ঢাকা লেডিজ ক্লাব


ঢাকা লেডিজ ক্লাব  উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত নারীদের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মিলন কেন্দ্র। এটি ১৯৫১ সালের মাঝমাঝিতে ঢাকার কিছু উচ্চবিত্ত নারীর উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়। এর প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি সাহাবউদ্দিনের স্ত্রী বেগম শামস্ সাহাবউদ্দিন। ১৯৫১ সালে যখন ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয় তখন ক্লাবের কর্মকান্ড চলত বিচারপতি সাহাবউদ্দিনের সরকারি বাড়ির পেছনে একটি কোয়াটার্সে। ১৯৫৫ সালে ৩৬ ইস্কাটন গার্ডেন রোডে ক্লাবটি স্থানান্তরিত হয়। বর্তমানে ক্লাবটি তিন বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। ১৯৬০ সালে ক্লাবটিকে জয়েন্ট স্টক কোম্পানিতে রেজিস্ট্রেশন করা হয়। একটি কার্যকরী পরিষদ ক্লাবটি পরিচালনা করে। এ পরিষদে একজন সভানেত্রীসহ বারো জন সদস্য রয়েছেন। কার্যকর পরিষদের নির্বাচন প্রতি তিনবছর পর অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা লেডিজ ক্লাব বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস যেমন স্বাধীনতা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, বিজয় দিবস পালন করে। এছাড়া বিভিন্ন উৎসব যেমন- ঈদ, নববর্ষ ইত্যাদিতে বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রতি বছর ক্লাব সকল সদস্যদের নিয়ে বার্ষিক বনভোজন ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে।

ক্লাবের বর্তমান সদস্য সংখ্যা ৬০০। ক্লাবে সদস্য পদ লাভ করতে ১০,০০০ টাকা এবং প্রতি মাসে ৫০ টাকা ফি দিতে হয়। ক্লাবের প্রধান আয়ের উৎস ক্লাবের ‘হল’ ভাড়া থেকে আসা অর্থ। ঢাকা লেডিজ ক্লাব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়াও বিভিন্ন সেবামূলক কর্মকান্ডে জড়িত। দরিদ্র শিশুদের নিরক্ষরতা দূরীকরণের উদ্দেশে এ ক্লাব ‘কুসুম কলি’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এ ছাড়া প্রাকৃতিক দুর্যোগ-এ র সময় ক্লাবটি ত্রাণ বিতরণ ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করে।  [নাজমা সিদ্দিকী]