দৌলতপুর উপজেলা (কুষ্টিয়া)


দৌলতপুর উপজেলা (কুষ্টিয়া জেলা)  আয়তন: ৪৬৮.৭৬ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৩°৫২´ থেকে ২৪°১২´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮°৪২´ থেকে ৮৮°৫৮´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে বাঘা এবং লালপুর উপজেলা, দক্ষিণে গাংনী এবং মিরপুর উপজেলা, পূর্বে ভেড়ামারা এবং মিরপুর উপজেলা, পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ।

জনসংখ্যা ৪৪৩৬৫৫; পুরুষ ২২৮০৩২, মহিলা ২১৫৬২৩। মুসলিম ৪৪০৫৭১, হিন্দু ২৯৫৬, বৌদ্ধ ৬৪, খ্রিস্টান ১৩ এবং অন্যান্য ৫১।

জলাশয় গঙ্গা ও মাথাভাঙ্গা নদী এবং কালুয়া বিল, পঙ্খীর বিল, বোয়ালিয়া বিল ও ফকিরধরা বিল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন দৌলতপুর থানা গঠিত হয় ১৮৫৪ সালে এবং থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
- ১৪ ১৫৩ ২৪৬ ১৮১৬১ ৪২৫৪৯৪ ৯৪৬ ৪৫ ৩৫.২
উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
১৫.৪১ ১৮১৬১ ১১৭৯ ৪৫.৩
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
আদাবাড়ীয়া ০৬ ৭৩০৬ ১৫১৪৯ ১৪৪০৯ ৩৩.৩৪
এরিয়া ১৩ ৮১২৪ ১৪১৭৭ ১২৮৫৮ ৩৩.০৯
খলিশাকুন্ডি ৪৭ ৫৩২৪ ১৫৯০৬ ১৪৮৬০ ৪২.৪৫
চিলমারী ২৭ ১২৩০৭ ১১০৪৪ ১০৬৬৬ ২২.৮৯
দৌলতপুর ৩৩ ৮১৫৮ ১৭৭১৭ ১৬৭৩৯ ৪১.৩৯
পিয়ারপুর ৬৭ ৭৬২৬ ১৬৯৬৫ ১৫৯৬২ ৩২.৭৫
প্রাগপুর ৮১ ৬৭৫৪ ২০৩৩৪ ১৯০৭৩ ৩৭.৭২
ফিলিপনগর ৭৪ ৫৯৫২ ১৭৬৪২ ১৭৬৩৫ ৩৫.৮১
বোয়ালিয়া ২০ ৬৪৪৩ ১৪২৪৫ ১৩৯০৩ ৩২.১৬
মথুরাপুর ৬১ ৬৪২২ ১৯৩৬৫ ১৮৪৩১ ৩৬.৮৭
মরিচা ৫৪ ৯০৩৬ ১২৯১৬ ১২৪৭২ ২৬.৩২
রামকৃষ্ণপুর ৮৮ ১২৩৬০ ১৩৭৩৭ ১২৬৮৫ ৩৭.৪৬
রেফায়েতপুর ৯৪ ৭৯৯৩ ১৪৭৭১ ১৩৬৯৬ ৩১.১৫
হোগলবাড়ীয়া ৪০ ৭৬৫৩ ২৪০৬৪ ২২২৩৪ ৪২.৬৬

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

DaulatpurUpazilaKushtia.jpg

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পদ হোসেনাবাদ রাজবাড়ী, মহিষাকুন্ডি নীলকুঠি, রেফায়েতপুর জমিদার বাড়ি।

