নবীগঞ্জ উপজেলা


নবীগঞ্জ উপজেলা (হবিগঞ্জ জেলা)  আয়তন: ৪৩৯.৬২ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৪°২৫´ থেকে ২৪°৪১´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°২৪´ থেকে ৯১°৪০´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে দিরাই ও জগন্নাথপুর উপজেলা, দক্ষিণে হবিগঞ্জ সদর ও বাহুবল উপজেলা, পূর্বে শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার সদর ও বালাগঞ্জ উপজেলা, পশ্চিমে বানিয়াচং উপজেলা।

জনসংখ্যা ২৮৭০৩০; পুরুষ ১৪৫৪৮৫, মহিলা ১৪১৫৪৫। মুসলিম ২৩৬৮১৫, হিন্দু ৪৯৮৩৮, বৌদ্ধ ১২, খ্রিস্টান ৬২ এবং অন্যান্য ৩০৩।

জলাশয় প্রধান নদী: বরাক, লংলা বিজনী, বিবিয়ানা, ডিমা ও কুলকুলিয়া। জুরা বিল, কুলিয়াভাঙ্গা বিল ও গঞ্জুয়া বিল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন নবীগঞ্জ থানা গঠিত হয় ১৮৩৯ সালে এবং থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
১৩ ২১৮ ৩৫০ ২৪৯৫৯ ২৬২০৭১ ৬৫৩ ৫০.২৮ ৩৮.৩১
পৌরসভা
আয়তন (বর্গ কিমি) ওয়ার্ড মহল্লা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৯.৭৩ ২০ ১৯৫১৯ ২০০৬ ৫৫.০০
উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৭.০০ ৫৪৪০ ৯০৭ ৩২.৮২
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%) পুরুষ মহিলা
আউশকান্দি ১৩ ৬২৬৮ ১১৩৯০ ১১২০৬ ৪৮.০৪
ইনাতগঞ্জ ৫১ ৫৪৪৫ ১১০৩৭ ১০৭২০ ৪৪.২৩
করগাঁও ৬৫ ১৪৫৯৮ ১৩১৭৮ ১২৭৩৮ ৩৮.৩১
কালিয়ার ভাঙ্গা ৫৮ ৬২২৭ ৮১০৪ ৭৭৯০ ৩৪.০৬
কুর্শি ৭৩ ৮৮০৬ ১০৯১৩ ১০৭৭১ ৪০.০৮
গজনাপুর ৪৩ ৬০৭২ ১২২৩৯ ১২৩১৫ ৩১.৭৭
দীঘলবাক ২৯ ৮৯১৬ ১১৩১৮ ১১৩৩৩ ৩৬.৪২
দেবপাড়া ২১ ৮৪০৭ ১১৭৭৮ ১১২৪৩ ৪০.৮২
নবীগঞ্জ ৮০ ৭১১৫ ৮১৯৯ ৭৭১৪ ৩৩.৪৯
পশ্চিম বড়বাখৈর ৯৪ ৬৭৪৬ ৭৫২৬ ৭৫০১ ৪১.০৮
পানিউন্দা ৮৭ ১৩৩৫১ ১০৩১৩ ৯৯২৩ ৪০.৪৪
পূর্ব বড়বাখৈর ৯০ ৬৭৫৫ ৭৮০৮ ৭৮৭৬ ৩২.৯২
বাউশা ১৪ ১১০৮৭ ১১৫২৪ ১১০৫৪ ৩২.২৪

