন্ন দানাশস্যের প্রধান প্রধান মাজরা পোকার একটি তালিকা নিচে উল্লেখ করা হলো।

সারণি  Lepidoptera বর্গের অন্তর্ভুক্ত বাংলাদেশের দানাশস্যের প্রধান মাজরা পোকা।

ফসলের নাম  মাজরা পোকার সাধারণ নাম   বৈজ্ঞানিক নাম গোত্র
ধান Yellow stem borer Scirpophaga incertulus Pyralidae
Dark-headed stem borer Chilo polychrysa Pyralidae
Pale-headed stem borer C. suppressalis Pyralidae
Pink stem borer Sesamia inferens Noctuidae
ভুট্টা Maize stem borer Sesamia inferens Pyralidae
Pink stem borer Chilo partellus Noctuidae
গম Pink stem borer Sesamia inferens Noctuidae
আখ Top shoot borer Scirpophaga nivella Pyralidae
S. excerptalis Pyralidae
Early shoot borer Chilo infuscatellus Pyralidae
Stem borer C. tumidicostalis Pyralidae
Root stock borer Emmalocera depressalis Pyralidae
Pink borer Sesamia inferens Noctuidae

মাজরা পোকা সংক্রমণের সর্বাধিক সুস্পষ্ট লক্ষণ হলো ডেডহার্ট (dead heart) বা বিবর্ণ ডগা ও বাড়ন্ত গাছের শাখায়ন। আক্রান্ত  ধানের শিষে থাকে পুষ্ট ধানের বদলে কেবল চিটা বা আংশিক চিটা।

বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মাজরা পোকা আক্রমণের বিক্ষিপ্ত খবর পাওয়া যায়। অধিক প্রকোপ দেখা যায় দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলীয় জেলাগুলিতে, যেখানে বিশেষভাবে অবিরাম ফসলচাষ চলে। বছরে ঋতুভেদের উপর বিভিন্ন প্রজাতির আপেক্ষিক গুরুত্ব নির্ভর করে। গম ও ভুট্টার মাজরা পোকার আক্রমণ ততটা মারাত্মক নয়। আখের ডগার মাজরা পোকার আক্রমণ প্রায়শ নতুন লাগান চারা ও পুরানো ফসলের (ratoon crop) যথেষ্ট ক্ষতি করে।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মাজরা পোকার ব্যাপারে ফসলের প্রতিরোধ ক্ষমতা নিষ্ফল প্রমাণিত হয়েছে। বিভিন্ন ফসলের, বিশেষত ধানের মাজরা পোকা দমনের জন্য বাংলাদেশে পঞ্চাশের দশকের শুরু থেকেই অনেকগুলি কীটনাশক ব্যবহূত হচ্ছে। পাতায় ছিটানো ও দানাদার উভয় ধরনের কীটনাশক, বিশেষত ডায়াজিনন, বাইড্রিন, ডাইমেক্রন, লেবাইসিড, বাসুডিন ও সেভিডল ব্যাপকভাবে ব্যবহূত হয়েছে।  [এস.এম হুমায়ুন কবির]