পিয়াইন নদী


পিয়াইন নদী (Piyain River)  আসামের উমগট নদী থেকে  এর উৎপত্তি। পার্বত্য আসাম থেকে উদ্ভূত হয়ে উমগট নদী দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে সিলেট জেলার শনগ্রাম বর্ডার পোস্টের কাছ দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। প্রবেশ পথেই উমগট দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। প্রধান শাখাটি পিয়াইন নামে এবং অন্য শাখাটি ডাউকি বা জাফলং নামে প্রবাহিত হয়। সুরমা নদীর এই উপনদীটি বাংলাদেশে প্রবেশের পর আন্তর্জাতিক সীমানা বরাবর পশ্চিম দিকে প্রায় ৭ কিমি প্রবাহিত হয়ে প্রতাপপুর বর্ডার আউটপোস্টের কাছে গতি কিঞ্চিৎ পরিবর্তন করে দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে প্রবাহিত হয়ে ছাতকের কাছে সুরমা নদীর সঙ্গে মিলিত হয়। প্রতাপপুর বর্ডার আউটপোস্ট বা রত্নের ভাঙ্গা-এর কাছে নদীটি তিন শাখায় বিভক্ত। শাখাগুলি হচ্ছে- পুরানো পিয়াইন, পবিত্রডালা ও নয়াডালা। বর্তমানে পিয়াইন নদীর মূল প্রবাহ নয়াডালার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ভাটিতে শারিগোয়াইনের সঙ্গে মিলিত হয়েছে। পুরানো পিয়াইন এবং পবিত্রডালা শুধুমাত্র বর্ষা মৌসুমে জলপ্রবাহ লাভ করে থাকে।

পিয়াইন নদীর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ১৪৫ কিমি। জাফলং থেকে ছাতক পর্যন্ত প্রায় ৮০ কিমি পথে এর ২২টি বাঁক রয়েছে। পাহাড়িয়া নদী বলে পিয়াইন-এ পাহাড়ি ঢল নামে এবং আকস্মিক বন্যা হয়ে থাকে। ঢল বা বন্যার পানির সাথে উজান থেকে প্রচুর পরিমাণে পাথরও আসে।  [মাসুদ হাসান চৌধুরী]