মতিঝিল থানা


মতিঝিল থানা (ঢাকা মেট্রোপলিটন)  আয়তন: ৩.৬৯ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৩°৪৩´ থেকে ২৩°৪৪´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০°২৪´ থেকে ৯০°২৫´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে রমনা, রামপুরা ও খিলগাঁও থানা, দক্ষিণে সূত্রাপুর থানা, পূর্বে খিলগাঁও ও সবুজবাগ থানা এবং পশ্চিমে পল্টন ও রমনা থানা।

জনসংখ্যা ২২৫৯৯৯; পুরুষ ১৩৩১৫১, মহিলা ৯২৮৪৮। মুসলিম ২১৫৯৭০, হিন্দু ৯৩০৩, বৌদ্ধ ৪১৫, খ্রিস্টান ২৬৮ এবং  অন্যান্য ৪৩।

প্রশাসন ১৯৭৬ সালে মতিঝিল থানা গঠন করা হয়।

থানা
ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন মহল্লা জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
৫+১ (আংশিক) ২৩ ২২৫৯৯৯ - ৬১২৪৬ ৭৬.২২ -
ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন
ওয়ার্ড নম্বর ও ইউনিয়ন আয়তন (বর্গ কিমি) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
ওয়ার্ড  নং-৩১ ০.৮৪ ১৯৫৬৩ ১২২৩৯ ৭৪.১৪
ওয়ার্ড  নং-৩২ ০.৮৬ ২৮৫০৯ ১২১৫৫ ৭৪.২৫
ওয়ার্ড  নং-৩৩ ০.৪৫ ১৬৭০৬ ১৪০৫৪ ৮০.৪৫
ওয়ার্ড  নং-৩৪ ০.৮৪ ৩৫৩৭৫ ২৮৫৩১ ৭৭.০৭
ওয়ার্ড  নং-৩৫ ০.৫২ ৩০৩৪৮ ২৩৪৮৪ ৭১.২২
ওয়ার্ড  নং-৫৩ (আংশিক) ০.১৮ ২৬৫০ ২৩৮৫ ৮০.২৩

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

MotijheelThana.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের সন্নিকটে পীর জঙ্গীর (র.) মাযার এবং উত্তর শাহাজানপুরস্থ শাহ আমীর আলী বোগদাদীর (র.) মাযার।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি ১৯৭১ সালে পাকবাহিনী মতিঝিল থানায় ব্যাপক হত্যাযঞ্জ চালায় এবং লুটপাট করে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের নিকটের এজিবি কলোনির পাওয়ার হাউজটি ১৯৭১ সালের জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে মুক্তিযোদ্ধারা ধ্বংস করে পাকসেনাদের বিপদগ্রস্থ করে তোলে।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন গণকবর ১ (দক্ষিণ কমলাপুর); ভাস্কর্য: বলাকা ভাস্কর্য (কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন) ও শাপলা চত্বর (বাংলাদেশ ব্যাংকের সমনে)।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান  মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মসজিদ, শাহজাহানপুর আমতলা মসজিদ, পীরগঞ্জ মাযার মসজিদ উল্লেখযোগ্য।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৭৬.২২%; পুরুষ ৮১.৩৪%, মহিলা ৬৮.৬২%। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: নটরডেম কলেজ, আবুজর গিফারী কলেজ, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, মতিঝিল মডেল হাইস্কুল এন্ড কলেজ, মতিঝিল টিএন্ডটি স্কুল এন্ড কলেজ, মিরাজ আববাস ডিগ্রি কলেজ ও প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক হাইস্কুল, পোস্ট অফিস হাইস্কুল, মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, শান্তিবাগ হাইস্কুল, শাহজাহানপুর রেলওয়ে স্কুল।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ক্লাব, সিনেমা হল, কমিউনিটি সেন্টার, খেলার মাঠ। মধুমিতা সিনেমা হল উল্লেখযোগ্য।

গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা বাংলাদেশ ব্যাংক, পূবালি ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংকসহ আরও অনেক ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় এখানে অবস্থিত। বঙ্গভবন, আমেরিকান লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ, জীবন বীমা ভবন, বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্স অফিস, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ, সাধারন বীমা কর্পোরেশন, বাংলাদেশ জুট ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন, বিদ্যুৎ ও পানি উন্নয়নবোর্ডসহ অনেক সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় অবস্থিত। এছাড়াও রাজউক ভবন এ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী আধুনিক শিল্প নির্দশন হিসাবে পরিচিত।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ০.৮২%, অকৃষি শ্রমিক ০.৫২%, শিল্প ১.৫৭%, ব্যবসা ২৫.৪২%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৩.৫১%, নির্মাণ ১.১৮%, ধর্মীয় সেবা ০.১২%, চাকরি ৫৩.০৯%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ৩.৮৫% এবং  অন্যান্য ৯.৯২%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৬৯.৮১%, ভূমিহীন ৩০.১৯%।

যোগাযোগ বিশেষত্ব মোট সড়ক ৫০১ কিমি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গরু ও ঘোড়ার গাড়ি।

বাজার  শাহাজানপুর বাজার।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য  তৈরি পোশাক।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ থানার সবক’টি ওয়ার্ড বিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৯৭.০৩% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৫.৩৪%, পুকুর ০.০৪%, ট্যাপ ৯৩.৪৩% এবং অন্যান্য ১.১৯%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা ৯৫.৩৫% পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৩.৯১% পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ০.৭৪% পরিবারের  কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র ইসলামী ব্যাংক ও প্যান প্যাসিফিক হাসপাতাল, বারাকা জেনারেল হাসপাতাল, এজিবি কলোনি হাসপাতাল।

এনজিও ব্র্যাক, কারিতাস।  [মো. আবু হাসান ফারুক]

তথ্যসূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।