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি মুক্তিযুদ্ধের সময় এ উপজেলার ব্যাংগাড়ি মাঠ, বালিয়াডাঙ্গা মাঠ, মহিষকুন্ডি, শ্যামপুর, শেরপুর, চিলমারী, ফরাজী বাড়ি ও গোয়াল গ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকবাহিনীর লড়াই হয়। ১৩ নভেম্বর দৌলতপুরে পাকবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াইয়ে বহু সংখ্যক পাকসেনা নিহত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন গণকবর ৬, স্মৃতিসৌধ ১, মুক্তিযোদ্ধা শহীদদের স্মরণে সড়ক ১০।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান খাস মথুরাপুর শেখ পাড়ার বায়তুল মামুর জামে মসজিদ, দৌলতখালী জামে মসজিদ, আন্দিয়া কালীবাড়ি মন্দির, পাঁচপীরের মাযার।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ৩৫.৬%; পুরুষ ৩৮.৭%, মহিলা ৩২.৩%। কলেজ ১৪, ভোকেশনাল স্কুল এন্ড কলেজ ১, কারিগরি কলেজ ১, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৯৫, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৮৭, কমিউনিটি স্কুল ৩, আনন্দ স্কুল ১১৬, মাদ্রাসা ১২। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: দৌলতপুর গার্লস কলেজ (১৯৯৮), ফিলিপনগর মরিচা কলেজ (১৯৯৪), প্রাগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (১৯০৫), শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯২৩), মথুরাপুর উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৪৮), দৌলতপুর পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬৩), দৌলতখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬৭), মরিচা মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৭৩), চিলমারী মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৭৩), দৌলতপুর পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৭৯), দৌলতপুর দাখিল মাদ্রাসা (১৯৯৪)।

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী  সাপ্তাহিক: কুষ্টিয়ার কণ্ঠ; মাসিক: দৌলতপুর বার্তা; সাময়িকী: প্রদীপ, চাঁদের হাসি বাঁধ ভেঙ্গেছে, হিসনা, পলাশী, পারাবার।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান লাইব্রেরি ৮, শিল্পকলা একাডেমী ১, নাট্যদল ৪, সিনেমা হল ৩, ক্লাব ১৫৬, মহিলা সংগঠন ৪, সাহিত্য- সাংস্কৃতিক সংগঠন ২, খেলার মাঠ ৮৫।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬০.০২%, অকৃষি শ্রমিক ৬.৬৩%, শিল্প ২.২০%, ব্যবসা ১৭.১৬%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ২.৬৬%, চাকরি ৩.৮২%, নির্মাণ ০.৭১%, ধর্মীয় সেবা ০.১২%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.৩০% এবং অন্যান্য ৬.৩৮%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৫৫.০৭%, ভূমিহীন ৪৪.৯৩%। শহরে ৫২.৭৮%  এবং গ্রামে ৫৫.১৭% পরিবারের  কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, গম, পাট, তামাক, তুলা, আলু, টমেটো, ভুট্টা, পান।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি কাউন, তিসি।

প্রধান ফল-ফলাদি  আম, কলা, কাঁঠাল, পেঁপে, লিচু, পেয়ারা, তাল।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গরু ও ঘোড়ার গাড়ি।

শিল্প ও কলকারখানা বিড়ি কারখানা, দিয়াশলাই কারখানা, সিগারেট কারখানা।

কুটিরশিল্প স্বর্ণশিল্প, তাঁতশিল্প, বাঁশের কাজ, বেতের কাজ, কাঠের কাজ।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৬৭, মেলা ৩। আল্লারদরগা হাট, খলিশাকুন্ডি হাট, বাড়াগারদিয়া হাট, প্রাগপুর হাট ও মহিষাকুন্ডি হাট এবং মনসাতলা মহরম মেলা ও মথুরাপুর দরগাবাড়ি মেলা উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য  তামাক ও তামাকজাত। দ্রব্য, পান,   টমেটো, পাট।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচীর আওতাধীন। তবে ২৩.৮৬% পরিবারের  বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯৫.৩৩%, ট্যাপ ০.৬০%, পুকুর ০.১০% এবং অন্যান্য ৩.৯৭%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা এ উপজেলার ১৯.৪৮% (গ্রামে ১৯.১৩% এবং শহরে ২৭.২৩%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৫০.৭৪% (গ্রামে ৫০.৯৩% এবং শহরে ৪৬.৬২%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ২৯.৭৮% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ১০, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কমপ্লেক্স ৬, কমিউনিটি ক্লিনিক ৪৩, ক্লিনিক ১৮।

এনজিও ব্র্যাক, আশা।  [মো. সেলিম রেজা]

তথ্যসূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; দৌলতপুর উপজেলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।