তাবা তাবাই, সৈয়দ মুহম্মদ বাকের


তাবা তাবাই, সৈয়দ মুহম্মদ বাকের (?-১৯০৯)  ঢাকার অন্যতম রইস ও খ্যাতনামা ব্যবসায়ী। তাঁর মূল নাম সৈয়দ মুহম্মদ, কাব্যনাম ‘বাকের’ এবং ‘তাবা তাবাই’ বংশীয় খেতাব। পিতা সৈয়দ মুহম্মদ তাকী ইরানের শীরায শহরের এক মুজতাহিদ পরিবারের লোক ছিলেন। তিনি (তাকী) ব্যবসা উপলক্ষে ভারতের বিভিন্ন স্থান ভ্রমণ করে ঢাকায় এসে বসতি স্থাপন করেন এবং ঢাকা ও বরিশালে জমিদারি খরিদ করেন। ঢাকায় তাঁর বাসভবনে মুহররমের অনুষ্ঠানাদি সাড়ম্বরে পালিত হতো।

বাকের একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি গালিচা ও চামড়ার ব্যবসা করতেন। ঢাকার নওয়াব আবদুল গনীও তাঁর সঙ্গে অংশদারিত্বে ব্যবসা করতেন। তিনি ঢাকার মুসলমানদের ব্যবসা-বাণিজ্যে উৎসাহিত করেন। তাঁর উৎসাহে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেক মুসলমান চামড়া ও অন্যান্য ব্যবসার দিকে ঝুঁকে পড়েন।

সৈয়দ মুহম্মদ বাকের বাণিজ্য উপলক্ষে নয় বছর আরব, মিশর, সিরিয়া, ইরান, রোম, রাশিয়া প্রভৃতি দেশ ভ্রমণ করে ১৮৭৬ সালে ঢাকায় প্রত্যাবর্তন করেন এবং পৈতৃক সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। বাকেরের মাতৃভাষা ছিল ফারসি, তাই ফারসিতে তাঁর বিশেষ দক্ষতা ছিল। তৎকালীন বাংলাদেশের প্রখ্যাত উর্দু ও ফরাসি কবি আবু মুহম্মদ আবদুল গফুর নাসসাখ (১৮৩৩-১৮৮৯) ছিলেন তাঁর বন্ধু। তাঁর গাঞ্জীনা-এ-বাকের নামক ফরাসি দিওয়ানটি কলকাতার হাবলুল মতিন প্রেস থেকে ১৮৯১ সালে প্রকাশিত হয়। গজল কবিরূপে ইরানের আধুনিক গজল কবিদের সঙ্গে বাকেরের তুলনা করা যায়। বিশেষ করে শেখ সাদীর রুবাইয়াৎ ও হাফিজের গজলের সঙ্গে তাঁর কাব্যের মিল আছে। তাঁর কবিতায় নীতিমূলক শিক্ষাও আছে, আবার পার্থিব প্রেম ও সৌন্দর্যও স্থান পেয়েছে। তাঁর বাসভবনে ‘মুশায়ারা’ অর্থাৎ কবি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতো। তাতে তিনি স্বরচিত কাসীদা, গজল ইত্যাদি আবৃত্তি করতেন। বাকের ১৯০৯ সালে মৃত্যুবরণ করেন এবং ঢাকার হোসেনী দালান ইমামবাড়ি কবরস্থানে সমাহিত হন।  [কানিজ-ই-বুতুল]