দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা


দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা (জামালপুর জেলা)  আয়তন: ২৬৬.৫৯ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২৫°০৬´ থেকে ২৫°২৬´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯°৪০´ থেকে ৮৯°৫১´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উত্তরে চর রাজীবপুর উপজেলা, দক্ষিণে ইসলামপুর উপজেলা, পূর্বে বকশীগঞ্জ উপজেলা ও ভারতের মেঘালয় রাজ্য, পশ্চিমে গাইবান্ধা সদর ও ফুলছড়ি উপজেলা।

জনসংখ্যা ২২৯৩০৭; পুরুষ ১১৫২৯১, মহিলা ১১৪০১৬। মুসলিম ২২৫৩১৬, হিন্দু ৩৮০৭ এবং অন্যান্য ১৮৪।

জলাশয় প্রধান নদী: ব্রহ্মপুত্র, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, যমুনা এবং সাপমারী বিল, কাঠার বিল, তিলথুবা বিল ও পাকিরের বিল উল্লেখযোগ্য।

প্রশাসন দেওয়ানগঞ্জ থানা গঠিত হয় ১৮৭৪ সালে এবং থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হয় ১৯৮৩ সালে।

উপজেলা
পৌরসভা ইউনিয়ন মৌজা গ্রাম জনসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
শহর গ্রাম শহর গ্রাম
৪৭ ১৬৪ ৪৪৬১১ ১৮৪৬৯৬ ৮৬০ ৩৮.১ ২৩.২
পৌরসভা
আয়তন (বর্গ কিমি) ওয়ার্ড মহল্লা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
২০.৬৫ ৪৩ ৩৫৭৭৯ ১৭৩৩ ৪১.৭
উপজেলা শহর
আয়তন (বর্গ কিমি) মৌজা লোকসংখ্যা ঘনত্ব (প্রতি বর্গ কিমি) শিক্ষার হার (%)
৭.৭৩ ৮৮৩২ ১১৪৭ ২৩.২
ইউনিয়ন
ইউনিয়নের নাম ও জিও কোড আয়তন (একর) লোকসংখ্যা শিক্ষার হার (%)
পুরুষ মহিলা
চর আমখাওয়া ২৯ ৯১৭০ ১৭৩৬৬ ১৭৩৩৮ ২১.২৬
চিকাজানি ৩৬ ৪৫৭৬ ৮২১৪ ৮০৫১ ২৬.১৪
চুকাইবাড়ী ৪৩ ৬৮৬৭ ৪১৮৩ ৪৫০৯ ২০.১৫
ডাংধরা ৫১ ১০৪৪৬ ১৫১২৬ ১৫৬৯৫ ২৪.০৩
দেওয়ানগঞ্জ ৫৮ ৬০৪০ ৯৫৫৪ ৯৪৯৮ ২৬.৭৩
পাড় রামরামপুর ৮৭ ৯৩৪১ ১৬৬৯২ ১৬০৬০ ২২.২৮
বাহাদুরাবাদ ১৭ ১০৫৮৩ ১৬৮৪৭ ১৬১২১ ২২.৭৯
হাতীভাঙ্গা ৬৫ ৪৬১৯ ৯১৭৯ ৯০৯৫ ২২.৮৬

সূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

DewanganjUpazila.jpg

মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি ১৯৭১ সালের ৩০ জুলাই বাহাদুরাবাদ ঘাটে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকবাহিনীর লড়াই হয় এবং লড়াইয়ের তৃতীয় দিনে মুক্তিযোদ্ধারা জামালপুরের সাথে বাহাদুরাবাদ ঘাটের রেল যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। ৯ ডিসেম্বর দেওয়ানগঞ্জ শত্রুমুক্ত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন গণকবর ৩।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ ৩২২, মন্দির ৭।

শিক্ষার হার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড় হার ২৬.৩%; পুরুষ ৩০.৪%, মহিলা ২২.২%। কলেজ ৩, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২৮, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১২৮, ভোকেশনাল কুল ৩, স্যাটেলাইট স্কুল ১৬, কমিউনিটি স্কুল ২, কিন্ডার গার্টেন ১২, মাদ্রাসা ৮২। উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: একে মেমোরিয়াল কলেজ (১৯৭০), দেওয়ানগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় (১৯১৯)।  সানন্দবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৬৭)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান লাইব্রেরি ৩০, ক্লাব ২০, সিনেমা হল ৩, নাট্যদল ১, মহিলা ও শিশুকল্যাণ সংস্থা ১৫, খেলার মাঠ ৩১।

জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ৬৮.৪৯%, অকৃষি শ্রমিক ৫.২৮%, শিল্প ০.২৭%, ব্যবসা ৯.০৭%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ১.৭৫%, চাকরি ৪.৯৪%, নির্মাণ ০.৮২%, ধর্মীয় সেবা ০.১৭%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ০.০৮% এবং অন্যান্য ৯.১৩%।

কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৪৮.৪০% এবং ভূমিহীন ৫১.৬০%। শহরে ৩৪.৪১% এবং গ্রামে ৫২.১০% পরিবারের কৃষিজমি রয়েছে।

প্রধান কৃষি ফসল ধান, পাট, গম, সরিষা, আখ, আলু, ছোলা, মসুর ডাল, শাকসবজি।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি চিনাবাদাম, কাউন।

প্রধান ফল-ফলাদি  আম, কলা, নারিকেল, তরমুজ, ফুটি।

মৎস্য, গবাদিপশু ও হাঁস মুরগির খামার  গবাদিপশু প্রজনন কেন্দ্র ১, হ্যাচারি ১।

যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ১৩৮.৪ কিমি, আধা-পাকারাস্তা ২০ কিমি, কাঁচারাস্তা ৪৭৪ কিমি; রেলপথ ৯.১ কিমি; নৌপথ ১৫ নটিক্যাল মাইল।

বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি।

শিল্প ও কলকারখানা চিনিকল, তেলকল, চালকল, আইসক্রিম কারখানা ইত্যাদি।

কুটিরশিল্প লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, হস্তশিল্প, বাঁশ, বেত ও কাঠের কাজ।

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ১৬, মেলা ২। সানন্দবাড়ী হাট, চরমাগুরীর হাট, বেলতলীর বাজার, ঝালুর চর বাজার; দেওয়ানগঞ্জের মেলা উল্লেখযোগ্য।

প্রধান রপ্তানিদ্রব্য পাট, চাল, সরিষা, আলু।

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৮.৭৮% (শহরে ২২.৪৫% এবং গ্রামে ৫.১৬%) পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

পানীয়জলের উৎস নলকূপ ৯০.৩৯%, ট্যাপ ০.৫৪%, পুকুর ০.২৬%, এবং অন্যান্য ৮.৮১%।

স্যানিটেশন ব্যবস্থা ১৭.৫৬% (শহরে ৪১.৬০% এবং গ্রামে ১১.২০%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ৪৫.০২% (শহরে ২৯.৭১% এবং গ্রামে ৪৯.০৭) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ৩৭.৪২% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ২, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৮, কমিউনিটি ক্লিনিক ২৯, ডায়াগ্নস্টিক সেন্টার ৪।

এনজিও ব্র্যাক, আশা। [সৈয়দ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী]

তথ্যসূত্র আদমশুমারি রিপোর্ট ২০০১, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো; দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা সাংস্কৃতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন ২০০৭।