চিশতি বেহেশতীর সমাধি


চিশতি বেহেশতীর সমাধি  ঢাকায় পুরনো হাইকোর্ট ভবনের পূর্ব পার্শেত অবস্থিত একটি সমাধিসৌধ। বর্তমানে এটি হাইকোর্ট মাযার নামে পরিচিত। মূল সৌধটি একটি উঁচু ভিতের উপর বর্গাকারে নির্মিত হয়েছিল।

মুগল সুবাহদার ইসলাম খান চিশতি এর ১৬১৩ খ্রিস্টাব্দে ঢাকায় মৃত্যু হয় । তাঁর মৃতদেহ প্রথমে বাগ-ই-বাদশাহীতে (বর্তমানে শিশু একাডেমী ও হাইকোর্ট এলাকা) দাফন করা হয়। কথিত আছে যে, সম্রাট  জাহাঙ্গীর-এর আদেশে পরবর্তী সময়ে উক্ত স্থান থেকে ইসলাম খাঁর মরদেহ তুলে ফতেহপুর সিক্রিতে নিয়ে সমাধিস্থ করা হয়। তবে ঢাকায় তাঁর সমাধিস্থলের চিহ্নস্বরূপ উক্ত শূন্যগর্ভ মাযারের উপর একটি সাদামাটা সৌধ তৈরি করে রাখা হয়। কালক্রমে কবরটি ‘চিশতির বেহেশতখানা’ বা ‘চিশতি বেহেশতীর মাযার’ নামে পরিচিতি লাভ করে। জীর্ণপ্রায় সৌধটি নওয়াব খাজা আহসানুল্লাহ ও জমিদার মোহিনী বাবু সংস্কার করেন। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ-এর পর এখানে লাটভবন নির্মাণ করা হয়। পাকিস্তান আমলে উক্ত লাটভবনে হাইকোর্ট স্থাপন করা হলে মাযারটির গুরুত্ব বেড়ে যায়। বর্তমানে পুরনো সৌধটির উপর বৃহদাকার গম্বুজযুক্ত একটি আধুনিক সমাধিসৌধ নির্মাণ করা হয়েছে। এখন এটি খাজা শরফুদ্দীন চিশতি ওরফে ওলি-এ-বাংলা বলে কোনো এক পীরের পবিত্র মাযার হিসেবে ভক্তদের নিকট আদৃত। [মোহাম্মদ আলমগীর]