তালিকাবদ্ধ পদ


তালিকাবদ্ধ পদ উনিশ শতকের শেষদিকে ব্রিটিশ ভারতে ‘তালিকাবদ্ধ পদ’ ব্যবস্থার প্রচলন হয়। চেয়ারম্যান চার্লস ইউ আইচিসনের নেতৃত্বে গঠিত পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী সিভিল সার্ভিসে সংস্কার সাধিত হয়। সনদী সিভিল সার্ভিস ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস (আই.সি.এস) নামে এবং অসনদী সিভিল সার্ভিস প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিস নামে পরিচিত হয়। সংশ্লিষ্ট প্রদেশের নাম অনুযায়ী ভারতের বিভিন্ন প্রদেশে এ প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিসের নামকরণ করা হয়। তদানীন্তন বাংলায় প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিস ছিল ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিসের অনুরূপ এবং বাংলায় এর নামকরণ হয়েছিল বেঙ্গল সিভিল সার্ভিস। ১৮৯২ সালের সরকারি সিদ্ধান্তে কিছু সংস্কারমূলক ব্যবস্থা প্রবর্তনের সুবাদে প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিসের যেসব ঊর্ধ্বতন পদ সাধারণত আই.সি.এস কর্মকর্তাদের জন্য সংরক্ষিত থাকত সেগুলোতে প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তাদেরও পদোন্নতির সুযোগ উন্মুক্ত হয়। জেলা ও দায়রা জজদের এক-তৃতীয়াংশ, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও কালেক্টর এবং অন্যান্য উচ্চতর ও নিম্নতর কর্মকর্তাদের এক-ষষ্ঠাংশ প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিসের এখতিয়ারে আসে। এতে অবশ্য স্পষ্টভাবে বলা থাকে যে, ১৮৬১ সালে সিভিল সার্ভিস আইনের তফসিলে উল্লিখিত ঐসব পদের স্থানান্তর প্রাদেশিক সিভিল সার্ভিসের সদস্যদের পদোন্নতির কোনো অধিকার প্রদান করে না। ১৮৬১ সালের আইনের তফসিলের অন্তর্ভুক্ত যেসব পদ ইতোপূর্বে আই.সি.এস সদস্যদের জন্য সংরক্ষিত ছিল সেগুলো পরবর্তীকালে সরকারি পরিভাষায় তালিকাবদ্ধ পদ অর্থাৎ তফসিলবদ্ধ পদ হিসেবে পরিচিত হয়।  [এ.এম.এম শওকত আলী]