বিবি মরিয়মের সমাধি


বিবি মরিয়মের সমাধি  নারায়ণগঞ্জের হাজীগঞ্জ মহল্লায় বিবি মরিয়ম মসজিদের পূর্বদিকে অবস্থিত। চারদিকে প্রাচীর বেষ্টিত উঁচু ভিতের উপর একটি চতুর্ভুজাকৃতির বেদীর মধ্যস্থলে সৌধটি স্থাপিত। সৌধটি বর্তমানে ভগ্নপ্রায় অবস্থায় রয়েছে। এক গম্বুজ বিশিষ্ট বর্গাকার এই ইমারতটির চারপাশ ঘিরে রয়েছে খিলান ছাদ বিশিষ্ট বারান্দা। খিলান ছাদ এখন ভেঙ্গে পড়লেও খিলান শোভিত প্রবেশপথসহ দেয়ালের অংশবিশেষ এখনও টিকে আছে। সৌধের মধ্যবর্তী বর্গাকার কক্ষে রয়েছে শ্বেত পাথরে লতাপাতার নকশা শোভিত তিন ধাপ বিশিষ্ট সমাধি। শিরোভাগে ইটের তৈরি কবর-ফলক। সৌধের চারপাশের বারান্দা জুড়ে রয়েছে জানা অজানা আম লোকের সমাধি।

সৌধে সমাহিত বিবি মরিয়মের পরিচয় নিয়ে মতবিরোধ রয়েছে। সৌধের খাঁড়া আকৃতির গম্বুজ এবং অপরাপর স্থাপত্য বৈশিষ্ট্যের নিরীখে আহমদ হাসান দানী এই সৌধকে ঢাকার লালবাগ দুর্গ প্রাঙ্গণে ইরান দখ্ত ওরফে বিবি পরীর সমাধিসৌধের সমগোত্রীয় বলে মনে করেন, এবং তিনি এই বিবি মরিয়মকে বাংলার মুগল সুবাদার শায়েস্তা খানের কন্যা এবং ইরান দখ্তের ভগ্নি  তুরান দখ্তের সঙ্গে অভিন্ন বলে মনে করেন। কিন্তু সৈয়দ মোহাম্মদ তাইফুরের মতে এই সমাধিসৌধটি ঈসা খান মসনদ-ই-আলার পত্নী জনৈক মরিয়ম খাতুনের সমাধিরূপে নির্দেশিত। দুটি কারণে তাইফুরের মতকে কিছুটা বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়। প্রথমত, হাজীগঞ্জ কেল্লা প্রাঙ্গণের অন্তর্ভুক্ত বর্তমান স্থলটি খিজিরপুরের সঙ্গে অভিন্ন এবং এই খিজিরপুর ছিল ঈসা খানের সুরক্ষিত দুর্গবেষ্টিত নগরী, সামরিক ও নৌঘাটি; দ্বিতীয়ত বিবি মরিয়মের সমাধিসৌধের স্থাপত্য রীতি প্রচলিত শায়েস্তাখানি স্থাপত্য রীতি থেকে ভিন্নতর।  [মুয়ায্‌যম হুসায়ন খান]