চান্দামাছ


নামাচান্দা
ফলিচান্দা

চান্দামাছ  Perciformes বর্গের কয়েক প্রজাতির মাছ। এদের দেহ দুপাশ থেকে চ্যাপ্টা ও ডিম্বাকার, পৃষ্ঠভাগে দুটি পাখনা থাকে। বাংলাদেশের লোনা ও স্বাদু উভয় পানিতে চান্দামাছ দেখা যায়। স্বাদুপানির চান্দামাছ আকারে অপেক্ষাকৃত ছোট, দেহে ছোট ছোট অাঁশ থাকে। নদী, বিল, পুকুর, হাওর, বাঁওড়সহ প্রায় সব ধরনের জলাশয়ে এ মাছ হয়। বর্ষার মৌসুমে এরা ধানক্ষেত ও প্লাবন ভুমিতেও আসে। স্বাদুপানির তিন প্রজাতির চান্দামাছ হলো নামাচান্দা (Chanda nama),  লালচান্দা (Pseudambassis ranga), ও কাঁটাচান্দা (P. baculis)। টাকচান্দা (Leiognathus equals) হলো মোহনার চান্দা, Leiognathidae গোত্রভুক্ত। টাকচান্দার রং উজ্জ্বল রুপালি, দেহের পার্শ্বরেখা বরাবর অস্পষ্ট এক ফালি ধূসর ছায়ারেখা, পশ্চাৎভাগ থেকে মধ্যভাগের পার্শ্বদেশে মিহি লম্বরেখা। স্বাদুপানির চান্দার রং টাকচান্দার মতো অতো উজ্জ্বল নয়। টাকচান্দাও মাঝে মাঝে নদী, বিল, বাঁওড় ও হাওরে আসে এবং কখনও কখনও এসব জলাশয়ে স্থায়িভাবে থেকে যায়। মাঝারি আকারের কিছু চান্দা মাছ বঙ্গোপসাগরের বাসিন্দা। এদের মধ্যে Leiognathus bindus নামের চান্দার দেহবর্ণ রুপালি, ঘাড়ের পেছনে জলপাই রঙের ছোপ, পাখনাগুলি স্বচ্ছ। ডোরাকাটা চান্দার (Leiognathus fasciatus) দেহে  ছায়া ছায়া ডোরাগুলি লম্বভাবে  থাকে।

বঙ্গোপসাগরের কয়েক ধরনের Stromatidae গোত্রভুক্ত অতিপরিচিত চান্দামাছের মধ্যে রয়েছে Parastromateus niger বা মহিষা চান্দা (Brown Pomfret); দেহের রং গাঢ় বাদামি বা ধূসরাভ বাদামি, তাতে নীল রঙের ছায়া; ফলিচান্দা Pampus argenteus, গায়ের রং হালকা ধূসর; এবং রূপচান্দা Pampus chinensis, দেখতে বাদামি ধূসর, তাতে ধাতব দ্যুতি ছড়ানো। উল্লিখিত তিনটিই বঙ্গোপসাগরের বাসিন্দা। সামুদ্রিক মাছের মধ্যে এদের যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। তাজা, শুঁটকি ও লবণে সংরক্ষিত চান্দা বাজারে বিক্রি হয়।  [আখতারুন্নেসা চৌধুরী]