জিওলজিক্যাল সার্ভে অব বাংলাদেশ


বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর- জিএসবি (Geological Survey of Bangladesh-GSB)  দেশের সর্বত্র ভূতাত্ত্বিক কার্যক্রম পরিচালনায় নিয়োজিত একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান। পূর্বে এটি পাকিস্তান ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর (জিএসপি)-এর পূর্বাঞ্চলীয় বিভাগ হিসেবে ঢাকায় অবস্থিত ছিল। স্বাধীনতা পরবর্তীকালে ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠানটির নাম বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর বা সংক্ষেপে জিএসবি হিসেবে পুনর্নামকরণ করা হয়। প্রকৃতপক্ষে জিএসপি এবং জিএসবি উভয় প্রতিষ্ঠানই জিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া (জিএসআই)-এর উত্তরসূরী প্রতিষ্ঠান। নৌজাহাজ ও অন্যান্য প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য ভারতে কয়লা অনুসন্ধানের উদ্দেশ্যে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কয়লা সংক্রান্ত একটি কমিটি (Coal Committee) গঠনের মাধ্যমে ১৮৩৬ সালে জিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া প্রতিষ্ঠা করে।

বাংলাদেশের অধিকাংশ ভূভাগ নবীনকালের (Recent) প্লাবনভূমি দ্বারা গঠিত এবং প্রাকৃতিক সম্পদ প্রাপ্তির সম্ভাবনাপূর্ণ হলেও ব্রিটিশ আমলে জিএসআই কর্তৃক পরিচালিত ভূতাত্ত্বিক জরিপ এবং ভূতাত্ত্বিক মানচিত্রায়নে বাংলাদেশ খুবই সামান্য গুরুত্ব লাভ করে। জিএসপি ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত বিস্তৃত খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করলেও বাংলাদেশের ব্যাপারে উদাসীন থাকে। বর্তমানে জিএসবি জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত একটি অধিদপ্তর। ১৯৭২ সালের ১০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তে জিএসবিকে তেল ও গ্যাস ছাড়া দেশের অন্যান্য খনিজ সম্পদ অনুসন্ধানের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের দায়িত্ব প্রদান করা হয় পেট্রোবাংলাকে। ঢাকায় অবস্থিত প্রধান কার্যালয় এবং বগুড়ায় স্থাপিত ক্যাম্প অফিসের মাধ্যমে জিএসবি দেশের সর্বত্র রীতিবদ্ধ ভূবৈজ্ঞানিক কার্যক্রমসমূহ পরিচালনা ও ভূতাত্ত্বিক মানচিত্র প্রণয়ন করে থাকে।

দুইজন উপ-মহাপরিচালক জিএসবির দুটি মূল বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন। প্রতিটি বিভাগের আওতায় রয়েছে ১৭টি শাখা, যাদের প্রতিটির প্রধান একজন করে পরিচালক। এই শাখাসমূহ হচ্ছে: (১) পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন ইউনিট,  (২) সম্পাদনা ইউনিট, (৩) ভূতাত্ত্বিক মানচিত্রাঙ্কণ ইউনিট, (৪) স্তরবিদ্যা ও জৈবস্তরবিদ্যা ইউনিট, (৫) উপকূলীয় ও সামুদ্রিক ভূতত্ত্ব ইউনিট, (৬) শিলাবিদ্যা ও মণিকতত্ত্ব ইউনিট, (৭) আলোক-ভূতত্ত্ব (Photogeology) ইউনিট, (৮) দূর অনুধাবন প্রযুক্তি ও জরিপ ইউনিট, (৯) ভূরসায়ন অনুসন্ধান ইউনিট,  (১০) বিশ্লেষণাত্মক রসায়ন, (১১) অর্থনৈতিক ভূতত্ত্ব ইউনিট, (১২) ভূ-প্রযুক্তি, প্রকৌশল ও নগর ভূতত্ত্ব ইউনিট, (১৩) ড্রিলিং ইউনিট, (১৪) প্রকাশনা, জনসংযোগ ও উপাত্ত-কেন্দ্র, (১৫) ভূ-পদার্থীয় মানচিত্রাঙ্কন (Geophysical Mapping)-১ (অভিকর্ষিক ও চৌম্বকীয়) ইউনিট, (১৬) ভূ-পদার্থীয় মানচিত্রাঙ্কন-২ (ভূকম্পনীয় ও তড়িৎ) ও ভূ-পদার্থীয় গবেষণা ইউনিট এবং (১৭) পরিচালনা ও সমন্বয় ইউনিট। জিএসবির রয়েছে নিজস্ব কম্পিউটার সেল এবং দূর অনুধাবন প্রযুক্তি ও ভৌগোলিক তথ্য ব্যবস্থা-জিআইএস (Geographical Information Systems-GIS) সুবিধা। ঢাকা ও বগুড়া অফিসে রয়েছে দুটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার এবং ঢাকায় একটি ভূতাত্ত্বিক জাদুঘর।

বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের কার্যাবলী নিম্নে বর্ণিত হলো: ভূতাত্ত্বিক মানচিত্র প্রণয়নের উদ্দেশ্যে দেশে রীতিবদ্ধ ভূতাত্ত্বিক জরিপ পরিচালনা করা; ভূতাত্ত্বিক মানচিত্রে প্রদর্শিত শিলা, মণিক, জ্বালানি, ভূগর্ভস্থ পানি ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদের মজুত সমৃদ্ধ এলাকা এবং ভূগর্ভস্থ পানিতে আর্সেনিক দূষণপূর্ণ এলাকা প্রভৃতি স্থানে বিস্তারিত অনুসন্ধানকার্য পরিচালনা; ভূতাত্ত্বিক অনুসন্ধানের মাধ্যমে প্রাপ্ত খনিজ সম্পদপূর্ণ এলাকায় সম্পদের মূল্যায়নের জন্য বিস্তারিত অনুসন্ধানকার্য চালানো এবং ভূপদার্থীয় পরীক্ষা, খননকার্য ও ভূ-রাসায়নিক কার্যক্রম পরিচালনা; মানচিত্র প্রণয়ন ও অনুসন্ধান কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন শিলাস্তর শনাক্ত করা, তাদের মধ্যকার  সম্পর্ক ও ধারাক্রম নির্ণয় এবং সেইসঙ্গে জীবাশ্ম ও অন্যান্য ভূ-রাসায়নিক পদ্ধতির সাহায্যে শিলাস্তরের বয়স নির্ণয় করার লক্ষ্যে স্তরবিদ্যাগত সমীক্ষা পরিচালনা; বিভিন্ন ধরনের সরকারি স্থাপনা ও নির্মাণ প্রকল্প, যেমন- বাঁধ, খাল, টানেল, মহাসড়ক, সেতু, নতুন শহর স্থাপনের পূর্বে সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভূতাত্ত্বিক পরীক্ষা পরিচালনার মাধ্যমে এসকল প্রকল্পের ভূতাত্ত্বিক সম্ভাব্যতা সম্বন্ধে সরকারকে পরামর্শ প্রদান করা; সামুদ্রিক ভূতত্ত্ব ও ভূপদার্থীয় অনুসন্ধানকার্য পরিচালনা এবং নদী অববাহিকা ও বদ্বীপীয় অঞ্চলে ভূরূপতাত্ত্বিক সমীক্ষাকার্য পরিচালনা; মণিক, খনিজ জ্বালানি, ভূ-পৃষ্ঠস্থ ও ভূগর্ভস্থ পানি সম্পদ প্রভৃতির রীতিবদ্ধ নমুনা গ্রহণ করে এসকল নমুনার মণিকতাত্ত্বিক ও রাসায়নিক বিশ্লেষণ সম্পন্ন করা; ভূতত্ত্ব ও বিশ্বের সম্পদসমূহের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকল বিষয়ে সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে উপদেশ প্রদান করা।

বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর রোটারি কনভেনশনাল এবং ওয়্যারলাইন ড্রিলিং ইউনিট দ্বারা সজ্জিত এবং ভূ-পৃষ্ঠের ২,০০০ মিটার গভীর পর্যন্ত খননকার্য পরিচালনায় সক্ষম। প্রতিষ্ঠানটির বিশ্লেষণী রসায়ন গবেষণাগারকে এটমিক অ্যাবসর্পশন স্পেকট্রোমিট্রি (Atomic Absorption Spectrometry) দ্বারা উন্নীত করা হয়েছে। শিলাবিদ্যা ও মণিকবিদ্যা এবং স্তরতত্ত্ব ও জৈবস্তরতত্ত্ব শাখাসমূহের গ্রন্থাগারসমূহকে এক্স-রে ডিফ্রেকটোমিটার ও স্ক্যানিং ইলেকট্রন অণুবীক্ষণ যন্ত্র দ্বারা সজ্জিত করা হয়েছে। অধিদপ্তরের ইঞ্জিনিয়ারিং ও জিও-টেকনিক্যাল গবেষণাগারটি প্রকৌশলগত নির্মাণকার্যে ব্যবহূত শিলা ও মৃত্তিকার ভূ-প্রযুক্তিগত (geo-technical) বৈশিষ্ট্যসমূহ নির্ণয় করার প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি দ্বারা সজ্জিত। ভূপদার্থীয় মানচিত্রায়ন অভিকর্ষিক, চৌম্বকীয়, ভূকম্পনীয় ও বৈদ্যুতিক পদ্ধতির সহায়তায় পরিচালিত হয়ে থাকে। জিএসবি কর্তৃক সংগৃহীত উপাত্তসমূহ কম্পিউটার প্রযুক্তির সাহায্যে সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাত করা হয়ে থাকে। বিজ্ঞানী ও কারিগরি জনশক্তিকে নিয়মিত প্রশিক্ষণ প্রদান এবং আধুনিক যন্ত্রপাতি, সুযোগ-সুবিধা ও প্রযুক্তির প্রচলনের মাধ্যমে জিএসবি তার দক্ষতার নিয়মিত উন্নয়ন ঘটিয়ে থাকে।

উল্লিখিত কার্যক্রম গ্রহণ ও প্রযুক্তির প্রচলনের মধ্য দিয়ে জিএসবি নিম্নলিখিত সাফল্যসমূহ অর্জন করেছে: উপকূলীয় এলাকার অংশবিশেষসহ দেশের প্রায় ৫৫,০০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় জরিপকার্য পরিচালনার মাধ্যমে ১:৫০,০০০ প্রতিভূ অনুপাতে ভূতাত্ত্বিক মানচিত্র প্রণয়ন করা সম্ভব হয়েছে। দেশের সমতল এবং পার্বত্য এলাকার বিভিন্ন অংশে এই মানচিত্র প্রণয়ন কর্মসূচি পরিচালনা করা হয়েছে। সুবিধাজনক স্কেলে ঢাকা মহানগরী ও এর আশপাশের এলাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর, বগুড়া ও খুলনা শহরের ভূ-প্রযুক্তিগত প্রকৌশল ও নগরীয় ভূতাত্ত্বিক মানচিত্র প্রণয়নের কাজও সম্পন্ন করা হয়েছে। সর্বমোট প্রায় ৪২,৬৮০মি ভূগর্ভস্থ খননসহ জিএসবি খনিজ অনুসন্ধান, স্তরবিদ্যাগত সমীক্ষাসহ অন্যান্য ভূগর্ভস্থ তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহের উদ্দেশ্যে এযাবৎকাল পর্যন্ত ১৮০টি কূপ খনন করেছে। দিনাজপুর জেলার বড়পুকুরিয়া ও দীঘিপাড়া নামক স্থানসমূহে, রংপুর জেলার খালাশপীর নামক স্থানে, জয়পুরহাট জেলার জামালগঞ্জ নামক স্থানে জিএসবি উন্নতমানের গন্ডোয়ানা কয়লার মজুত আবিষ্কার করেছে। এ সকল কয়লাক্ষেত্রের মধ্যে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে বর্তমানে কয়লা উত্তোলনের সকল প্রস্ত্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে। কয়লা খনি আবিষ্কার ছাড়াও জিএসবি পিট, চুনাপাথর, চীনামাটি, কাচবালি, খনিজ বালি, নুড়িশিলা ও কঠিনশিলার মজুত আবিষ্কার করেছে। দিনাজপুর জেলার মধ্যপাড়ায় আবিষ্কৃত ভূগর্ভস্থ কঠিনশিলা খনি থেকে কঠিনশিলা উত্তোলন করা হচ্ছে।

ভূবিজ্ঞান সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে জিএসবি কর্তৃক পরিচালিত বিভিন্ন তৎপরতার ওপর এযাবৎকাল পর্যন্ত জিএসবি উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। এ সকল রিপোর্ট প্রকাশ ছাড়াও জিএসবিতে কর্মরত বিজ্ঞানিগণ নিয়মিত তাদের গবেষণা অর্জন সম্পর্কিত তথ্যাদি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সেমিনার, সিম্পোজিয়াম ও জার্নালে প্রকাশ করে থাকেন।  [কিউ.এম আরিফুর রহমান]

আরও দেখুন জিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া