পোগসন, ক্যাপটেন


পোগসন, ক্যাপটেন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সেনাবাহিনীর সদস্য। তিনি তাঁর লিখিত ভ্রমণ বৃত্তান্তের জন্য খ্যাত। আয়ারল্যান্ডবাসী পোগসন ১৮০৫ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে কলকাতা আসেন। ২৬ বছর চাকরির পর তিনি ক্যাপ্টেন পদে উন্নীত হন। তাঁর লেখা ভ্রমণকাহিনীতে উনিশ শতকের বাংলাদেশের একটি অঞ্চলের ভৌগোলিক ও আর্থ-সামাজিক বিবরণ পাওয়া যায় যা সামাজিক ইতিহাস রচনার উপাদান হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।

চট্টগ্রামে সরকারি চাকরি হতে অবসরপ্রাপ্ত অনেক দেশিয় লোক ছিলেন। তদন্ত করে তাদের বকেয়া মেটানোর দায়িত্ব দিয়ে পোগসনকে চট্টগ্রাম পাঠানো হয়। চট্টগ্রাম থেকে ফিরে পোগসন একটি ভ্রমণকাহিনী লিখেন। এটি ১৮৩১ সালে Captain Pogson’s Narrative During a Tour to Chatgaon, 1831 নামে শ্রীরামপুর থেকে প্রকাশিত হয়। পোগসন ব্যারাকপুর, সুন্দরবন, খুলনা, কেশবপুর, নলছিটি, হাতিয়া, সন্দ্বীপ হয়ে চাটগাঁয় পৌঁছেছিলেন। এই জলপথ ও আশেপাশের অঞ্চলের বিবরণ তাঁর ভ্রমণকাহিনীতে পাওয়া যায়। নিত্য ব্যবহার্য পণ্য ও খাদ্যের দামও এ বিবরণ থেকে জানা যায়। তিনি সুন্দরবন এলাকায় পাঁচ পয়সায় একটি মুরগি এবং ছয় আনায় দুটি রুই মাছ, এক ডজন বড় গলদা চিংড়ি ও এক ঝুড়ি পাঁচমিশালী মাছ কিনেছিলেন।

চট্টগ্রামের ভৌগোলিক, শিক্ষা, কৃষি ও অন্যান্য বিষয়ে কৌতূহলোদ্দীপক বিবরণ রেখে গেছেন পোগসন। খুলনা থেকে চাটগাঁ যাওয়ার পথে তিনি এ অঞ্চলের নৈসর্গিক দৃশ্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ দেখে যেমন বিমোহিত হয়েছেন তেমনি জনগণের দুর্গতি দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।  [মুনতাসীর মামুন]