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো

NabiganjUpazilaHabiganj.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ রাজা ভগদত্তের উপরাজধানী (সদরঘাট), নবীগঞ্জের চৌকি।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন গণকবর ১, স্মৃতিস্তম্ভ ১ (নবীগঞ্জ)।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান  মসজিদ ৩২১, মাযার ৬, মন্দির ২৭, তীর্থস্থান ২। উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: শাহ তাজউদ্দিন কোরেশী (রঃ), শাহ সদরউদ্দিন কোরেশী (রঃ) এবং সৈয়দ নূর শাহের (রঃ) মাযার, টঙ্গীটিলার মাযার।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান  গড় হার ৩৯.৩৮%; পুরুষ ৪২.০১%, মহিলা ৩৬.৭১%। কলেজ ৩, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩০, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৭২, কিন্ডার গার্টেন ৩, মাদ্রাসা ১৫। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান:  পানিউনদা রাগীব-রাবেয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নবীগঞ্জ জে কে  উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৬), দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয় (১৯২১), আউশকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়।

পত্র-পত্রিকা  ও সাময়িকী  দৈনিক বিবিয়ানা।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান লাইব্রেরি ৩, ক্লাব ১৫, নাট্যদল ১, মহিলা সমিতি ৭, সিনেমা হল ১, অডিটোরিয়াম ১, কমিউনিটি সেন্টার ২, খেলার মাঠ ৫।

দর্শনীয় স্থান বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৩.৩১%, অকৃষি শ্রমিক ৫.৪০%, শিল্প ২.২১%, ব্যবসা ৮.৮৩%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ১.৪২%, চাকরি ২.৯৫%, নির্মাণ ১.৯৮%, ধর্মীয় সেবা ০.৬৩%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ৩.৮৪% এবং অন্যান্য ৯.৪৩%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৪২.৫৯%, ভূমিহীন ৫৭.৪১%। শহরে ৩৪.৬৯% এবং গ্রামে ৪৩.৩৩% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, আলু, পাট, সরিষা, মরিচ, চা।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি তিসি, তিল, মিষ্টি আলু।

প্রধান ফল-ফলাদি  আম, জাম, কাঁঠাল, কলা, পেঁপে, নারিকেল, কলা, আনারস।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খামার মৎস্য ২০, হাঁস-মুরগি ৬৮, গবাদিপশু ১০, হ্যাচারি ১।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৯০ কিমি, আধা-পাকারাস্তা ১৫২.৯৫ কিমি, কাঁচারাস্তা ১২২.১১ কিমি; নৌপথ ২২ নটিক্যাল মাইল।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গরু ও ঘোড়ার গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা চালকল, করাতকল, বিস্কুট কারখানা, শুটকি প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা।

কুটিরশিল্প স্বর্ণশিল্প, লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, বাঁশ ও বেতের কাজ।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৩৩, মেলা ৪। নবীগঞ্জ বাজার, এনায়েতগঞ্জ বাজার, রইসগঞ্জ বাজার, হায়দরগঞ্জ বা গোপলার বাজার, ইমামগঞ্জ বাজার ও ইনাথগঞ্জ বাজার এবং টঙ্গীটিলার মেলা, শাহ নূরের মাযার মেলা, সদরঘাটের বারুনী মেলা ও আলমপুরের বারুণী মেলা উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য ধান, মাছ, কলা।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ২৫.৩৬% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

প্রাকৃতিক সম্পদ  প্রাকৃতিক গ্যাস।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৫৯.৭১%, পুকুর ২৯.৩৭%, ট্যাপ ১.২০% এবং অন্যান্য ৯.৭২%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ২৬.৪০% (গ্রামে ২৪.৭৫% ও শহরে ৪৪.১৫%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৫৯.৫২% (গ্রামে ৬১.২০% ও শহরে ৪১.৪৩%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ১৪.০৮% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ৫, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৩, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র ২, মাতৃসদন ২, দাতব্য চিকিৎসালয় ২, উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ৬, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৩, পশু চিকিৎসা কেন্দ্র ১।

এনজিও কেয়ার, ব্র্যাক, আশা। [কাজী এম হাসান আলী]

তথ্যসূত্র   আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; নবীগঞ্জ উপজেলার মাঠ পর্যায়ের প্রতিবেদন ২০১০।