চুনামাটি


চুনামাটি (Calcareous Soil)  অধিক পরিমাণে চুনযুক্ত মাটি। এসব মাটির ক্ষিতিজে কখনও কখনও চুনযুক্ত কঠিন ভূস্তর (pan) উৎপন্ন হয়। মাটির পি.এইচ (pH) মান ৭.৫ থেকে ৮.৫ পর্যন্ত হয়ে থাকে। মাটিতে চুনের উপস্থিতি ০.১ নরমাল হাইড্রোক্লোরিক এসিড প্রয়োগ করে বিক্রিয়াজাত দৃশ্যমান বুদবুদ সৃষ্টির মাধ্যমে সহজেই নির্ণয় করা যায়। বাংলাদেশের মৃত্তিকা শ্রেণীবিন্যাসে অন্তর্ভুক্ত চারটি জেনারেল সয়েল টাইপ (General Soil Type) চুনামাটি পাওয়া যায়। (১) সক্রিয় গঙ্গা পললভূমি ও মেঘনা মোহনাজ পললভূমিতে ব্যাপক আকারে বিদ্যমান চুনযুক্ত পলল। এসব নতুন ও স্তরীভূত পললের সম্পূর্ণ বা পৃষ্ঠ থেকে ১২৫ সেন্টিমিটার গভীরতা পর্যন্ত কোনো স্তরে চুন বিদ্যমান। (২) চুনযুক্ত ধূসর পললভুমি মৃত্তিকা গঙ্গা কটাল (tidal) পললভূমি, গঙ্গা নদী পললভূমি এবং নিম্ন মেঘনা নদী পললভূমির অংশ বিশেষে পাওয়া যায়। এসব মাটি মৌসুম মাফিক প্লাবিত হয় এবং এদের রং ধূসর বা অন্তঃমৃত্তিকার ফাটল ও রন্ধ্রের পৃষ্ঠে প্রকট ধূসর প্রলেপন থাকে; পৃষ্ঠ থেকে ১২৫ সেন্টিমিটার গভীরতায় বিদ্যমান কোনো স্তরে চুন থাকে। (৩) চুনযুক্ত গাঢ় ধূসর পললভূমি মৃত্তিকা গঙ্গা সর্পিলাকার পললভূমি এবং স্থানীয়ভাবে গঙ্গা কটাল পললভূমিতে ব্যাপক আকারে বিস্তৃত। এসব মৃত্তিকা মৌসুম মাফিক প্লাবিত হয় এবং পৃষ্ট থেকে ১২৫ সেন্টিমিটার গভীরতার মধ্যে কোনো স্তরে চুন থাকে। (৪) চুনযুক্ত বাদামি পললভূমি মৃত্তিকাগুলি অসম্পূর্ণভাবে নিষ্কাশিত মৃত্তিকা এবং গঙ্গা-পদ্মা নদীপ্রণালীর চুনযুক্ত পললে সৃষ্টি হয়। এসব মৃত্তিকা মধ্যম সুনিষ্কাশিত মৃত্তিকা হতে পারে এবং এদের অন্তঃমৃত্তিকা হলদে বাদামি রঙের। মৃত্তিকার গ্রথন সহজেই গুঁড়া হয়ে যায় এমন দোঅাঁশ থেকে পলি এঁটেল দোঅাঁশ ধরনের। এসব মৃত্তিকার অবস্থান দু ঢালের মধ্যবর্তী উচু এলাকার উপরের অংশে। মৃত্তিকার সম্পূর্ণটাই চুনযুক্ত বা পৃষ্ঠ থেকে ১২৫ সেন্টিমিটার গভীরতায় বিদ্যমান কোনো স্তর চুনযুক্ত।  [আমিনুল ইসলাম]