গিয়াসউদ্দীন তুগলক


গিয়াসউদ্দীন তুগলক (১৩২০-১৩২৫)  দিল্লির তুগলক বংশের প্রতিষ্ঠাতা। পূর্ব নাম গাজী মালিক। তাঁর পিতা মালিক তুগলক ছিলেন দিল্লির সুলতান বলবনের একজন তুর্কী ক্রীতদাস এবং মাতা ছিলেন পাঞ্জাবের জাট বংশীয়। আলাউদ্দীন খলজীর অধীনে তিনি সেনাবাহিনীর ওয়ার্ডেন হিসেবে চাকুরি জীবন শুরু করেন এবং মোঙ্গল আক্রমণ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী খসরুকে সিংহাসনচ্যুত করেন। দরবারের অমাত্যবর্গ ১৩২০ খ্রিস্টাব্দের সেপ্টেম্বরে তাঁকে সুলতানরূপে স্বাগত জানান।

তিনি দিল্লি সালতানাতের সামরিক শক্তি পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেন এবং বিদ্রোহী প্রাদেশিক শাসনকর্তাদের দমন করেন। বাংলার সুলতান  শামসুদ্দীন ফিরুজ শাহ-এর পুত্রদের মধ্যে সংঘটিত গৃহযুদ্ধ তাঁকে বাংলার রাজনীতিতে হস্তক্ষেপের সুযোগ করে দেয়। তিনি শামসুদ্দীন ফিরুজের পুত্র ও উত্তরাধিকারী  গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর শাহ-কে পরাজিত ও বন্দি করে দিল্লিতে নিয়ে যান এবং সুলতানের অপর পুত্র নাসিরুদ্দীন ইবরাহিমকে  লখনৌতির সামন্ত-শাসক হিসেবে নিযুক্ত করেন।

তিনি পূর্ববঙ্গ এবং ত্রিহুত অধিকার করেন। বাংলা থেকে প্রত্যাবর্তনের পথে দিল্লির উপকণ্ঠে তাঁর মৃত্যু হয়।  [আবু তাহের]