বিশ্বনাথ কবিরাজ


বিশ্বনাথ কবিরাজ (১৪শ শতক)  সংস্কৃত আলঙ্কারিক ও কবি। তাঁর পিতা চন্দ্রশেখরও ছিলেন একজন সংস্কৃত পন্ডিত এবং পিতামহ নারায়ণ ছিলেন কলিঙ্গরাজ নরসিংহের সভাসদ। বিশ্বনাথের বাঙালিত্ব নিয়ে মতদ্বৈধ থাকলেও অধিকাংশের মতে তিনি বঙ্গদেশেরই অধিবাসী ছিলেন এবং তাঁর সময় মোটামুটিভাবে ১৩০০-১৩৮০ খ্রিস্টাব্দ মনে করা হয়। সংস্কৃত কাব্য-আলোচনায় তিনি ছিলেন রসবাদের সমর্থক। ‘বাক্যং রসাত্মকং কাব্যম্’ (সরস বাক্যই কাব্য) কাব্যের এই সহজ-সরল অথচ সর্বজনগ্রাহ্য সংজ্ঞা তাঁরই বিখ্যাত অলঙ্কারগ্রন্থ সাহিত্যদর্পণের অন্তর্ভুক্ত।

সাহিত্যদর্পণ অলঙ্কারশাস্ত্রের সকল বিষয় এমনকি নাট্যশাস্ত্রের বিষয় নিয়েও রচিত। এটি পূর্বভারতের সর্বাধিক আলোচিত ও পঠিত একখানা অলঙ্কারগ্রন্থ এবং এখনও  পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে সংস্কৃত শিক্ষার পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত। বাংলা  কাব্য সমালোচনায়ও এর গুরুত্ব অনেক। গ্রন্থটি দশটি পরিচ্ছেদে বিভক্ত এবং পরিচ্ছেদগুলিতে যথাক্রমে কাব্যস্বরূপ, বাক্যস্বরূপ, রস, কাব্যভেদ, ব্যঞ্জনা, দৃশ্য ও শ্রব্য কাব্য, কাব্যদোষ, গুণ, রীতি ও অলঙ্কার আলোচিত হয়েছে।

বিশ্বনাথ কয়েকটি কাব্যনাটকও রচনা করেছেন। সেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: কুবলয়াশ্বচরিত (প্রাকৃত কাব্য), রাঘববিলাস, চন্দ্রকলা (নাটিকা), প্রভাবতীপরিণয় (নাটিকা), প্রশস্তিরত্নাবলী (করম্ভক) ইত্যাদি। কবিত্বশক্তি ও পান্ডিত্যের জন্য তিনি উৎকল রাজসভা থেকে ‘কবিরাজ’ উপাধি লাভ করেন। [মনোরঞ্জন ঘোষ]